A Letter to Momo (Momo e no Tegami) [মুভি রিভিউ] — Torsha Fariha

A Letter to Momo

আর দশটা স্লাইস অফ লাইফ জানরার মতই শুরু হয় মুভিটা। প্রথম দৃশ্যে একটা ছোট্ট মেয়েকে দেখা যায় শীপের ডেকে দাঁড়িয়ে থাকতে। হাতে একটা সাদা কাগজ যেখানে শুধু লেখা “Dear Momo,” বুঝা যায় কারো শুরু করা চিঠি এটা। কিন্তু আর কিছুই লেখা নেই।
মোমো’র পাশে তার মা যখন এসে দাঁড়িয়ে দূরে তাদের গন্তব্য- ছোট্ট একটা দ্বীপ যখন দেখতে থাকে তখন থেকেই মোটামুটি একটা ক্লিশে স্লাইস অফ লাইফের শুরু আন্দাজ করা যায়।

কাহিনী খুব সংক্ষেপে বললে যেটা দাঁড়াবে সেটা হল অনেক দিন বাদে মোমো আর তার মা শহর থেকে ফিরছে মফস্বলে। বাবা ক’ দিন হল মারা গেছেন দুর্ঘটনায়। মা ভুগছেন অ্যাজমাতে। সবকিছু বেচাবিক্রি করে তারা তাই চলে এসেছে এখানে।

শহরের মেয়ে মোমো। জন্ম থেকে শুরু করে বড় হয়েছে সে সেখানে। তাই কৈশোর ছুঁইছুঁই বয়সটাতে সে কিছুটা গাল ফুলাতেই পারে এই হুট করে জায়গা পরিবর্তনে। এইজন্য শুরু থেকেই বেশ ঠান্ডা- চুপচাপ দেখা যায় মেয়েটাকে। জাহাজে যখন দাঁড়িয়ে ছিল তারা তখন হয়তো টুপ্টাপ বৃষ্টি পড়ছিল খানিকটা। আস্ত একটা পানির ফোঁটা যখন মাথায় পড়লো মেয়েটার সে চমকে তাকালো আকাশের দিকে।
কই বৃষ্টির নাম গন্ধ তো নেই!

পানির কণাগুলো এত সুন্দর করে প্রথমে দেখায় তাতে প্রাসঙ্গিকভাবেই মাকোতো শিনকাই এর কথা মনে পড়ে যায়। ভাবি, তার মুভিগুলার মত সুন্দর অ্যানিমেশন কি দেখতে পাচ্ছি তাহলে?

নাহ! আসলে সেরকম না মোটেও। তিনটা পানির ফোঁটা যখন ওদের পিছন পিছন টূকটুক করে বাড়ি পর্যন্ত হেঁটে আসে তখনই বুঝি সুপারন্যাচারাল কিছু ব্যাপারস্যাপার আছে মুভিটাতে!

এভাবেই শুরু Letter to momo এর। গল্প এগুলে দেখতে পাব বাসায় অদ্ভুতুড়ে কাণ্ডগুলো কেন হচ্ছে, মোমো’র বাবা কিভাবে মারা গেছেন, কেন মোমোর তার বাবাকে বলা শেষ কথা ছিল “I hate you, dad! You don’t have to come anymore”, কিংবা মোমো’র মা কি নতুন করে জীবন শুরু করতে চাচ্ছে কিনা… ইত্যাদি ইত্যাদি।

হাতে সময় থাকলে দেখে ফেলা যায় এমন একটা মুভি এটা। মোটে ২ ঘন্টার মত। শুরুটা একটু ধীর এগুলেও, একসময় কিন্তু ভালো দৌড়োতে থাকে কাহিনী। বিরক্ত লাগবে না একটুও! যেমনটা ভেবে বসা হয় মুভিটা দেখতে, শেষ করে উঠার সময় ভিন্ন থাকে অনুভূতিটা। অ্যাডভেঞ্চার, স্লাইস অফ লাইফ, কমেডি, সুপারন্যাচারালের বেশ ভালো একটা কম্বিনেশন।

বলছি না এটা বেশ আলাদা ধরনের কোন মুভি। বরং এটা আর দশটা প্রথম সারির স্লাইস অফ লাইফের সমান মজার। খুব বেশি জীবনবোধের কিছু নেই, দর্শক নিজের জীবনের সাথে মেলাবে এমন কিছু নেই। এই মুভিটা দেখা অনেকটা জানালা দিয়ে আরেকজনের জীবন দেখার মত।

Hope you guys will like it 

IMDB rating: 7.3
My Rating: 8

Fate Series Character Origin: Gilles de Montmorency Laval — Safayet Zafar

Caster 1

Full Name: Gilles de Montmorency Laval
Born: prob. c. September at France
Social standing: c (baron)

এই সেই ফেট জিরোর Gille de rais . Caster class, was a servant of Ryonnosuke

এই ব্যক্তি ছিলেন ফ্রান্সের একজন নোবেল ম্যান। ফান্সের ব্রিটানি (ফ্রান্সের উত্তর পূর্বে অবস্থিত) মিলিটারির সদস্য ছিলেন ১৫ শতাব্দীতে। তার ভাগ্য ছিল অনেক সু প্রসন্ন। তার জমা করা মোট সম্পত্তি এতোই বেশি ছিল তা ব্রিটানির ডিউকের মোট সম্পত্তিকে ছাড়িয়ে যায়। Hundred Years war এ তিনি অকল্পনীয় সাফল্য লাভ করেন যার কারণে তাকে মার্শাল অফ ফ্রান্স উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

১৪৩৪/১৪৩৫ খ্রিষ্টাব্দে তিনি মিলিটারি থেকে অবসর নেন এবং তার জমা করা সম্পদ বিপুল ভাবে খরচ করতে থাকেন। ১৪৩২ খ্রিষ্টাব্দে তার উপর সিরিয়াল কিলিং এর অভিযোগ আনা হয় যা ছিল ১০০ এর উপর বাচ্চা হত্যার।

Caster 2এর পর পর ই এক পাদ্রীর সাথে ভয়ংকর ঝগড়া হবার পর অভিযোগের তদন্ত যাযকীয় তন্দন্তে রূপ নেয় এবং ১৪৪০ খ্রিষ্টাব্দে তার অপরাধ সবার সামনে এসে পড়ে। তার বিচার কার্যে তিনি নিজের মুখে হত্যাকান্ডের শিকার হওয়া বাচ্চাদের পরিবারের সামনে নিজের দোষ শিকার করেন।

তিনি ১ম হত্যা করেন জেউডন নামের ১২ বছর বয়সী এক ছেলেকে ( ১৪৩২-১৪৩৩) খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে। এই জেউডন ছিল পশম প্রস্তুত কারী Gulliaume Hilairet এর সহকারী।

Gille de rais এর খালাতো ভাই Gilles de sille এবং Roge de Briqueville. সেই পশম প্রস্তুতকারী কে বলে জেউডেন কে নিয়ে যায় Machecoul এ একটি বার্তা পাঠাতে। যা ছিল পুরোই একটি মিথ্যা কথা এবং সেই বালক টি আর ফিরে আসেনি। তারা পরে অপহরনের কথা বলে বিষয়টিকে ধামাচাপা দেয়।

Gilles de rais এর ১৯৭১ নং বায়োগ্রাফিতে Jean Benedetti বলেছেন যে বালকটি কিভাবে gille এর হাতে পড়ে ও মারা যায়।

“[The boy] was pampered and dressed in better clothes than he had ever known. The evening began with a large meal and heavy drinking, particularly hippocras, which acted as a stimulant. The boy was then taken to an upper room to which only Gilles and his immediate circle were admitted. There he was confronted with the true nature of his situation. The shock thus produced on the boy was an initial source of pleasure for Gilles.”

Gilles de rais এর দেহ ভৃত্য poitou যিনিও এসব নির্মম হত্যাকান্ডে সহায়তা করতেন তিনি স্বীকার করেছেন যে Gilles ১ম এ বাচ্চা দের কে উলঙ্গ করতো। তারপর তাদের একটি হুকের সাথে বেধে ঝুলিয়ে দিতো এবং তাদের গায়ের উপর বীর্যপাত করতো। এরপর তাদের আশস্ত করা হতো এই বলে যে সে তাদের সাথে কিছুক্ষণ খেলতে চায়। এরপর পরইর তাদের হত্যা করা হতো।

আর যেসব বাচ্চাদের Gilles এর পছন্দ হতো তাদের সে সোডোমাইজ (sodomize = kind of. sexually abuse like oral or anal sex).

সবশেষে তাদের পেট চিরে ফেলে তাদের ভিতরের অঙ্গপ্রতঙ্গ গুলো দেখতেন Gille, তাদের চুমু খেতেন ও পেটের উপর বসে মৃত্যুযন্ত্রনা দেখতেন। শেষে মৃতদেহ গুলো তার রুমের ফায়ার প্লেসে পুড়িয়ে ফেলা হতো।

সকল দোষ প্রমাণিত হওয়ার পর তাকে ফাসির আদেশ দেওয়া হয় এবং ২৬ অক্টোবর, ১৪৪০ খ্রিষ্টাব্দে ৩৫ বছর বয়সে মারা যান। তাকে Church of the monastrey of Notre Dame des carmes যা Nantes এ অবস্থিত, সেখানে দাফন করা হয়। ধারণা করা হয় তার হাতে মারা যাওয়া বাচ্চার সংখ্যা ১৪০ জন।

