অ্যানিমে রিভিউঃ বারটেন্ডার; লিখেছেন ইশমাম আনিকা

lunar-bartender-01-x2641280x7201639e648-mkv_snapshot_04-25_2011-03-19_02-30-54

আজ দেখে শেষ করলাম “বারটেন্ডার”। রাফিউলের ভাষায় বলি, “বাউরে বাউ, কি যে দেখলাম এইটা!!” হার্ড লিকারের উপর কেউ পিএইচডি করতে চাইলে এই অ্যানিমে দেখা আবশ্যক!!

সাসাকুরা রিউ একজন বারটেন্ডার। টোকিও শহরের গিনজা নামক এলাকায় অবস্থিত তার বার, “এডেন হল।” রিউ অত্যন্ত দক্ষ একজন বারটেন্ডার, যে কারণে তার তৈরি করা ককটেলকে বলা হয় “গ্লাস অফ গড”। প্রতিদিন বিভিন্ন ক্যারেক্টারিস্টিকের এবং ভিন্ন ভিন্ন সোশ্যাল স্ট্যাটাসের মানুষ আসে বারে, আর এক গ্লাস ককটেলের সাথে উঠে আসে তাদের সুখ-দুঃখের গল্প। সাসাকুরা রিউ নৈপুণ্যের সাথে ককটেলের গ্লাসে ফুটিয়ে তোলে তার শিল্পকর্ম, আর সেইসাথে এর সাথে সম্পর্কিত একেকটি অদ্ভুত গল্প দিয়ে মুগ্ধ করে অতিথিকে, কারণ, একজন বারটেন্ডারের যে দায়িত্ব এটা, অতিথি যেন যাওয়ার সময় একটি সুন্দর সময়ের স্মৃতি সাথে করে নিয়ে যান।

অ্যানিমের কাহিনী এপিসোডিক, প্রতিটা পর্বে বিভিন্ন ধরণের ককটেল আর তার সৃষ্টির ইতিহাস বেশ ইন্টারেস্টিংভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। সাসাকুরা রিউ যখন ককটেলগুলো বানায়, ঐ দৃশ্যটা বেশ অ্যামেজিং। আর প্রতিটা মানুষের মনের ভেতরের কথা সে যেভাবে টেনে বের করে আনে, এটাও ইন্টারেস্টিং।

অ্যানিমেটার আর্টওয়ার্ক অনেক ভাল, সঙ্গত কারণেই “ডেথ প্যারেড” এর কথা বারবার মনে পড়ছিল। ক্যারেক্টার ডিজাইন চমৎকার, আর ওএসটিও বেশ ভাল। এন্ডিং সংটা একবারও স্কিপ করতে পারিনি।

সবমিলিয়ে খুবই এক্সেপশনাল এবং ইন্টারেস্টিং একটি অ্যানিমে এটি, ১১ টা এপিসোড বেশ উপভোগ করেছি।

12022554_555071621324015_3926291896555078707_o

নোরাগামি- (Anime Suggestion)- by Torsha Fariha

দেখছি নোরাগামি নামের একটা অ্যানিমে।
জানরা- ফ্যান্টাসি, কমেডি, সুপারন্যাচারাল, রোমান্স।

এপিসোড নং- ১২ (বুঝতেই পারতেসেন মাঙ্গাতে কাহিনী আরো আছে  )

আমরা হয়তো জানি জাপানের অনেক রকম গড আছে। তাদের নিজস্ব শ্রাইন আছে যেখানে মানুষ জন কিছু পয়সা ফেলে নিজের উইশ প্রার্থনা করে।
তেমনি এক গডের নাম ইয়াতো যাকে সবাই ভুলে গেছে… যার নিজস্ব ভক্ত নেই, শ্রাইনও নেই। অবশ্য সে কাচের জারে টাকা জমাচ্ছে একদিন নিজের শ্রাইন বানাবে বলে  

এখন কথা টাকা কোথা থেকে পাচ্ছে সে?
সে বিভিন্ন জায়গায় সে স্প্রে দিতে লিখে আসে তার নাম, ফোন নাম্বার এবং বলা থাকে সে সব ধরনের কাজে আছে, বাথরুম ধোয়া থেকে শুরু করে আয়াকাশি দের মারা পর্যন্ত।  (চার্জ মাত্র ৫ ইয়েন  )

