Run with the Wind [রিভিউ] — Towhid Chowdhury Faiaz

Run with the Wind 1
তখন হয়তবা ক্লাস সেভেন নাকি এইটে পড়ি, ভোরবেলায় খালি রাস্তায় শহর যখন ঘুমিয়ে থাকে তখন কানে ইয়ারফোন দিয়ে খালি পথে দিব্যি দৌড়িয়ে যাওয়া অনেক প্রিয় ছিলো। দৌড়িয়ে যাবার সময় বাতাস নিজের পাশ দিয়ে যাচ্ছে তখন যেই অনুভূতিটা আসে তা আসলেই খুব বিশেষ ধরণের। Run with The Wind এনিমেটা দেখে আবার স্মৃতিগুলো মনে পড়লো।
এনিমের কাহিনীটা হাকোনে একিদান প্রতিযোগিতামূলক ম্যারাথনের উপর। প্রতিটি ভালো স্পোর্টস এনিমের মতো এখানেও এটা দৌড়ের প্রতিযোগিতা নিয়ে যতটুকু তার চেয়ে বেশি এর চরিত্রদের নিয়ে বিশেষ করে হকোনের কষ্টসাধ্য পথে ঝড় হোক কিংবা বৃষ্টি হোক সেই ২১৭.৯ কিলোমিটার পথে দৌড়িয়ে যাওয়ার পিছে তাদের প্রত্যেকের নিজেদের প্রেরণা নিয়ে। এনিমেটা শুরু হয় মুল চরিত্র হাইজি তার ডর্মের সবাইকে ব্লেকমেইল করে হাকোনে দলগত ম্যারাথনে অংশগ্রহণের জন্য। যে যতই অনিচ্ছুক হোক, একে একে সবাই শেষমেশ রাজি হয় অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও। সবচেয়ে চমৎকার বিষয়টি হচ্ছে সিরিজ শেষে যখন সবাই হাকোনের রেইসে অংশগ্রহণ করে ততদিনে সবার জন্যই ওখানে দৌড়ানোর প্রেরণা ভিন্ন। কারো জন্য তা হাইস্কুলের অনুশোচনা মেটানো আবার কারো জন্য এটা নতুন এক পথ খোঁজার প্রচেষ্টা। সিরিজটার সাউন্ডট্র্যাক বিশেষ করে প্রতিটি বিশেষ মুহূর্তকে আরো স্মরণীয় করে রাখে। গতকাল থেকে সারাদিন “We Must Go” আর “Mutual” বার বার শুনছি।
সিরিজটার একটা হতাশার বিষয় হচ্ছে সাকাকি কউস্কে চরিত্রটি। এই সিরিজে সে নতুন ট্রান্সফার স্টুডেন্ট কাকেরুর পুরনো ট্র্যাকটিমের একজন সদস্য। দুঃখজনক ভাবে তার চমৎকার এক বেকস্টোরি এবং কুরাহারার প্রতি তার বিতৃষ্ণা থাকার এতো চমৎকার কারণ থাকা সত্ত্বেও তাকে যাচ্ছেতাই ভাবে ব্যাবহার করা হয়েছে এই সিরিজে। এটাই সম্ভবত পিং পং এর মতো এনিমের সাথে রান ইউথ দ্যা ইউন্ডের মতো এনিমের মধ্যে সবচেয়ে বড় পার্থক্য। সাকাকি যদি পিং পং এনিমেশনে থাকতো তাইলে সে নিঃসন্দেহে সিরিজের সেরা চরিত্রগুলোর মধ্যে থাকতো। ভালো বেকস্টোরি, জাস্টিফাইড মোটিভেশন সবই ছিলো কিন্তু রান ইউথ দ্যা ইউন্ড তাকে কেবল গতানুগতিক এক সস্তা পার্শ্ব-চরিত্র হিসেবেই ব্যাবহার করেছে।
সিরিজটা যদিও কোনো কিছু একদম নতুন নিয়ে এসেনি স্পোর্টস জন্রার এনিমের জন্য তাও এর গল্পবলার মৌলিক জিনিসগুলো এতো চমৎকার ভাবে দেখিয়েছে যে অন্যকিছুর প্রয়োজন হয়নি। হ্যাঁ সাকাকি কিংবা ফুজিয়ামার মতো পার্শ্ব-চরিত্র গুলো আরো সময় পেলে প্রতিযোগিতাটা আরো ভালো লাগতো কিন্তু তাও এই সিরিজ যা দিয়েছে তা কোনক্ষেত্রে কম নয়। হয়তবা এটা মাসাকি ইয়ুয়াসার পিং পং দ্যা এনিমেশনের মতো টপ টিয়ার লেভেলের না কিন্তু ছুটির দিনে ল্যাপটপটা ছেড়ে একদিন দেখতে বসলে দেখবেন আপনি বোঝার আগেই এনিমেটার এই উদ্ভট সব চরিত্রগুলোর সাথে জড়িয়ে যাবেন। ২৩ পর্বের সময় যেনো নিমিষেই ফুরিয়ে যাবে।
Run with the Wind 2