Caster 3

Fullmetal Alchemist Brotherhood (FMAB) ফ্যান ফিকশন #2 — Rahat Rubayet

——– Fullmetal Alchemist Brotherhood (FMAB) ফ্যান ফিকশন ——–
Part 2:
———————–

দুঃস্বপ্নের রেশটুকু ধীরে ধীরে কেটে যেতে থাকলো সকাল হতে না হতেই। সেই সুন্দর মিষ্টি একটা আবহ ঘুরঘুর করছে যেন গোটা বাড়ি জুড়ে। উইনরি নিজের মনমত একটা ব্যখ্যা দাড় করিয়েছে অবশ্যএর পেছনে। এড বা শেলী যে কেউই কাছাকাছি থাকলে কিভাবে কিভাবে যেন বুঝে ফেলে ও। ওদের গায়ের গন্ধই আর ১০ জনের থেকে আলাদা আর আপন আপন লাগে উইনরির কাছে। যতক্ষণ ওরা কাছেপিঠে থাকে, ভালোলাগার অবসন্ন একটা ভাব ভর করে থাকে গোটা অস্তিত্ব জুড়েই। উইনরির কাছে মাঝেমাঝে ঘোরের মতন বোধ হয় গোটা ব্যপারটা। এতো প্রশান্তির এতো সুখের আর সাজানো গোছানো সংসার নিয়ে প্রতিনিয়তই কেন যেন ভীতি কাজ করে ইদানীং ওর।
এতো সুখ সইবে তো? এমন নির্ঝঞ্ঝাট সংসারের স্বপ্ন সবাই দেখে- সব্বাই। কিন্তু বাস্তবে দীর্ঘ সময়কাল ধরে তার প্রতিফলন কেমন যেন অস্বস্তির জন্ম দেয়। উইনরি অস্বস্তির ভাবটুকু কাধ ঝাঁকিয়ে ফেলে দেয়। রান্নার জন্য যে বাড়তি কাপরটা গলায় পেচিয়ে রাখে তা খুলতে খুলতেই মিষ্টি আর বহুল পরিচিত একটা গন্ধ এসে ধাক্কার মতন লাগলো নাকে।
এড পারফিউম ইউজ করছে। এডের সবকিছুই উইনরির ভালো লাগলেও, এই পারফিউমটার প্রতি কেন যেন ভালো লাগা বোধ টা অস্বাভাবিক মাত্রায় কাজ করে। উইনরির মাথা ঝিমঝিম করতে থাকে। স্মিত প্রশান্তির হাসি নিয়ে খাবার ঘরটা পার হয়ে বেডরুমের দরজার গায়ে হেলান দিয়ে দেখছে এড শেলীকে রেডি করিয়ে দিচ্ছে স্কুলের জন্য। শেলীর দিকে তাকিয়েই কেমন যেন বুকের একপাশটা হুহু করে উঠলো ওর। কাল রাতের দুঃস্বপ্ন টা হটাত যেন চোখের সামনে জীবন্ত দেখতে পাচ্ছে। জোর করে হাসিটা ধরে রেখে বাকি সব চিন্তা মাথা থেকে দূর করে দিতে চাইলো ওর।
শেলী ঘুরে তাকালো, সোনালী বড় বড় চুল আর মায়াকাড়া চোখে এড আর উইনরি ছাড়াও এডের মায়ের একটা ছাপ দেখা যায় কেমন যেন। উইনরি নিজের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। এড আর শেলীকে বিদেয় দিয়েই বরাবরের মতন ঘরদোরের কাজে ব্যস্ত হয়ে পরে ও।
দেখতে দেখতে বেলা গড়িয়ে যায়। এ কাজ ও কাজ করতে করতে মনের আনন্দে প্রজাপতির মতন উড়তে থাকে যেন উইনরি। গুনগুন করতে করতেই ঘড়ির দিকে তাকায়।
আসার সময়ে হয়ে এসেছে ওদের। ভালো লাগার তীব্রতা বাড়তে শুরু করেছে, রোদের ভাবটা কমতে শুরু করায়। সামনের উঠোনের পারের স্মোক ট্রি গুলোর কাছে এসে বাতাস টা উপভোগ করতে থাকে উইনরি। উইনরির চিন্তার ডালপালা ক্রমশ বড় হতে থাকে। জীবনের বিভিন্ন সময়ের ঝড়ঝাপটা, আর শেষে এসে এডের সাথে থিতু হওয়া। সময়গুলোর ভেতরে জীবনের অপ্রাপ্তির কিছু খোজার চেষ্টা করে না উইনরি। একাএকা এই যে ওদের জন্য অপেক্ষা করছে, সে সময়টাও কি অদ্ভুত ভালো লাগা কাজ করতে থাকে ওর ভেতর।
ওদের দেরি দেখে উইনরি ঘরে ঢুকে সোফার ওপর বসে, মখমলের হাতলের ওপর এক কনুই ভাজ করে রেখে কাত হয়, সোনালি চুলগুলো একপাশে টেনে আনে। আচ্ছন্নবোধ টা কাটে দরজায় শব্দ শুনে। উইনরি উঠে গিয়ে দরজা খুলে শান্ত ছোট ছোট পা ফেলে। মুখে একগাল হাসি ধরে রেখেই কপট রাগ ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করতে করতে দরজা খোলে।
এড দরজার বাইরে দারিয়ে আছে,দু হাতে পাজোকালো করে শেলীকে ধরে। শেলীরকানের পাশ দিয়ে রক্তের মোটা ধারা শুকিয়ে এসেছে। রক্তের দাগ স্কুল-ইউনিফর্ম জুড়েই। উইনরি এডের চোখের দিকে একবার তাকায়, আবার পরক্ষনেই শেলীর দিকে তাকায়। উইনরির কাছে গোটা ব্যাপারটাই দুঃস্বপ্নের মতন মনে হতে থাকে।

———————–

The Twelve Kingdoms [রিভিউ] — Krista King

Twelve Kingdoms 1

Anime name: JUNNI KOKUKI or JUNI KOKKI or THE TWELVE KINGDOMS
Genre: Wiki অনুযায়ী fantasy drama romance, MAL অনুযায়ী action adventure fantasy. আমার মতে historical fantasy adventure political and action.
Demographic: Shoujo (কোনো দিক দিয়েই মনে হয়নি), mature বস্তুও আছে।
Written by Fuyumi Ono
Illustrated by Akihiro Yamada
Aired: 2002 to 2003
Episode no: 45

এই আনিমেটা আমার ভালো লাগার সর্বমূল কারণ হল- এই আনিমের মহিলা কেন্দ্রীয় চরিত্রটি অন্যান্য shonen ও shoujo seriesএর মহিলা মূল চরিত্রের মত ভ্যাঁ-ভ্যাঁ করে কেঁদে নায়কের বুকে গড়াগড়ি দেয় না। যেখান সেখান থেকে অতিসুন্দর ক্ষমতাশালী কেউ এসে নায়িকাকে কোলে তুলে নেয়না। যেখানেই যায় সবাই তাকে ভালোবেসে ফেলে এমন ভাগ্যবান নায়িকা নয়।

প্রথম থেকেই সংঘর্ষের মধ্যে দিয়ে যেতে হয় নায়িকাকে, অসহায় নায়িকা কোনোমতে সকলকে বাঁচালেও কেউ তাকে ভালোবাসে না বরং সকলেই ঠকানোর চেষ্টা করে। সৌরিয়, কেঈকী তাকে সাহায্য করলেও, তাকে উপদেশ দিয়েছে কিন্তু তার হয়ে লড়াইটা কেউ লড়ে দেয়নি। নিজেকেই নিজের অস্ত্র বানিয়ে শক্তিশালী হতে বাধ্য হতে হয়েছে তাকে।

Twelve Kingdoms 2রাজনীতি ও অ্যাকশন দেখানোর জায়গাগুলো অত্যন্ত সুন্দরভাবে দেখানো হয়েছে, এই আনিমে আকৃষ্ট হবার যেটা অন্যতম প্রধান কারণ।

কত ধরনের শাসক হয়ে, কেউ অত্যাচারী, কারোর রাজনীতিতে মন নেই, কেউ অপরাধ মুক্ত দেশ বানাতে গিয়ে নির্দয়ী হয়ে যায় আবার কেউ রাজ্য ও জনগণকে সম্পদের মত আগলে রাখে। রাজ্য চালনা, সাধারণ মানুষের জীবন, দারিদ্র্য, অনাহার। তারই মধ্যে আবার মানুষের স্বার্থপরতা। শাসকের সামান্য ভুলে কীভাবে পুরো দেশকে ভুগতে হয়। শাসকের প্রতি দেশবাসীর প্রতিহিংসা, বিদ্রোহ। সেজেগুজে সিংহাসনে বসলেই যে কেউ রাজা বা রাণী হতে পারে না।
আরেকটি জিনিস যেটা দেখানো হয়েছে সেটা হল একটা বিশ্ব-গঠন। ঠিক কি নিয়মানুসারে এই জগৎ টা চলে। কীভাবে সন্তানের জন্ম হয়। কি করে শাসক নির্ধারণ হয়, মন্ত্রীত্ব, শাসন ব্যবস্থা, শিক্ষা ব্যবস্থা। সমস্ত তথ্য খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপিত।

রোমাঞ্চকর অ্যাডভেঞ্চার কাহিনী, গল্প বলার ধরনে কোনোরকম কথা হবে না, শুধু অসাধারণ। চিত্রাঙ্কন অতীব সুন্দর ও very classic, কোনো অতিরূপসী, overmuscled, অতিমিষ্টি ও লোলি-মুখো নেই…. সাধারণ অথচ আকর্ষক। এতটাই classic যে চোখ সরানো যায় না।

শুধু নায়িকারই অসামান্য লড়াই দেখার জন্য যখন মন উদ্বিগ্ন তখন অন্য চরিত্রদের কাহিনী শুনতে যেন bore লাগছিল, জানি এটা আমার ইচ্ছে মাত্র, আসলে লেখক সব চরিত্রকেই যথাযথ ভূমিকা দিয়েছে- এটা খুবই ভালো জিনিস। যুদ্ধের জায়গাগুলো যতটা দেখানোর ততটাই ঠিক দেখিয়েছে, তবুও আমার আরো যুদ্ধ দেখতে ইচ্ছে করছিল।

আসলে যতটুকু বলেছি কমই The Twelve Kingdom তারচেয়ে আরো অনেক বেশি।

Twelve Kingdoms 3

Love Live! Sunshine!! [রিভিউ] — Imamul Kabir Rivu

Love Live Sunshine 1

Love Live! Sunshine!! 
Episode: 13
Genres: Music, Slice of Life, School

লাভ লাইভ আনিমেটার জনপ্রিয়তা এখানে একেবারে নাই হলেও, জাপানের অন্যতম সফল ফ্র্যানচাইজগুলোর একটা হল লাভ লাইভ। আর কেন হবে আগের কাহিনী একেবারে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একটা পার্ফেক্ট স্টোরি বলতেই হবে এর সাথে এক অসাধারণ ক্যারেক্টার ডেভেলপমেন্ট, শুধু তাই না মিউজ আইডোল গ্রুপটার প্রত্যেকটা চরিত্রই অনেক উইনিক এবং অনেকভাবেই দর্শকের মনকে আকর্ষণ করে, এই কারণগুলোর জন্যেই বাইরে এর ফ্যানবেজ এতটা ক্যানসারাস এবং সেরা চরিত্রকে এ নিয়ে বলতে গেলে ভক্তদের মাঝে মারামারি লেগে যাওয়ার মত। আসলে মানুষ ভালো জিনিশের কদর করবে এটাই স্বাভাবিক। যাই হোক, আগের সিরিজের এত সফলতা পেয়ে, সিরিজটার অন্য এক সেটিং-এর উপর এক স্পিন-অফ সিরিজ হিসেবে গত বছরে বের হয় সানশাইন।

কাহিনীর প্লট লাভ লাইভের মুভির পর পর সময়েরই, সেখানে মিউজ এখন অনেক জনপ্রিয় এক আইডোল গ্রুপ, যা মিউজের গন্তব্য ছিল আর কি। এদেরকেই অনুপ্রেরণা হিসেবে দেখে সিরিজের প্রধান চরিত্র চিকা এবং নিজেদের স্কুলে এক স্কুল আইডোল গ্রুপ খুলতে চান তার বান্ধবী ইয়ৌকে নিয়ে। কিন্তু তাদের স্টুডেন্ট কাউন্সিলের ডাইয়া কোনমতেই তাদের মেনে নিবে না। এরপর তাদের উরানোহোশি গার্লস হাইস্কুলে ট্রান্সফার স্টুডেন্ট হিসেবে আসে সিরিজের আরেক প্রধান চরিত্র রিকো। কোনমতে তাকে রাজি করিয়ে ইয়ৌ, রিকো এবং চিকা এই ৩ চরিত্র মিলে তৈরি করে আইডোল গ্রুপ Aqours এবং এই গ্রুপ কিভাবে আরও বড় হয়, মূলত একটা পার্ফেক্ট শেপে আসে এ নিয়েই সানশাইনের মূল কাহিনী। কাহিনী অনেকটা আগের সিরিজটার মতই চলে, তবে সেটা আনিমেটার প্রথমার্ধ। পরের দিকে যেয় ঠিকই নিজের গতিতেই আগাতে থাকে সানশাইন। তবে আগের লাভ লাইভের প্রতিচ্ছায়া যে এই সিরিজে অনেক ভালোভাবে আছে, তা উপলব্ধি করতে পারবেন বিভিন্ন ধাপে ধাপে। কিন্তু তাও সব মিলায় উপভোগ করার মত এক কাহিনী সানশাইন।