একদিন ইয়াতোকে বাঁচাতে গিয়ে প্রায় গাড়ির নিচে চাপা পড়তে বসে আমাদের নায়িকা হিয়োরি। এভাবেই পরিচয় তাদের।

প্রত্যেক গডেরই এক বা একাধিক শিনকি থাকে। শিনকি মানে হচ্ছে sacred treasure or weapon . আমাদের ফকির গড কোন মতে একটা শিনকি জোগাড় করে (আগের জন কান্নকাটি করে কন্ট্রাক্ট বাতিল করসে  ) । যার নাম ইউকিনে।

এভাবেই তিনজনের নানা রকম মজার মজার কাহিনী এবং সুন্দর সুন্দর ফাইট এর মধ্যে অ্যানিমে চলতে থাকে।

যারা দেখেন নাই অবশ্যই দেখবেন।  পিউর বিনোদোন  

ইয়াতো যখন সিরিয়াস থাকে তখন অনেক বেশি কুউউউউল লাগে দেখতে ♥। হিয়োরি মেয়েটাও ভালো। 
আর একটা কথা না বললেই না সেটা হল এই অ্যানিমের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকের পুরাই ফ্যান হয়ে গেসি। বেশিইইই বস। 

যাই মাঙ্গা পড়তে 

Yami Shibai-(Anime Suggestion)- by Fuad Hassan

অ্যানিমেই সাজেশন :

আপনারা যারা মিথ, রুমর, হরর স্টোরি অথবা জাপানিজ আরবান লেজেন্ড পছন্দ করেন তারা এই সিসনে ফলো করতে পারেন 4 minutes duration er ‘Yami Shibai 2nd Season’ (http://myanimelist.net/anime/22537/Yami_Shibai_2nd_Season). এর 1st season হচ্ছে Yami Shibai (http://myanimelist.net/anime/19383/Yami_Shibai), 13 টা এপিসোড এর এই ছোট সিরিসের প্রতিটা পর্ব মাত্র 4 minutes duration এর।

Yami Shibai কাহিনিসংক্ষেপ :

প্রতিদিন বিকাল ৫ টার সময় একটা লোক সাইকেলে করে ছোট ছেলেমেয়েদের প্লেগ্রাউন্ডে আসে ভূতের গল্প বলার জন্য । এই গল্প ‘কামিকিবাশি’ (Kamikibashi) এর আকারে বলা হয়। কামিকিবাশি হচ্ছে পেপার ফিগার আর স্ক্রল ব্যবহার করে গল্প বলার জাপানিজ ট্র্যাডিশনাল টেকনিক। সিরিসটা এপিসোডিক, প্রতিটা এপিসোডেই নতুন গল্প। অ্যানিমেশন টাও ‘কামিকিবাশি’ টাইপ এর। মাত্র ৪ মিনিট এর এপিসোড একটা দেখলেই বুঝতে পারবেন। কাহিনিগুলাও যথেষ্ট ভয়ের, সাউন্ড এফেক্ট ও ভালো। অ্যানিমেশন টা বেশ ডার্ক, এইটার সাথে কাহিনি বলার স্টাইল আর সাউন্ড এফেক্ট মিলিয়ে বেশ ভালো একটা ভৌতিক আবহ সৃষ্টি করে। প্রতিটা কাহিনি ই বেশ ইন্টারেস্টিং একবার শুরু করলে না শেষ করে উঠতে ইচ্ছা করবে না। এন্ডিং সং টাও বেশ ক্রিপি, সং টা হাতসুনে মিকু (ভোকাল সিনথেসাইযার) দিয়ে করা।

MAL rating: 7.19
আমার rating : 8
MAL link: http://myanimelist.net/anime/19383/Yami_Shibai

15

 

ড়িভিউঃ Pokemon Origins – by Zakaria Mehrab

ইহাকে রিভিউ বলিলে রিভিউ এর অপমান হইবে , তাই আমি ইহাকে বলছি ড়িভিউ । ইহাই আমার প্রথম (এবং হোপফুলি শেষ) ড়িভিউ , তাই আশা করি ক্ষমাসুন্দর ও সুন্দরী দৃষ্টিতে দেখিবেন