Gankutsuou: The Count of Monte Cristo [রিভিউ] — Siam Maksud

Gankutsuou 1

Gankutsuou: The Count of Monte Cristo

Episodes: 24
Genre: Sci-fi(!)
MAL Rating: 8.4

আলেকজান্ডার দ্যুমার “দ্যা কাউন্ট অফ মন্টে ক্রিস্টো” বইটি হয়ত অনেকের পড়া। পড়ে না থাকলে বলব কপাল অনেক ভাল। পুরোপুরি এঞ্জয় করতে পারবেন এনিমেটি। বইটির প্লটকেই স্কেলেটন ধরেই এগিয়ে গেছে গল্প। একজন দুর্ভাগা মানুষের চূড়ান্ত প্রতিশোধের গল্পই এটা। এখন জনরায় সাই ফাই দেখে অনেকের চোখ কপালে উঠতেই পারে। ১৮০০ সালের প্লটকে রূপ দেয়া হয়েছে ৫০৫৩ সালের মহাকাশে বিস্তৃত সভ্যতার গল্পে। এখানেই জাদু-কোনো আবেদনই কমেনি তাতে, বরং বেড়েছে।

অল্প কথায় প্লট বলতে গেলে, ৫০৫৩ সালে পৃথিবীর বাইরে লুনায় (সম্ভবত আমাদের চাঁদই) বেড়াতে যায় ফরাসী এরিস্টোক্র‍্যাট ফ্রাঞ্জ ও তার বন্ধু আলবার্ট। তাদের পরিচয় হয় অদ্ভূত রহস্যময় চরিত্রের লর্ড কাউন্ট অফ মন্টে ক্রিস্টোর সাথে। সে পরিচয়ের জের ধরেই প্যারিসে আসেন তিনি। সম্ভ্রান্ত ফরাসী সমাজের অনেক উচ্চমহলে জায়গা করে নেন তিনি। ধীরে ধীরে বুনতে থাকেন বিশাল এক জাল । এরপর বললে স্পয়লার হয়ে যাবে।

এনিমেটির সবচেয়ে সুন্দর দুটি বস্তু হচ্ছে ভিজুয়াল আর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক। এত কালারফুল সাররিয়েল আর্টস্টাইল, আভিজাত্য আর প্রযুক্তির এত সুন্দর মিশেল আমি অন্য কোনো এনিমেতে পাইনি। দেখতে দেখতে কিছুক্ষণের জন্য ধুলোমাখা আর ধূসর পৃথিবী থেকে দূরে চলে যাওয়া যায়। কাহিনীবিন্যাস বেশ ভাল। যদিও শেষের দিকে এসে কয়েক এপিসোড বেশি টানা হয়ে গেছে লাগে৷ কিন্তু শেষটা বেশ সুন্দর আর ভাল লাগার মতো৷ রাজনীতি, মানুষের অভ্যন্তরীণ লোভ, আভিজাত্যের মুখোশে ঢাকা পরা পাপ, বন্ধুত্ব আর বিশ্বাসঘাতকতার এক অনিন্দ্যসুন্দর মিশেল পাওয়া যায় এতে।

যারা এনিমেতে ম্যাচিউরড গল্প খোঁজে আর ভালবাসে ভিন্ন ঘরানার ভিজুয়াল, তাদের জন্য মাস্টওয়াচ।

বিঃদ্রঃ হাই রেজ্যুলিউশনে দেখার অনুরোধ করব।

Gankutsuou 2