Love Live Sunshine 2

সানশাইনের আর্ট অনেক বেশি সুন্দর। আগের সিরিজের তুলনায় ব্যাকগ্রাউন্ডের অ্যানিমেশন বহু গুণের সুন্দর করেছে আর সাথে সিজি বহু গুনের কম। সিরিজের প্লট যেহেতু টোকিয়ো থেকে অনেক দূরের এক এলাকায়, যেটা কি না একেবারেই সমুদ্রের পাশে, তাই আনিমেটায় সমুদ্র এবং বাকি নানা রকম প্রাকৃতিক দৃশ্যের অ্যানিমেশন অনেক সুন্দর এবং যত্ন করে বানানো হয়েছে, একেবারে তাকায় থাকতে মন চাবে এরকমই। বিভিন্ন মুহূর্তে চমৎকার এনিমেশনের কাজ দেখিয়েছে এই আনিমের অ্যানিমেটররা।

জন্রায় মিউজিক আছে, তো OST যে অনেক ভালো হবে এটাই স্বাভাবিক। OP-ED দুইটাই অনেক সুন্দর গান, আনিমের থিমের সাথে মানানসই এবং অনেক উপভোগ করার মতই আর কি। আর এছাড়া আইডোল গ্রুপগুলোর গানগুলো তো আছেই। তবে লাভ লাইভ সিরিজে কেন জানি রাইভাল গ্রুপগুলোর গানগুলো অনেক বেশি ভালো হয়। আগের সিরিজেও A-Rise-এর গানগুলো বেশি ভালো লাগছে এখানেও Saint Snow মাত্র একটা গান গেয়েছে কিন্তু ওটাই আমার কাছে সবচেয়ে সেরা ইনসার্ট সং লেগেছে। এছাড়া Aqours-এর গানগুলোও ভালো ছিল তবে তাদের যেই দুইটা গান সবচেয়ে ভালো লাগছে সেইটা সিরিজে ছিল না।

সিরিজের ৯ জন প্রধান চরিত্র এবং একেকজনের কাজকর্ম একেকরকম, কিন্তু সবার কাজকর্ম দেখেই বহু মজা পাওয়ার মত। এখানে প্রত্যেক চরিত্রের মাঝেই মিউজের একেকজনের ইনফ্লুয়েন্স অনেক বেশি রকমের ছিল। সানশাইন অনেকটা লাভ লাইভের প্রথম সিজনের মত ছিল, পুরো আইডোল গ্রুপটাকে একত্রে নিয়ে আসা নিয়ে। তাই আগের লাভ লাইভের মত সিরিজের চরিত্রগুলো সেরকম আপন হয়ে উঠবে না, যা হইছিল আগের সিরিজেরও দ্বিতীয় সিজনে। সানশাইন আরেক সিজন পাইলে তখন সিরিজটার চরিত্রগুলোর ইম্প্রুভমেন্ট আরও ভালোভাবে চোখে পরবে কেননা সিরিজ যেখানে শেষ করেছে এখন মাত্র তারা নিজেদের লক্ষ্যের দিকে আগানো শুরু করছে। আর সানশাইনের ভয়েস অ্যাক্টিং অনেক বেশি ভালো ছিল, সেইয়ুগুলো চরিত্রগুলোর ইউনিকনেস ফুটে তুলতে সক্ষম। আর আগের সিরিজের মত এখানেও সিরিজের মূল চরিত্রের সেইয়ু সব নবাগত সেইয়ু, কিন্তু তাদের কাজে এর একটুও প্রতিফলন ঘটে নাই যে তারা নবাগত।

লাভ লাইভের কাহিনী অনেক সুন্দর, তাই আমি বলবো এখনও না দেখে থাকলে দেখতে পারেন খারাপ লাগবে না। আর আগের সিরিজ দেখে থেকে সানশাইন এখনও শুরু না করলে বলবো সানশাইনও শুরু করে দিন, ভালো লাগবে।

Love Live Sunshine 3

Kekkai Sensen [রিভিউ] — নাফিস মুহাইমিন

এবং একদিন শহরে। কিছু প্রশ্নের খোঁজে। এলোমেলো পা ফেলে হেঁটে চলা রাস্তায়। সুন্দর ধূসর।

ফটোগ্রাফি? তাতে থিতু হতে পারা যেত। সর্বদর্শী চোখ দুটোর কাছে ক্যামেরার লেন্স নিরর্থক হয়ে না পড়লে।

বিভ্রান্ত নায়ক প্রাক্ নিউ ইয়র্কে, ভেতরে বাইরে উদভ্রান্ত জীবেদের ভিড়ে হারিয়ে। তার সাথেই সময় কাটালাম প্রহর দেড়েক। জানাতে এলাম সে খবর।

Kekkai Sensen 1

টাইটেল: কেক্কাই সেনসেন
পর্ব: ১২
জনরা: শৌনেন
ম্যাল রেটিং: ৭.৭

গল্পের চাষ ইয়াসুহিরো নাইতোর কালিতে, কলমে। অজানা থাকার কথা নয়। ট্রিগান বা গানগ্রেভের মতো কাহিনীর রূপকার তিনি। ম্যাঙ্গাকা ওয়েস্টার্ন সেটিং-এ গল্প রচনায় সিদ্ধহস্ত। বেছে নিলেন পোস্ট অ্যাপোক্যালিপ্টিক স্টোরিলাইন কেক্কাই সেনসেন-এ। ম্যাঙ্গা এখনো অনগোয়িং। ২০১৫ তে ওয়ান কু’র অ্যানিমে অ্যাডাপ্টেশন পায়। স্টুডিও বোনস্। হেলসালেম’স লটে বিচিত্র নির্ঘণ্টে চলতে থাকা ঘটনা দুর্ঘটনাগুলো দর্শকপ্রিয়তা পেতে দেরি করে না। মূল চরিত্রে সম্ভবত মিশরীয় সৌরদেবতা রা, হোরাসের অবতারণা করা হয়। একেবারে ডার্ক থিমড না হলেও সমালোচকরা ইতিবাচকভাবে এর মাঝে খুঁজে ফিরেছেন বাকানো!- এর ছায়া।

Kekkai Sensen 2

নরম রোদ গায়ে এসে পড়লে যেমনটা লাগে। তুলোট উষ্ণতা। অ্যানিমেশন অনুভূতি সৃষ্টি করে তেমনটাই। প্রথম দর্শনে মনে রেখাপাত করতে যথেষ্ট। ম্যাঙ্গার আর্টওয়ার্কে একরকম সারল্য ধরা পড়ে। সে তুলনায় স্ক্রিনে যারপরনাই ব্যস্ততা। অ্যাকশন সিন হোক বা সোফায় গা এলানো অলস মুড ― সূক্ষ্মতার সাথে বোনা হয়েছে প্রতিটা দৃশ্য। রঙের ব্যবহার অকৃপণ। আর্বান ব্যাকগ্রাউন্ডের সাথে আলো ছায়ার মিতালী। অনিয়মিত একটি পৃথিবীর গল্প বলতে উপযোগী বেদী আর কোনো কিছুতে হতো কি?

কোনো ছাঁচে ফেলে চরিত্রগুলো মাপতে যাওয়া বৃথা। অল্প কিছু প্যারামিটার ধরে রেখে কাহিনীকার তাদের ছেড়ে দিয়েছন ঘুরতে, ফিরতে। মানব প্রবৃত্তির অলিতে গলিতে। খামখেয়ালিপনাতে কমতি নেই কারো। টান পড়েনি স্বকীয়তায়। আর অসংলগ্নতায়। লিওনার্দো, সনিক, জ্যাপ। পর্দায় এই ত্রয়ী হাজির হলেই চমকে উঠতে হয়। গুর‍্যেন লা’গান দেখছি নাতো? ভিলেনদের তুলনায় কখনো কখনো প্রোটাগনিস্টদের পিছিয়ে পড়তে হয়, পিছিয়ে রাখতে হয়। ফেমট আগ্রহ ধরে রাখতে পারছে। সামনে কী নিয়ে অপেক্ষা করে আছে সে দেখার বিষয়। চরিত্রগুলোর বিকাশে সেইয়ুরা কম করেননি। কেক্কাই সেনসেন ভয়েস অ্যাক্টিং পর্ষদের বাকশিল্পীরা অভিজ্ঞ ও সুপরিচিত। তাছাড়া ইংলিশ ডাবিংও খুব ভালো হয়েছে। সবরকম দর্শকের জন্য ব্যাপারটা স্বস্তির।

Kekkai Sensen 3

মোজার্টের ম্যাজিক ফ্লুটে ডুব দিয়েছি। তবু তার চেয়ে বেশি ভালোলাগা ব্ল্যাকের শিসে। শুনছি মোহিত হয়ে। অ্যানিমেতে ক্লাসিকাল মিউজিক অ্যাডাপ্ট করার প্রবণতা বেশ মজার। ইদানীংকালের অনেক শো’তে চোখে পড়ছে হঠাৎ হঠাৎই। ম্যাজিক ফ্লুট ওভার্চারের স্লো ভার্শনকে আশ্রয় করে তোলা শিসে উন্মনা না হয়ে পারা যায় না। কিং অব ডিসপেয়্যার চরিত্রের সব রহস্যময়তা ধরা দেয় যেন এই হুইসেলে।

আউটস্ট্যান্ডিং কিছু কাজের মাঝে কেক্কাই সেনসেন- এর সাউন্ডট্র্যাক স্থান করে নিতে পারে। কী অর্কেস্ট্রা, কী লাউঞ্জ। পপ বলুন বা ইডিএম। কাহিনীপট বিবেচনায় মিউজিক কম্পোজিশন অনবদ্য। পর্দার পেছনের শিল্পীরা নৈপুণ্যের পরিচয় দিয়েছেন। সময়ে সময়ে টের পাওয়া যায়। সাড়া জাগানো ট্র্যাকের কথা উঠলে ‘হোয়াইট গ্লাভস’, ‘ক্যাচ মি ইফ ইউ ক্যান’, ‘ল্যান্ড অব নড’ এর নাম আগেভাগেই করে ফেলা যায়। আমার বেশ কিছু নির্ঘুম রাতের সঙ্গী ছিল ‘কীপ অন দ্য সানি সাইড’, ‘আর্লি ট্রেইন’ আর ‘স্টারবো’। নান্দনিকতা বিচারে ট্র্যাকগুলোর তুলনা চলতে পারে খুব কম কাজের সাথেই। চিত্তাকর্ষক মিউজিকের কারণে অ্যানিমেটা জায়গা করে নিবে দর্শকের মানসপটে।