ড়িভিউঃ Pokemon Origins

আপনি কি একজন দুর্ভাগা পোকেমন ফ্যান? জন্ম জন্মান্তর থেকে রিপিট হওয়া এপিসোড, এশ কেচাম এর বলদামি এবং হিন্দি মেগাসিরিয়াল কে হার বানানো এক একটি আর্ক দেখতে দেখতে আপনার “ছাইড়া দে মা কাইন্দা বাচি” অবস্থা ? তাহলে আপনার, হ্যাঁ আপনার জন্যই Production I.G., Xebec এবং OLM Inc. বানিয়েছে পোকেমন অরিজিন । মূলত নিনটেনডো এর পোকেমন ফ্র্যাঞ্চাইজি ; মেইনলি পোকেমন রেড এন্ড ব্লু গেম এর কাহিনী অবলম্বন এ বানানো এই আনিমে (মতান্তরে ওভিএ) মাত্র ৪ এপিসোড এর ; জি হ্যাঁ , ভুল পড়েননি , মাত্র চার এপিসোড এ পোকেমন এর একটি আর্ক সমাপ্ত করে তারা দেখিয়ে দিয়েছে অনন্ত জলিল বাদ এ আরও অনেকেই অসম্ভব কে সম্ভব করার ক্ষমতা রাখেন । ৪টি এপিসোড এর প্রত্যেকটি ভিন্ন ভিন্ন পরিচালক কর্তৃক পরিচালিত ।

বরাবরের মত কাহিনী শুরু হয় মাথায় ছিট ওয়ালা এক প্রফেসর এর বুড়ো বয়সের ভীমরতি কে কেন্দ্র করে, তার একদিন শখ হয় সকল বন্য জীবজন্তুর উপর তথ্য সংগ্রহ করার , এ জন্য সে নিয়োগ দেয় পাড়ার ছোটা মস্তান লাল মিয়া এবং তার নাতি নিলু আহমেদ কে , শুরু হয় চরম (এহেম) উত্তেজনাপূর্ণ, রোমাঞ্চকর এক অভিযান । এদিকে তাদের কাজে বাধা দেয়ার জন্য রয়েছে কুখ্যাত পোচার গ্রুপ রকেট সংঘ , লাল মিয়া কি ফাইরবে সকল বাধা অতিক্রম করে ন্যাশ্নাল হিরু হইতে ?? ফাইরবে কি সে বন্য প্রাণী ধরিয়া ধরিয়া তাহার টেনিস বলের স্টক শেষ করিতে ? জানতে হইলে আর দেরি না করে এখন ই মাত্র ৪ টি এপিসোড ডাউনলোড করে দেখা শুরু করে দিন পোকেমন অরিজিনস ।

এ প্রসঙ্গে বলে রাখি , আপনি যদি মাথা খাটানো এবং অপূর্ব সব কৌশল এ পরিপূর্ণ ব্যাটল উপভোগ করতে চান তাহলে আপনাকে হতাশ হইতে হবে , এখানে সবকিছুই হইবে হার্ডকোর ; ধুমধাড়াক্কা এবং বাংলা সিনেমা হইতে অনুপ্রাণিত, ঐখানে ছেলে মেয়ে গান গাইতে গাইতে স্কুল কলেজ ভার্সিটি পার হইয়া যায় , আর এইখানে লাল মিয়া বাইক দিয়া যাইতে যাইতে হয়ত দুই তিন টা জিম জিতিয়া ফালাইছে, এক দুইটা ঘুষিতেই হয়ত অপোনেনট এর পোকেমন কুপোকাত করিয়া লাইছে । আবার আপনি যদি জেসি এবং জেমস এর বেশ বড় ভক্ত হইয়া থাকেন তাইলেও এই জিনিস আপনাকে শান্তি দেবে না । তবে গেম এর সবচেয়ে মেমরেবল মুহূর্তগুলো আমার মতে ভালভাবেই ফুটে উঠেছে ৪টি এপিসোডে । সবদিক বিবেচনা করে বলতে পারি “দেইখা ফালান , কি আকা গেবনে“ ? ভালো লাগার ই কথা , না লাগলেও সমস্যা নাই, ৪ টা এপিসোড ই তো !! আপনার ফিল যাতে ওভারলোড না হইয়া যায় সেই দিক বিবেচনা করেই স্টুডিও তিনটি ডিসিশন নিয়ে নিয়েছে যে তারা আর পঞ্চম কোন এপিসোড বানাচ্ছে না

MAL babaji’s rating: 8.07
personal rating: 7.0

এক ঢিলে দুই- (Shounen Anime Suggestion)- by Mohaimenul Haque

Ao no exorcist (blue exorcist)