কেক্কাই সেনসেন- এর এন্ডিং থিম নিয়ে একটু বাড়াবাড়ি করা যেতে পারে। শিল্পীরা সুযোগটা রেখেছেন। ইউনিসন স্কয়ার গার্ডেন ব্যান্ডের করা ‘সুগার সং তো বিটার স্টেপ’ গানটা কানে পৌঁছলে মন থেকে সব অন্ধকার দূর হয়ে যায়। সিজনসেরা ছিল থিমটা বলা বাহুল্য। সেই তুলনায় ওপেনিং থিম ‘হ্যালো, ওয়ার্ল্ড! ‘ বেশ মিডিওকার।

Kekkai Sensen 4

শৈশবে সেইনেন আর ফিলসফি কপচে হঠাৎ হাতে পেলাম কেক্কাই সেনসেন। মনে হলো বেশতো, দেখে ফেলি। হতাশ হইনি। মানবহিতৈষা, বন্ধুত্ব, পরিবার, জগৎ উদ্ধার — এই আর কি। টুপ করে গল্পের মাঝখানে পড়ে যাওয়ার আনন্দ আছে। আনন্দ পাচ্ছি।

অপেক্ষায় আছি সেকেন্ড সিজনের।

Kekkai Sensen 5

Kotoura-san [রিভিউ] — Imamul Kabir Rivu

Kotoura-san 2

Kotoura-san
Genre: Comedy, Drama, Romance, School
Episode: 12

ছোট কিছুর মাঝে বেশ ভালো আনিমে খুজছেন তাহলে কোতোউরা-সান সেরা সাজেশনগুলোর মাঝে একটা। শুরু থেকে শেষ অত্যন্ত পার্ফেক্ট একটা জিনিস এই আনিমে।

অত্যন্ত হাসি-খুশি একটা আনিমে এটি কিন্তু কাহিনীর শুরুটা হয় বেশ ডার্কভাবে। কেননা সিরিজের প্রধাণ চরিত্র কোতোউরা হারুকা হল এমন একজন যিনি কি না আশে পাশে সবার মনে কি আছে তা শুনতে পারে। আমরা যতই এরকম কোন ক্ষমতার আশা করি না কেন, আসে পাশের মানুষ যখন এটা বুঝতে পারবে তখন আপনার থেকে দূরে থাকবে এটাই স্বাভাবিক। এই নিষ্ঠুর বাস্তবতা এড়িয়ে যেতে পারেননি কোতোউরাও। যখন থেকে সবায় বুঝা শুরু করে তার এরকম অতিপ্রাকৃতিক ক্ষমতা আছে, তার ক্লাসমেট, বন্ধুৃ-বান্ধব থেকে শুরু করে তাকে ছেড়ে চলে যান এমনকি তার পিতা-মাতাও। এভাবেই একা একা বড় হয়ে উঠে কোতোউরা তার মিড্ল স্কুল পর্যন্ত। তবে তার জীবনটা পরিবর্তন হতে থাকে হাইস্কুল থেকে, মানাবে নামক এক ছেলের সাথে দেখা হওয়ার পর। মানাবে অত্যন্ত সড়ল একজন চরিত্র যার মাথায় কি না সারাদিন পার্ভার্টেড চিন্তা-ভাবনা ছাড়া কিছু ঘুরে না। এ জিনিস নিয়ে কোতোউরারও কম জ্বালাতন সহ্য করতে হয় না, কিন্তু এরকম একজনই তার আপন হয়ে উঠছে যখন কি না সবায় তাকে উপেক্ষা করে তাই তাকে তো আর দূরে সরানো যায় না। এরপর ঘটনাক্রমে কোতোউরার সাথে খাতির হয় তার ক্লাবের সেনপাইদের সাথে মিফুনে এবং মুরোতো সাথে তার বন্ধু হয়ে উঠে মোরিতানি।

বেশ ডার্কভাবে শুরু হওয়া সিরিজটা বুঝার আগেই এক হাসি খুশি আমেজ নিয়ে আসে। কাহিনী কিছুটা গভীর হতে থাকলেও মুহুর্তের পর মুহুর্ত থাকে আকস্মিক কমেডি। তবে রোম্যান্স অংশটাও বেশ আকর্ষণপূর্ণ হতে থাকে এবং সাথে কাহিনী এভাবেই আগাতে থাকে যেন আপনাকে এরপর কি হবে সেটা দেখার জন্য বসিয়ে রাখবে। মানুষের উপর আস্থা হারিয়ে ফেলা কোতোউরা কিভাবে আস্তে আস্তে তার হারানো মানুষ ফিরে পায় এটা নিয়েই আনিমের মূল কাহিনী।

সিরিজটার এক আকর্ষণীয় দিক হল এখানকার চরিত্রগুলো। প্রত্যেকটি চরিত্রই ব্যতিক্রমী এবং বেশ মজাদার। ঘটনার ক্রমে সবাইকে ভালো লেগে উঠার মত। এছাড়া চরিত্রের ডিজাইনটাও ছিল ব্যতিক্রমি তবে কোনভাবেই দৃষ্টিকটু নয়।

সিরিজের আর্টটা তেমন আহামোরি কিছু নয়। ব্যাকগ্রাউন্ড আর্ট অত্যন্ত সাধারণ। দেখেই যে চোখ ঝলসায় দিবে সেরকম কোন আর্টের ধারে কাছে নয় সিরিজটির আর্টটা তবে খারাপ যে লাগবে না তার গ্যারান্টি দিতে পারি। তবে আর্ট যেমনই হোক না কেন সিরিজটার ওপেনিং এবং এন্ডিং অনেক মিষ্টি। সিরিজের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকগুলো অতি সাধারণ ছিল। বলবো যে ব্যাকগ্রাউন্ডের সাথেই মিশে গেছে আলাদা করে কানে এসে বাধেনি। কিন্তু ওপেনিং গানটা অনেক সুন্দর এবং এত কিউট যে পুরো ডায়াবেটিস ধরিয়ে দেওয়ার মত জিনিস। ওপেনিং গানটি মেগুমি নাকাজিমার গাওয়া (যিনি কি না কাঙ্কোলেতে গোয়া, ইবুয়া, মিকুমা এদের কণ্ঠ-অভিনেত্রী) তবে তিনি কোন চরিত্রের কণ্ঠ দেননি এখানে (অবশ্য একজন গায়িকা হিসেবেই তিনি বেশি খ্যাতিমান)। এছাড়া এন্ডিং গানগুলোও ঠাণ্ডা মেজাজের এবং বেশ সুন্দর।

Kotoura-san 1

কোতোউরার কণ্ঠে কানেমোতো হিসাকোর কাজ অত্যন্ত শ্রুতিমধুর ছিল। তার সফ্ট টোনের চরিত্রেরগুলোর একটি কোতোউরা। এছাড়া মিফুনের কণ্ঠে কানা হানাজাওয়ার কাজ ছিল নিখুত । শিমোনো হিরো আর ফুকুশিমা জুনের জন্যও মানানসই রোল ছিল মুরোতো এবং মানাবে। আর কুবো ইয়ুরিকা মূলত লাভ লাইভের হানায়োর জন্য সবচেয়ে পরিচিত, তার শুনা সেরা রোলগুলোর একটা মোরিতানি। ইনৌয়ে কিকুকো (কুমিকো) এবং ওয়াতানবে আকেনো (সুকিনো) এদের কণ্ঠ অভিনয়ও ছিল অত্যন্ত নিখুত। এছাড়া সিরিজের এক-দুই লাইন পাওয়া চরিত্রগুলোর সেইয়ুদের নাম শুনলেও চোখ মাথায় উঠবে, এই তালিকায় ছিল তানেদা রিসা, উচিয়ামা ইয়ুমি, আকাসাকি চিনাৎসু, তাকাহাশি মিকাকো, ওনিশি সাওরি এদের মত সেইয়ুদের নাম । অবশ্য তখন তাকাহাশি মিকাকো ছাড়া আর কেউই তেমন কোন রোল পায় নাই।

সিরিজটার রোমান্সটা অনেক সুন্দর ছিল, বিল্ডাপটা অনেক পার্ফেক্ট ছিল, সব মিলায় কোন খুত নাই এরকম একটা সিরিজই হয়ে উঠেছে। এছাড়া আপনাকে যতই দূরে ঠেলে দেক না কেন অথবা যে কারণেই আপনার সাথে থাকুক না কেন, কিছু কিছু মানুষ যে কখনই আপনাকে মন থেকে দূরে ঠেলে দিবে না এ বিষয়টা অনেক সুন্দর করে তুলে ধরেছে। অতএব, কারো সাথে ঝগঢ়া এ নিয়ে মন খারাপ থাকলে আমার মতে ওই সময়ে দেখার জন্য পার্ফেক্ট আনিমে হল কোতোউরা-সান। তবে অন্য সময়ও বসে দেখলে আপনাকে একটুও নিরাশ করবে না আনিমেটি। তাই যত তারাতারি পারুন দেখে ফেলুন এই আনিমেটি।

ব্যক্তিগত রেটিং – ৯.৫/১০

আন্ডারকারেন্ট [মাঙ্গা রিভিউ] — Rumman Raihan

Undercurrent

“সুকি নো ইউ” বাথহাউজের মালিক কানায়ে সেকিগুচির বয়স তেমন বেশি না। মাত্র চার বছর আগেই হাই স্কুল থেকে পাশ করে বেড়িয়ে সে বিয়ে করে ফেলে এক সহপাঠী যুবককে। তার কিছুদিন পর বাবার মৃত্যুর কারণে উত্তরাধিকার হিসেবে বাথহাউজের দায়িত্ব পড়ে কানায়ে আর তার স্বামীর উপরে। সেখানে দুজনে মিলে বাথহাউজের দেখাশোনা করে সংসার শুরু করে ফেললো। বেশ ভালোই দিন কেটে যাচ্ছিল তাদের।
তারপর…

একদিন কানায়ের বর হারিয়ে গেল। অন্যসব দিনের মতই কাজের খাতিরে তাকে বাইরে যেতে হয়েছিল। কিন্তু সে আর ফিরে আসলো না। সবজায়গায় অনেক খোঁজ করা হল। কিন্তু সে কোথায় আছে, কেমন আছে তার কখনো হদিস পাওয়া যায়নি।

মাঝে মাঝে, লোকমুখে নানান আলাপ শোনা যায় কানায়ের বরের নিখোঁজ হবার রহস্য নিয়ে।
এখন কানায়ে আর তার এক মাসি মিলে ঐ বাথহাউজটার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। কানায়ে কাজের মাঝেই নিজেকে ব্যস্ত রাখতে চায়। হারিয়ে যাওয়া মানুষের জন্যে জীবন থেমে থাকে না।
তবে গভীর দুঃখ যে বার বার দুঃস্বপ্ন হয়ে ফিরে আসে না, তা না। অতীতের ঘোলাটে স্মৃতিগুলোর কথা মনে করলেই রাগ, হতাশা, ঘৃণা, ভালোবাসা সব অনুভূতিগুলো একসাথে ভেতরে জট পাকিয়ে যায়। আর কতদিন একজনের অপেক্ষায় বসে থাকা যায়? প্রতিদিন টিভিতে, সংবাদপত্রে চোখ রেখে, দরজায় কান পেতে…

একদিন একজন লোক আসলো সেই বাথহাউজে কাজের সন্ধানে। কানায়ের বরের হারিয়ে যাওয়ার পর একজন কাজের লোকের দরকার পরেছিল বেশ কদিন ধরেই, হোরি নামের এই যুবকটি সেই অভাব পূরণ করে দিতে কাজে লেগে পড়লো। সে অনেক ভদ্র আর নিরব স্বভাবের মানুষ, যার কাছে মনের অনেক গোপন কথা অনায়াসে বলে দেয়া যায়। আচ্ছা, হোরি কানায়ের জীবনে ভালোবাসার মানুষের অভাবটাও পূরণ করে দিতে পারবে কি?
নাকি সেও একদিন তাকে কিছু না বলে উধাও হয়ে যাবে? কেউ যদি চলে যেতে চায় তাহলে তাকে আটকানো যাবে না।

কানায়ে কাউকে ধরে রাখতে চাওয়ার মত মেয়েও না। সে নিজে মানসিকভাবে অনেক শক্ত, অন্তত বাইরে থেকে তাই মনে হয়। কিন্তু তারপরেও তার মাঝে অনেক কিছু আছে যা কখনো কাউকে বলা সম্ভব না। অতীতে ঘটে যাওয়া কিছু ব্যাপার সে নিজের মাঝে অনেক দিন ধরে লুকিয়ে রেখেছে। তার কারো জন্য দুর্বল হলে চলবে না। নয়তো অনুভূতির উজান স্রোতে সেসব লুকানো স্মৃতি তাকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে।

তেতসুইয়া তোয়ওদার আন্ডারকারেন্ট মাঙ্গাটা আমার অনেক প্রিয় একটা মাঙ্গা হয়ে উঠেছে। অত্যন্ত সাদামাটা আর্টস্টাইলে একটা পরিপূর্ণ কাহিনীবিন্যাসে মাঙ্গার চরিত্রগুলো বেশ ভালো ভাবেই ফুটে উঠেছে। এবং তা সম্ভব হয়েছে কারণ চরিত্রগুলির চেহারা আর ভাবভঙ্গিতে কোনো অতিরঞ্জনের ছায়া নেই, নামের সাথে মিল রেখেই সেসব সূক্ষ্ম আকারে দেখানো হয়েছে। মূল চরিত্র কানায়ের অবসন্নতা, আর এলোমেলো অবস্থা তার চেহারায় বোঝা যায়। আর হোরির সারাক্ষণ ভাবলেশহীন মুখ নতুন রহস্যের জন্ম দেয়।

গল্পটা যেহেতু চরিত্রভিত্তিক, তাই এর প্রতিটি চরিত্রকে অনেক ম্যাচিউরিটির সাথে হ্যান্ডেল করা হয়েছে। সাধারণত সাইকোলজিক্যাল মাঙ্গাগুলোতে কিছু চরিত্র অসহ্য রকমের বিরক্তিকর কাজ কর্ম করে থাকে, যেন মূল চরিত্রের কষ্ট বাড়িয়ে দেয়াই তাদের একমাত্র কাজ। সেসব চরিত্রগুলোকে তখন চরিত্র মনে হয় না, মনে হয় ক্যারিকেচার। আর মূল চরিত্রের স্ট্রাগল দেখে দেখে ব্যাপারটা আনরিয়েলিস্টিক পর্যায়ে চলে যায়। আন্ডারকারেন্ট মাঙ্গা তে সেসব পাবেন না। বরং তাদের কথা আর নিরবতার প্যানেলগুলোতে খেয়াল করলেই অনেক ইতিহাস ভেসে আসে। আর একেকটা চ্যাপ্টারে বেশ কিছু থিম দেখতে পাওয়া যাবে – মমতা, ক্ষমা, অপরাধবোধ, অতীত আর মানুষকে বুঝতে না পারা।

মাঙ্গাটা সম্পর্কে এখন আর কিছু বলতে চাচ্ছি না। তার চেয়ে মাত্র ১১ চ্যাপ্টারের এই ছোট্ট মাঙ্গাটা পড়ে ফেলুন। অনেকটা ২০০০ এর দিকের টেলিফিল্মের মত লাগবে। মাঙ্গাটা বেরও হয়েছে ২০০৪-২০০৫ সালে। মাঙ্গার সমাপ্তিটা আমাকে অবাক করেছে। শুধু এটুকু বলবো, কিছু প্রশ্নের উত্তর জীবনে কখনো সোজাসুজি পাওয়া যায় না। আবার অনেক কিছুর অর্থ খুঁজতে সারা জগতও পাড়ি দিতে হয় না। অন্তঃপ্রবাহে আছে সব কিছুর মানে, কিন্তু সেই মানেটা বেশ তিক্তমধুর।

মাঙ্গাঃ Undercurrent, アンダーカレント
জনরাঃ Slice of life, seinen
মাঙ্গাকাঃ Tetsuya Toyoda
চ্যাপ্টারঃ ১১
স্ট্যাটাসঃ Completed
MAL স্কোরঃ ৭.৫৪
পার্সোনাল রেটিং: পড়ে ভালো লাগবে।
ইন্সার্ট সং: Down Town Boogie Woogie Band- The Traitor’s Journey:

https://youtu.be/kZB_psHZljM

By Hedeki Saijo:

https://youtu.be/rSM7xF8zhMU

Chara – Duca:

https://youtu.be/RnS8tPJmKtg

চরিত্র বিশ্লেষন এবং উৎস অনুসন্ধান – ৬ — কেইরন ও অ্যাকিলিস (ফেইট/অ্যাপোক্রিফা) — Shifat Mohiuddin

আচ্ছা, এবার আমি দুটো চরিত্রকে একসাথে উঠিয়ে আনতে চাচ্ছি লেখাতে। চরিত্র দুটোই গ্রীক মিথের অন্তর্ভুক্ত। ফেইট/অ্যাপোক্রিফা যেহেতু এখন খুব হাইপড মোমেন্টে আছে তাই ভাবলাম এখনই সময় দুইজনকে নিয়ে আলোচনা করার।

প্রতিটি ফেইট সিরিজেই একজন আরেকজনের সাথে পূর্ব পরিচিত এমন একাধিক সারভেন্টের দেখা পাওয়া যায়। ফেইট জিরোতে ছিল আর্থুরিয়া-ল্যান্সেলট, স্টে নাইট আর UBW তে ছিল গিলগামেশ-আর্থুরিয়া। অ্যাপোক্রিফাতেও এর ব্যতিক্রম হল না। হ্যাঁ, আজকের পোস্ট পূর্ব পরিচিত গুরু-শিষ্য যুগল কেইরন আর অ্যাকিলিসকে নিয়ে। দুইজনের কাহিনীই গ্রীক সাহিত্যের একটা বড় অংশ জুড়ে আছে। দুইজনই দেবতাদের আশীর্বাদপুষ্ট ছিলেন, যুগে যুগে তাদের নিয়ে অসংখ্য কাব্য, নাটক ও চিত্রকর্ম রচিত হয়েছে। আধুনিক সাহিত্য ও অন্যান্য শিল্পকর্মেও তাদের নিয়মিত আবির্ভাব দেখা যায়। যেহেতু মিথ এবং এনিমে দুই জায়গাতেই তারা খুব ডিপলি কানেক্টেড তাই এক পোস্টেই তাদের অতীত নিয়ে আলোচনা করবো।

শুরুর আগে বলে রাখি, কেইরন আর অ্যাকিলিস দুজনই সম্পূর্ণ মিথিকাল চরিত্র। তাদের ঐতিহাসিক সত্যতা নেই বললেই চলে। কেইরন তো মানুষ নন তাই তার অস্তিত্ব থাকার প্রশ্নই উঠে না। অ্যাকিলিসও কাল্পনিক চরিত্র তবে ট্রয় যুদ্ধের ঐতিহাসিক প্রমাণাদি থাকায় অ্যাকিলিসের মত বড় কোন বীরের অস্তিত্ব থাকার বিষয়টি পুরোপুরি উড়িয়ে দেওয়া যায় না। ধারণা করা হয় একাধিক বীরের বীরত্বগাথা যোগ করে গ্রীক কবিরা অ্যাকিলিসের গুণকীর্তন করেছেন।

Fate Apo Chiron Achilles 1

চরিত্র: কেইরন (Chiron)
এনিমে: Fate/Apocrypha 
ভূমিকা: মধ্যমপন্থী
জাতীয়তা: ? (পেলিয়ন নামক এক পর্বতে বাস করতেন)
জন্মস্থান: জানা যায় নি
জন্ম ও মৃত্যুসাল: জানা যায় নি

চরিত্র: অ্যাকিলিস (Achilles)
এনিমে: Fate/Apocrypha 
ভূমিকা: মধ্যমপন্থী
জাতীয়তা: গ্রীক (থেসেলিয়ান)
জন্মস্থান: থেসেলি, গ্রীস
জন্ম ও মৃত্যুসাল: জানা যায় নি

যেহেতু শিক্ষক তাই কেইরনকে দিয়েই শুরু করি। সবাই জানি কেইরন মানুষ নন, তিনি একজন সেন্টর। সেন্টররা এক ধরণের পৌরাণিক প্রাণী যাদের শরীরের অর্ধেক ঘোড়া আর অর্ধেক মানুষের মতন। সেন্টররা মারাত্মক অশিক্ষিত, উশৃঙ্খল, মদ্যপ, ধর্ষকামী জাতি হিসেবে পরিচিত ছিল। কিন্তু কেইরন অন্যান্য সেন্টরদের চেয়ে আলাদা ছিলেন। এর কারণ জানতে চাইলে সেন্টরদের উৎপত্তি নিয়ে আলোচনা করতে হবে।

সেন্টরদের জন্ম হয়েছিল খুব অদ্ভুতভাবে। ইক্সিওন নামের একজন রাজা একবার দেবী হেরার (জিউসের স্ত্রী) প্রতি খুব প্রলুব্ধ হয়ে পড়েছিল। জিউস তাই ইক্সিওনের সাথে একটু কৌতুক করে বলা যায়। জিউস ধুলা আর মেঘের সমন্বয়ে হেরার মত দেখতে একটি আকৃতি তৈরি করে। ইক্সিওনের সাথে এই আকৃতির মিলনের ফলে যেসব প্রাণীর জন্ম হয় তাদের শরীরের নিচের অংশ ঘোড়ার মত আর উপরের অংশ মানুষের মত ছিল। এদের বংশধরেরাই পরে সেন্টর নামে পরিচিতি লাভ করে।