যারা টিভি সিরিজ দেখেন তাদের কাছে Winchester ভ্রাতৃদ্বয়কে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই । ভুত, দানো , ঘউল , ডিমনদের বিরুদ্ধে তাদের নায়কোচিত লড়াই এবং একই সাথে নিজেদের ভ্রাতৃত্ববোধের টানাপড়েন নিয়ে বানানো এই সিরিজ যারা দেখেছেন তারাই জানেন কি আকর্ষণ ছিল এর মধ্যে । এনিমে জগতে প্রায় তেমন গল্প নিয়েই বানানো হয়েছে ao no exorcist এবং শোনেন এনিমে হিসেবে চমৎকার । প্রথম দিকের পর্ব গুলো যেন supernatural এর স্মৃতিকেই ফিরিয়ে আনছিল । সাথে স্কুল লাইফ যুক্ত হয়ে হ্যারি পটারের কথাও মনে করিয়ে দিচ্ছিল ।
মূল চরিত্র satan এর ছেলেরা । কিন্তু তারা অর্ধেক মানুষও বটে । তাদের যুদ্ধ satan এর বিরুদ্ধে , আবার তাদেরকে সকলের বিশ্বাসও অর্জন করতে হবে । satan এর ছেলে হওয়ায় তাদের প্রতি আছে সবারই অবজ্ঞা । FMAB এর মত এখানেও আছে দুই ভাইয়ের সম্পর্কের রসায়ন (অবশ্যই সেভাবে তুলনীয় নয়) ।
Rin Okumura ব্যক্তিগতভাবে আমার পছন্দের চরিত্র । অন্যান্য চরিত্র গুলোও ভালো লেগেছে । Winchester ভাইয়েরা যেমন হান্টার , okumura ভাইরা হল exorcist . বাকি কাহিনী অনেকটাই এক । শেষের দিকে মনে হয় কিছুটা inuyasha র ছোঁয়াও পেয়েছি ।

Buso renkin

Nobuhiro watsuki নামটার জন্যই buso renkin দেখার একটা সুপ্ত ইচ্ছা ছিল । animax এ একসময় দেখাত , কিন্তু তখন কোন কারণে পুরোটা দেখা হয়নি । মাঝে মাঝে দু’ একটা এপিসোড দেখে ভালই মনে হচ্ছিল । এপিসোড সংখ্যা বেশি না হওয়ায় ডাউনলোড করে ফেললাম এবং প্রথম পর্ব দেখার পর অনুভূতি “নাহ! পটেনশিয়াল আছে ।”
একটা শোনেন এনিমের মধ্যে আপনি কি আশা করেন ? অবশ্যই একজন আদর্শ শোনেন । তাহলে আমার কথা বিশ্বাস করুন এই এনিমের protagonist Kazuki muto একজন আদর্শ শোনেন । নিজের জীবন দিয়ে হলেও সে রক্ষা করবে পৃথিবীকে , তার বন্ধুদেরকে , কোন বিপদই সে গ্রাহ্য করে না , চরম শত্রুকেও পরিণত করে মিত্রতে !!! shounen এনিমেতে যা যা থাকা দরকার তার সবই পাবেন এখানে ।সাথে আছে মিষ্টি মধুর romance এর ছোঁয়া ।আর কাজুকি মুটো আমার প্রিয় চরিত্র তো বটেই ।

দুটো এনিমেরই পরিণতি দেখে হতাশ । blue exorcist এ আন্দাজ করতে পারছিলাম কি হবে । তারপরও ডিমন-মানুষের প্রেম , দুই জগতের শান্তি পূর্ণ সহাবস্থান,satan এর মানবিক অনুভূতি – এগুলো আর কতকাল ?
Buso renkin এ একটা শক্তিশালী ভিলেন চরিত্রের অভাব বোধ করেছি । আমার কথা ভুল বুঝবেন না ।এই এনিমেতেই এনিমে জগতের অন্যতম powerful (literally speaking!! ) চরিত্র দেখান হয়েছে – একদম supreme being বলতে যাকে বোঝায় । কিন্তু শুধু গায়ের জোরে কি আর ভিলেন হওয়া যায় ?

আর কথা বাড়িয়ে লাভ কি ? Shounen genre যদি আপনি পছন্দ করেন তবে এক্ষনি দেখতে বসে পড়ুন ।