কেইরনের জন্ম এসব সেন্টরদের মত হয় নি। আসলে সেন্টরদের জন্মের অনেক আগেই কেইরনের জন্ম হয়েছিল। টাইটানদের শাসক ক্রোনোস (জিউসের বাবা) একবার ফিলাইয়া নামের এক মৎসকন্যার সাথে ঘোড়ার রূপ ধরে জোর করে মিলিত হন। (এইসব অস্বাভাবিক সম্পর্ক গ্রীক মিথে স্বাভাবিকই বলা যায়!) ফিলাইয়ার গর্ভেই কেইরনের জন্ম হয়। আর কেইরনের দেহের নিম্নাংশের আকার হয় ঘোড়ার মত। টাইটানের ঔরসে জন্ম নেওয়ায় কেইরনের বুদ্ধিমত্তা উচ্চপর্যায়ের ছিল। গ্রীক মিথে খুব কম সংখ্যক বুদ্ধিমান সেন্টরের অস্তিত্ব পাওয়া যায় আর কেইরন ছিলেন তাদের মধ্যে সর্বাধিক বুদ্ধিমান। কেইরনের দৈহিক আকৃতিও অন্য সেন্টরদের চেয়ে ভিন্ন ছিল। বিভিন্ন চিত্রকর্মে দেখা যায় যে, কেইরনের সামনের পা দুটো মানুষের যেখানে অন্য সেন্টরদের চারপাই ঘোড়ার মত ছিল।

কেইরনের শৈশব-কৈশোর সম্পর্কে বেশি কিছু জানা যায় নি। শৈশবে অ্যাপোলো ও আর্টেমিসের সঙ্গ কেইরনের শান্তিপ্রিয় ও যৌক্তিক চরিত্র গড়ে তোলার পেছনে ভূমিকা রাখে। কেইরন সেন্টর-মানুষ উভয়ের কাছেই শ্রদ্ধার পাত্র ছিলেন। সেন্টরদের সাথেই তিনি বসবাস করতেন এবং মাউন্ট পেলিয়নে তিনি অন্য অসভ্য সেন্টরদের সাথে বিতাড়িত হয়ে আসেন। কেইরন অন্য সেন্টরদের সভ্য করার চেষ্টা চালাতেন। বর্ষীয়ান হওয়ায় মানুষের সাথে কেইরনের পরিচয় কিভাবে হয়েছিল তা জানা যায় না। কয়েক পুরুষ ধরে অসংখ্য বীর কেইরনের শিষ্যত্ব গ্রহণ করেছে তাই তার বয়স ও কালও আন্দাজ করা যায় না।

একজন দক্ষ সমরবিদ, জ্যোতিষী ও চিকিৎসক হলেও কেইরনের মূল পরিচিতি ছিল শিক্ষক হিসেবে। অসংখ্য মানুষ তার কাছে যুদ্ধবিদ্যার শিক্ষা নিয়েছিল। পার্সিয়াস, থিসিয়াস, ইনিয়াস, অ্যাজাক্স, জ্যাসন (স্টে নাইটের মিডিয়ার স্বামী), হেরাক্লস (হারকিউলিস), অ্যাকতিওন সহ অনেক বড় বড় বীর কেইরনের নিজের হাতে গড়া। এছাড়া উদ্ভিদবিজ্ঞান ও চিকিৎসাশাস্ত্রের একজন আদি পথপ্রদর্শক হিসেবে কেইরনকে কৃতিত্ব দেয়া হয়।

Fate Apo Chiron Achilles 2

অ্যাকিলিসের কাছে আসা যাক। এই শিক্ষকতার সুবাদে অ্যাকিলিসের সাথে কেইরনের পরিচয়ের সূত্রপাত ঘটে। অ্যাকিলিসকে চেনে না এমন কেউ গ্রুপে মনে হয় না আছে। ট্রয় সিনেমার ব্র‍্যাড পিটের দুর্দান্ত অভিনয় কে ভুলতে পেরেছে! অ্যাকিলিসকে সহজেই গ্রীক মিথের সবচেয়ে জনপ্রিয় বীর বলা যায়। অ্যাকিলিসের মত সুদক্ষ যোদ্ধা, বক্তা ও নেতা কমই আছে গ্রীক সাহিত্যে। শৌর্য-বীর্যে অ্যাকিলিস অনন্য আর সবচেয়ে সুদর্শন বীর হিসেবেও অ্যাকিলিস স্বীকৃত। এনিমেতে অ্যাকিলিসের বিশৌনেন হওয়াটা তাই খুবই যৌক্তিক। এখন অ্যাকিলিসকে নিয়ে কিছুক্ষণ আলোচনা করা যাক।

অ্যাকিলিসের জন্ম থেসেলিতে, তার পিতার নাম পেলেয়ুস, মাতার নাম থেটিস। অ্যাকিলিসের জন্ম নিয়ে বিশাল একটা কাহিনী আছে। সংক্ষেপে বর্ণনা করছি:

অ্যাকিলিসের মা থেটিস ছিল একজন সমুদ্রদেবী। প্রধান দুই দেবতা জিউস আর পোসাইডন দুজনেই থেটিসের পাণিপ্রার্থী ছিল। কিন্তু ভবিষ্যৎবাণী আসে যে থেটিসের গর্ভে জন্মানো সন্তান তার পিতার চেয়েও শক্তিশালী হবে। তাই ক্ষমতা হারানোর ভয়ে দুজনেই পিছিয়ে আসে। থেসেলির শাসক বীর পেলেয়ুসের সাথে থেটিসের বিয়ে ঠিক করা হয়। বলা যায় এই বিয়েতে ঘটিকালির কাজটা কেইরনই করেন। এখানেও একটা বিশাল কাহিনী আছে তবে সেটা অন্যদিনের জন্য তোলা থাকুক। তো এভাবে জন্মের আগেই অ্যাকিলিসের সাথে কেইরনের একটা সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়।

বিখ্যাত ‘অ্যাকিলিস হিল’ প্রসঙ্গে আসা যাক। মানুষ হওয়ার পরও অ্যাকিলিস প্রায় অমর ছিলেন, শুধুমাত্র বাম পায়ের গোড়ালিই তার একমাত্র মরণশীল জায়গা ছিল। ‘অ্যাকিলিস হিল’ তৈরি হওয়া নিয়ে দুটো কাহিনী প্রচলিত:

১। থেটিস সমুদ্রদেবী হওয়ায় পাতালের নদী স্টিক্সের অবস্থান জানতেন। শিশু অ্যাকিলিসকে তিনি সেই নদীর পানিতে গোসল করাতেন নিয়মিত। শিশু অ্যাকিলিসকে বাম পায়ে ধরে উল্টো করে স্টিক্সের পানিতে ডোবানো হত। ফলে অ্যাকিলিসের সারা দেহই অমর হয়ে যায়। পায়ের গোড়ালি হাতে ধরা থাকতো বলে সেই স্থানে পানি লাগে নি। এ কারণেই বাম পায়ের গোড়ালিই অ্যাকিলিসের একমাত্র দুর্বল জায়গা ছিল। এই কাহিনীটিই সবচেয়ে জনপ্রিয়।

Fate Apo Chiron Achilles 4
থেটিস শিশু অ্যাকিলিসকে স্টিক্স নদীতে স্নান করাচ্ছেন

২। অন্য আরেকটি কাহিনী অনুসারে থেটিস নিজ পুত্রের সারাদেহ অ্যামব্রোসিয়া (দেবতাদের খাদ্য- সহজ ভাষায় অমৃত) দ্বারা আবৃত করে অ্যাকিলিসের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন। এর ফলে অ্যাকিলিসের ভেতরের মরণশীল অংশ পুড়ে যায়। পেলেয়ুস এই ঘটনা দেখতে পেরে নিজ স্ত্রীকে বাঁধা দেন। অ্যাকিলিসের বাম পা শুধুমাত্র আগুনের স্পর্শ পায় নি তাই এই জায়গাটাই তার একমাত্র মরণশীল জায়গা হিসেবে রয়ে যায়। পেলেয়ুস বাঁধা দেওয়ায় থেটিস ক্রোধান্বিত হয়ে পরিবার ত্যাগ করেন এবং সমুদ্রে চলে যান।

‘অ্যাকিলিস হিল’ প্রবাদটি দিয়ে এখন কোন শক্তিশালী জিনিসের দুর্বল জায়গাকে ইঙ্গিত করা হয়।

কেইরনের কাছে অ্যাকিলিসের শিক্ষা গ্রহণের প্রসঙ্গে আসা যাক। হোমারের ‘ইলিয়াডে’ এ প্রসঙ্গে কোন তথ্য নেই। কবি Statius এর কাব্য ‘অ্যাকিলিডে’ এ সম্পর্কে বিস্তারিত বিবরণ আছে।

অ্যাকিলিসের পিতা পেলেয়ুস নিজেই কেইরনের ছাত্র ছিলেন। থেটিস চলে যাওয়ার পর পেলেয়ুস নিজের ছেলেকে সঠিক শিক্ষা দেওয়ার জন্য কেইরনের কাছে নিয়ে আসেন। কেইরনের কাছে অ্যাকিলিস নয় বছর অধ্যয়ন করেন। কেইরন অ্যাকিলিসকে তলোয়ারবিদ্যা, রথচালনা, বর্শাচালনা, তীরন্দাজি সহ যুদ্ধবিদ্যার সকল শাখায় পারদর্শী করে তোলেন। হিলিং মেডিসিনেও অ্যাকিলিস তার কাছ থেকে বিশেষ জ্ঞান লাভ করেন যা ট্রোজান যুদ্ধে কাজে এসেছিল। শরীর সম্পর্কিত এসব বিদ্যা ছাড়াও সুস্থ মানসিকতা তৈরির শিক্ষাও তিনি কেইরনের কাছে পান। অ্যাকিলিসের ভাষ্যে,

“তিনিই আমাকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন ন্যায়ের ধারণার সাথে।” (অ্যাকিলিড- 2.163-4).

কেইরনের সামনে পেলেয়ুস, কোলে শিশু অ্যাকিলিস
কেইরনের সামনে পেলেয়ুস, কোলে শিশু অ্যাকিলিস

এইসব শিক্ষা কোন আরামদায়ক উপায়ে আসে নি। কেইরন অ্যাকিলিসকে সিংহের নাঁড়িভুঁড়ি, স্ত্রী নেকড়ের মজ্জা ও বন্য শুয়োরের মাংস খাওয়াতেন। এই ভয়ানক খাদ্যাভাসের সাথে চলতো কঠোর সাধনা। দয়ালু হলেও বকাঝকার বেলায় কেইরন কোন কার্পণ্য করতেন না। অ্যাকিলিসের ভাষ্যে,

“আমি শক্তভাবে দাঁড়িয়ে ছিলাম কিন্তু নদীর প্রবল স্রোত আর তার ক্রমাগত তাড়া দেওয়ার কারণে আমি নড়বড়ে হয়ে যাচ্ছিলাম। তিনি আমাকে ভয়ানক হুমকি দিলেন এবং বকাঝকা করে ধুয়ে দিলেন। আমি ভয়ে জায়গা ছেড়ে নড়তে পারলাম না।” (অ্যাকিলিড- 2.146-150).

Fate Apo Chiron Achilles 5
কেইরনের কাছে অ্যাকিলিসের তীরন্দাজি শিক্ষা। সাথে শাসনও চলছে সমানে

এইধরণের অম্লমধুর আচরণের কারণে অ্যাকিলিস আর কেইরনের সম্পর্কটা ছাত্র-শিক্ষকের গণ্ডি পেরিয়ে অনেকটা পিতা-পুত্রের মত হয়ে যায়। অ্যাকিলিস কয়েকবার কাব্যে কেইরনকে পিতৃস্থানীয় হিসেবে উল্লেখ করেন। কেইরন যখন অ্যাকিলিসকে মুখে তুলে খাইয়ে দিতেন তখন অ্যাকিলিস তাকে পিতা হিসেবেই মনে করতেন। এক সন্ধ্যায় থেটিস তাকে দেখার জন্য কেইরনের আস্তানায় আসলে অ্যাকিলিস মাকে ছেড়ে কেইরনের উপরেই গুটিসুটি মেরে শুয়ে থাকে। কবির ভাষ্যে:

“রাত গভীর থেকে গভীরতর হয়। দীর্ঘদেহী সেন্টর পাথরের উপর এলিয়ে পড়েন আর ছোট্ট অ্যাকিলিস তার কাঁধে গুটিসুটি মেরে ঘুমিয়ে পড়ে। যদিও তার মা এখানেই আছেন কিন্তু অ্যাকিলিসের কাছে পারিবারিক টানের চেয়ে এটাই বেশী পছন্দনীয়।” (অ্যাকিলিড- 1.195-97).

এখানে কেইরনকেও কোন সেন্টর মনে হচ্ছে না। কেইরনের দেহ পশুর হলেও অন্তরে যে কোন পশুত্ব নেই তা এখান থেকে বোঝা যায়। দয়ালু কেইরন এর এই ভালবাসা অ্যাপোক্রাইফায় কেইরনের মাস্টার ফিয়োরেও পেয়েছে। আমি খুব আবেগান্বিত হয়ে গিয়েছিলাম যখন কেইরন, ফিয়োরের হাতের উল্টোপিঠে চুমু খেয়ে বিদায় নেয়।

কেইরনের পিঠে কিশোর অ্যাকিলিস!
কেইরনের পিঠে কিশোর অ্যাকিলিস!

অ্যাকিলিসে ফেরা যাক। প্রশিক্ষণ শেষে অ্যাকিলিস নিজ রাজ্যে ফিরে আসে। গ্রীসের সবচেয়ে সুন্দরী নারী হেলেনের স্বয়ংবর সভায় অ্যাকিলিসও অংশ নেয়। পরে হেলেন, প্যারিস কর্তৃক ট্রয় নগরীতে অপহৃত হলে অন্যান্য বীরদের মত অ্যাকিলিসও ট্রয় অভিযানে যোগ দেন। যুদ্ধে যাওয়ার পূর্বে মা থেটিস অ্যাকিলিসের সাথে দেখা করেন। থেটিস বলেন যে দেবতার আশীর্বাদে তিনি অ্যাকিলিসের জন্য দুটো গন্তব্য নিয়ে এসেছেন:
১। অ্যাকিলিস কোন যুদ্ধে যোগদান করতে পারবে না। তবে এর বিনিময়ে অ্যাকিলিস একটি দীর্ঘ, সুখী জীবন পাবে।
২। যুদ্ধে যোগদান করলে অ্যাকিলিস অনেক বড় বীর হবে কিন্তু বেশীদিন বাঁচতে পারবে না।

রোমাঞ্চপ্রিয় অ্যাকিলিস দ্বিতীয় জীবনটাই বেছে নেন। ৫০ জাহাজ বোঝাই ২৫০০ সৈনিক নিয়ে অ্যাকিলিস ট্রয় অভিমুখে যাত্রা করেন। অ্যাকিলিসের বাহিনীর সৈন্যদের মিরমিডিয়ন বলা হয়। (মিরমিডিয়নরা আগে পিঁপড়া ছিল)
এরপরের কাহিনী সবার জানা। যুদ্ধের সবচেয়ে আলোচিত চরিত্র ছিল অ্যাকিলিস। ট্রয়ের সবচেয়ে বড় বীর হেক্টরকে পরাজিত করে অ্যাকিলিস। অবশেষে দেবতা অ্যাপোলোর পথনির্দেশনায় কাপুরুষ প্যারিসের তীর আঘাত করে অ্যাকিলিসের বাম পায়ের গোড়ালিতে। অ্যাকিলিস সেখানেই মারা যান। বন্ধু প্যাট্রোক্লাসের ছাইয়ের সাথে তার ছাই মিশিয়ে তাকে সমাধিস্থ করা হয়।

কেইরন, অ্যাকিলিসকে lyre বাজানো শেখাচ্ছেন
কেইরন, অ্যাকিলিসকে lyre বাজানো শেখাচ্ছেন

এনিমেতে অ্যাকিলিসের দুটো নোবেল ফ্যান্টাজম দেখা গেছে। দুটোই কিছুটা রিয়েলিটি মার্বেল ঘরানার। Diatrekhōn Astēr Lonkhē অ্যাকিলিস ব্যবহার করেছিল কেইরনের বিপক্ষের ফাইটে। প্রতিপক্ষের পেছনে বর্শা ছুঁড়ে মেরে এটা অ্যাক্টিভেট করতে হয়। মজার ব্যাপার হল এই বর্শাটা কেইরন তৈরি করে পেলেয়ুসকে দিয়েছিলেন, পেলেয়ুস পরে নিজ পুত্রকে উপহার দেন। বর্শাটি কেইরনের বাসস্থান মাউন্ট পেলিয়নের গাছ থেকে তৈরি।

Akhilleus Kosmos নোবেল ফ্যান্টাজমটা অ্যাস্টোলফো অসাধারণভাবে ব্যবহার করেছিল কর্ণের বিপক্ষে। দুর্দান্ত এই নোবেল ফ্যান্টাজমের পেছনেও একটা কাহিনী আছে। মনে হয় সবাই কাহিনীটা জানেন তারপরও বলি:
ট্রয়ের যুদ্ধের এক পর্যায়ে অ্যাকিলিস যুদ্ধ না করার সিদ্ধান্ত নেয়। ফলে গ্রীক বাহিনী পর্যদুস্ত হয়ে পড়ে। অ্যাকিলিসের বন্ধুবর প্যাট্রোক্লাস তাই অ্যাকিলিসের বর্ম আর ঢাল ধার নিয়ে যুদ্ধে নেমে পড়ে। সবাই ভাবে অ্যাকিলিস নিজেই যুদ্ধে নেমে এসেছে তাই গ্রীক বাহিনী তার হারানো উদ্যম ফিরে পায়। সারাদিন বীরের মত যুদ্ধ করলেও ট্রোজান বীর হেক্টরের হাতে প্যাট্রোক্লাস নিহত হয়। হেক্টর, প্যাট্রোক্লাসের গা থেকে বর্ম আর ঢাল খুলে নিজের কাছে রেখে দেয়।

প্রিয় বন্ধুর মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর অ্যাকিলিস যেন আগ্নেয়গিরি হয়ে উঠে। লৌহশিল্প ও অগ্নির দেবতা হেফাস্টাস, অ্যাকিলিসকে নতুন একটা ঢাল বানিয়ে দেন। এটাই সেই বিখ্যাত ‘অ্যাকিলিস শিল্ড’। ঢালটি অপূর্ব কারুকার্যময় ছিল। হোমার তাঁর ইলিয়াডের আঠারো নাম্বার অধ্যায়ে প্রায় ১০০ শ্লোক ধরে এই ঢালের গায়ে আঁকা কারুকাজের বর্ণনা করেন। ঢালটিতে গ্রীক নগর সভ্যতার একটা মিনিয়েচার আঁকা ছিল। তাই অ্যাকিলিসের নোবেল ফ্যান্টাজমে আমরা একটা গ্রীক সভ্যতার অনুরূপ রিয়েলিটি মার্বেল দেখি। এই জায়গায় হিগাশিদার কল্পনাশক্তির তারিফ করতেই হবে, A-1 পিকচারসও দুর্দান্ত ফ্লুয়িড অ্যানিমেশন ঢেলেছে। ভাসাবি শক্তিকে প্রতিহত করার জায়গাটা চমৎকার ছিল। এইসব ছোটখাটো ডিটেইলের জন্য অ্যাপোক্রাইফার ২২ নম্বর পর্ব স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

শিল্পীর কল্পনায় অ্যাকিলিসের শিল্ড
শিল্পীর কল্পনায় অ্যাকিলিসের শিল্ড

অ্যাকিলিসের একটি মাত্র সন্তানই ছিল। সেই ছেলের নাম ছিল নিওপতেলেমাস। নিওপতেলেমাস পরে ‘অ্যাকিলিস শিল্ডের’ মালিক হয়। ট্রয় যুদ্ধের পরে আগামেমননের ছেলে ওরেস্তেসের হাতে নিওপতেলেমাস নিহত হয়। বাবা-ছেলে দুজনের মৃত্যুই ট্র‍্যাজিক।

গুরু কেইরনের মৃত্যুও আর দশজনের মত হয় নি। টাইটানের ঘরে জন্ম নেওয়ার কারণে কেইরন অমর ছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত নিজের ছাত্র হেরাক্লসের কারণেই কেইরন মারা পড়ে। হেরাক্লস একবার গুরুর আস্তানায় ওয়াইনের বোতল খুললে সেই ওয়াইনের গন্ধে মদ্যপ সেন্টররা ভীষণ গোলমাল শুরু করে। এক পর্যায়ে মারামারি শুরু হয়ে যায় এবং তাদের থামানোর জন্য হেরাক্লস হাইড্রার রক্তমাখা তীর ছুঁড়তে থাকেন। কেইরন তখন কী গোলমাল হল তা দেখার জন্য নিজের আস্তানার দিকে যাচ্ছিলেন। দুর্ভাগ্যবশত একটা রক্তমাখা তীর কেইরনের গায়ে এসে লাগে।

কেইরন যিনি কিনা নিজে ঔষধ নির্মাণে ওস্তাদ, নিজ ব্যথার কোন ঔষধ তৈরি করতে পারছিলেন না। হাইড্রার রক্ত অব্যর্থ বিষ, দেহে স্পর্শ হলেই মৃত্যু নিশ্চিত। অমর হওয়ায় কেইরনের মৃত্যু হচ্ছিল না কিন্তু অসহনীয় যন্ত্রণা ঠিকই পাচ্ছিলেন। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে অবশেষে তিনি নিজের অমরত্ব সরিয়ে নেওয়ার প্রার্থনা জানান দেবতাদের কাছে। তার সৎ ভাই জিউস এই প্রার্থনা মঞ্জুর করেন এবং কেইরনকে আকাশের একটা নক্ষত্রপুঞ্জ বানিয়ে দেন। সেই নক্ষত্রপুঞ্জটিই Sagittarius বা ধনু নামে পরিচিত। দেখলে মনে হয় কোন সেন্টর হাতে তীর-ধনুক তাক করে রেখেছে।

কেইরনের নোবেল ফ্যান্টাজম ‘Antares Snipe’ এর আন্তারেস শব্দটি একটি নক্ষত্রকে নির্দেশ করে। নক্ষত্রটি স্যাজিটেরিয়াসের পাশের স্করপিয়াস নক্ষত্রপুঞ্জে অবস্থিত। স্যাজিটেরিয়াসের দিকে তাকালে মনে হয় এর ডান দিকের শেষ প্রান্ত অর্থাৎ ধনুক সামনের ‘আন্তারেসের’ দিকে তাক করা আছে। এজন্যই কেইরনের নোবেল ফ্যান্টাজম সবসময়ই চালু থাকে।

২১ পর্বে কেইরন আর অ্যাকিলিস নিজেদের মধ্যে যে মার্শাল আর্টসটা চর্চা করেছিল সেটার নাম Pankration. প্যানক্রেইশন সর্বাধিক প্রাচীন মার্শাল আর্ট হিসেবে স্বীকৃত। প্যানক্রেইশনের নির্দিষ্ট কোন নিয়ম ও টাইম লিমিট ছিল না। বক্সিই, রেসলিং, কিকিং, সাবমিশন হোল্ডিং সবকিছুই গ্রহণযোগ্য ছিল, একমাত্র নিষিদ্ধ ছিল প্রতিপক্ষের চোখ খোঁচানো ও কামড়াকামড়ি। লড়াইয়ে অনেক সময়ই অংশগ্রহণকারীদের মৃত্যু হত।

Fate Apo Chiron Achilles 9
প্যানক্রেইশন ম্যাচ

প্রাচীন অলিম্পিকে প্যানক্রেইশন একটা ডিসিপ্লিন হিসেবে ছিল। তবে খ্রিস্টপূর্ব ২০০০ অব্দ থেকেই গ্রীসে প্যানক্রেইশন চর্চা হয়ে আসছে এমন প্রমাণ পাওয়া যায়। স্পার্টান সেনাবাহিনী এবং আলেকজান্ডারের সৈন্যরা প্যানক্রেইশনে দক্ষ ছিল। আলেকজান্ডারের পিতা ফিলিপের প্যানক্রেইশনে অংশ নেয়ার নজির আছে।
মিথলজিতে হেরাক্লস ও থিসিয়াসকে প্যানক্রেইশনের আবিষ্কারক হিসেবে পাওয়া যায়। কেইরনই সম্ভবত ঐ সময়েই প্যানক্রেইশন শেখেন তারপর অ্যাকিলিসকে সেই বিদ্যায় দক্ষ করে তোলেন। আধুনিক যুগে আবার প্যানক্রেইশনের পুনর্জন্ম ঘটেছে। ইউটিউবে বেশ কিছু ভিডিও দেখেছিলাম। নিয়ম-কানুনের কারণে এখন মরণের গন্ধ নেই খেলাটাতে। কেইরন ভার্সাস অ্যাকিলিস পর্যায়ের ভয়ানক গতিময় জিনিসের ছিটেফোঁটাও নেই। তবে এরপরও বেশ উপভোগ্য একটা মিক্সড মার্শাল আর্টস হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে ডিসিপ্লিনটা।
(Now just imagine a pankration match between Iskander and Achilles. Also imagine Iskander performing a submission hold on our lovely Gilgamesh. )

বিশেষ দ্রষ্টব্য: একটা মতবাদ আছে, আলেকজান্ডারের ভারত অভিযানের সময় প্যানক্রেইশন ভারতে প্রবেশ করে। পরে ভারত ঘুরে এই প্যানক্রেইশনই দূরপ্রাচ্যে গিয়ে কুংফু-যুযুৎসুতে পরিণত হয়েছে। কুংফুর প্রচারক বোধিধর্মাকে ‘নীল চোখের দানব’ হিসেবে অভিহিত করা হত। হতে পারে তিনি আলেকজান্ডারের সেনাবাহিনীর লোক ছিলেন, পরে ভারতবর্ষে থেকে যান। (মতবাদটি অতটা শক্তিশালী নয়)

অ্যাকিলিস আর কেইরনের সম্পর্ক প্রাচীন ভারতের গুরু-শিষ্যদের নিয়ে যেসব কিংবদন্তী রয়েছে তার সমতুল্য। ভারতীয় পুরাণে ছাত্রকে শিক্ষকের আস্তানায় অবস্থান নিয়ে দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নানা বিষয়ে দীক্ষিত হতে দেখা যায়। অ্যাকিলিসও সেই প্রক্রিয়া পার হয়ে এসেছে। অ্যাকিলিসের জীবনে কেইরনের ভূমিকা পিতার চেয়ে কোন অংশ কম নয়। এজন্যই অ্যাপোক্রাইফা শুরু হওয়ার পর আমি সবচেয়ে বেশী হাইপড ছিলাম এই দুইজনকে নিয়ে। অ্যাকিলিস জানতো যে ব্ল্যাক ফ্যাকশনের কেউ তাকে ঠেকাতে পারবে না। আর্চার অফ ব্ল্যাকের পরিচয় জানার পর অ্যাকিলিসের সেই আত্মবিশ্বাস অনেক কমে যায়। কারণ অ্যাকিলিসের সকল কৌশল কেইরনের চেয়ে ভাল কেউ জানে না। কেইরনও নিজ শিষ্যের উন্নতি কেমন হয়েছে তা দেখার জন্য মুখিয়ে ছিলেন। অ্যাকিলিস নিজের যুদ্ধলব্ধ বিদ্যা দিয়ে কেইরনকে হতাশ করে নি। পরাজিত হয়ে কেইরন নিজেই আসলে জয়ী হলেন। এই জয় মহান শিক্ষকব্রতের জয়। এনিমের একটা বড় অংশে দুইজনের দ্বন্দ্বকে একটুও ফোকাস করা হয় নি, তবে সব পুষিয়ে দিয়েছে একটা পর্বই। ইডিওলজিকাল কোন ক্ল্যাশ না থাকার পরও শুধুমাত্র দুর্দান্ত একটা অতীতের জোরে দুজনের মধ্যের লড়াইটা চমৎকারিত্ব পেয়েছে। অ্যাকিলিস ‘গুরু মারা বিদ্যা’ প্র‍য়োগ করলেও আন্তারেস স্নাইপের মাধ্যমে কেইরন দেখিয়ে দিলেন যে ‘ওস্তাদের মার শেষ রাতে”। 

রেফারেন্স:

  • britannica.com
  • greekmythology.com
  • history.com
  • Percy Jackson and Greek Gods- Rick Riordan
  • গ্রীক বীরদের আখ্যান- রজার ল্যান্সেলিন গ্রীন
  • মিথলজি- এডিথ হ্যামিল্টন
  • Wikipedia

Lovely Complex [সাজেশন] — Ahmed Fahmida Mou

Lovely Complex

এনিমেঃ Lovely Complex 
হাইস্কুল রোমান্টিক কমেডি
.
শিরোনাম আকর্ষণীয় না হলে সচারচর আমি সেসব দেখিনা বা পড়িনা।
স্বাভাবিকভাবেই এই আনিমুর টাইটেলও একদম ভাল্লাগেনাই  এক পিচ্চি জোরাজুরি না করলে এই চুইট আনিমুটা দেখাই হতোনা।

প্রথম দেখায় যেটা বলা যায়, এনিমেটা একেবারেই সিম্পল।
কিন্তু কোনো এক অজ্ঞাত কারণে,
এই বিশেষত্বহীন এনিমেটা দারুন ভালো লেগেছে।
এইখানে তেমন কোনো প্লট টুইস্ট নাই ,তাই হালকাভাবে আমি গল্পটা বলছি।

তিন বান্ধবী যার মাঝে দুজনেরই বয়ফ্রেন্ড আছে। নাই একমাত্র কোয়াইজুমি রিসা’র।
কেনো??
কারণ রিসার স্বাভাবিকের তুলনায় হাইট অনেক। সঠিক উচ্চতার কোনো বয়ফ্রেন্ড হয়না তার।
কিন্তু রিসা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ যেভাবেই হোক হাইস্কুল শেষ করবার আগে সে বয়ফ্রেন্ড অর্জন করবেই! 
এদিকে ওদের ক্লাসমেট (বন্ধুও বলা যায়) ওতানি ছেলেদের স্বাভাবিক হাইটের চেয়ে ছোটো।
তাই বেচারাকে নানান অকওয়ার্ড পরিস্থিতিতে পড়তে হয় এবং যার একটা কোনো গার্লফ্রেন্ড জোটেনা 
ওতানি আর রিসাকে ক্লাসের সবাই কমেডি-ডুয়ো বলে কারণ যখনই দেখা যায় ওরা মারামারি, জগড়াঝাটিই করতেসে, পুরা উত্তরমেরু আর দক্ষিণমেরু ধরণের!
এইরকম এক পর্যায়ে দুজনে চুক্তি করে যে,
রিসা একটা বয়ফ্রেন্ড আর ওতানি একটা গার্লফ্রেন্ড জোগাড় করবে।
যে আগে সফল হবে সে অপরজনকে ট্রিট দিবে।
এইভাবে খুনসুঁটির মাঝে রিসা অযৌক্তিকভাবে ওতানির প্রেমেই পড়ে যায়!
আর বুঝতেই পারছেন,
(১৭০cm এর মেয়ের বয়ফ্রেন্ড ১৫৪cm এর এক ছেলে) এই সম্পর্কের ডিজাস্টার কল্পনা করে বেচারি একদম মিইয়ে যায়!
কিন্তু তার বাকি দুই বান্ধবী এটা জেনে উল্টা প্রচন্ড খুশি হয় এবং দুই বান্ধবী ও তাদের দুজনের বয়ফ্রেন্ড সহ ৪জনে মিলে ওতানি আর রিসাকে মিলাবার মিশন-ইম্পসিবল এর দায়িত্ব নেয়।
.
এখানে একটা ডায়লগ দেই,
রিসা যখন উপলব্ধি করে ওতানির প্রেমে পড়সে তারপর একদিন ক্লাসের সবার হাইট মাপা হলে দেখা যায় রিসা আরো ২cm বেড়ে গেসে (আর ওতানি বাড়সে 2mm ) তাই দেখে ওর বান্ধবীরা বলে
:This is no time for growing taller Risa!! 
: Am I doing it on purpose!!! 
.
প্রথম দিকে থাকে শুধু কমেডি মাঝে এসে কমেডি-ট্র‍্যাজেডি আর শেষে রোমান্টিক , এই নিয়ে ২৪ পর্বের সাদামাটা কিন্তু ভীন্নধর্মী থিমে দারুনভাবে গড়ে ওঠা এনিমেটা ভাল্লাগবে আপনারও 
কমেডিতে জোর করে কাতুকুতু দিয়ে হাসানোর চেষ্টা নাই। কমেডিগুলা পিউর।
বাস্তবতার সাথে মিল রেখে বানানো এনিমেটা অনায়াসেই পছন্দের তালিকায় জায়গা পেয়ে গেছে।
.
[বিঃদ্রঃ
এইটা দেখার পর মনে হইসে “গোল্ডেন টাইম” নামটা এই এনিমের হওয়া উচিৎ
আর
“লাভলি কমপ্লেক্স” নামটা অই গোল্ডেন-টাইম (পছন্ডো ফালতু একটা এনিমে) এর নাম হওয়া উচিৎ ছিলো ]