Sakib’s Hidden Gems – Episode #16

আনিমে: Fuujin Monogatari (Windy Tales)

জানরা: স্লাইস অফ লাইফ, সুপারন্যাচারাল, স্কুল
এপিসোড সংখ্যা: ১৩
MAL লিঙ্ক: https://myanimelist.net/anime/1524/Fuujin_Monogatari
 
জুনিয়র হাই স্কুলের ডিজিটাল ক্যামেরা ক্লাবের সদস্যা উয়েশিমা নাও-য়ের শখ হল সময় পেলেই স্কুলের ছাদে যেয়ে মেঘের দিকে তাকিয়ে থাকা আর ছবি তোলা। তো একদিন সে ছাদে গিয়ে হঠাৎ একটি শূন্যে ভাসমান বিড়ালকে দেখতে পায়। বিড়ালটার ছবি তুলতে গিয়ে সে ছাদের কার্নিশ থেকে পড়ে যায়, আর তার স্কুলের একজন শিক্ষক (মাকিনো সেনসেই) অলৌকিকভাবে তাকে মাটিতে পড়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে। নাও জানতে পারে যে, বিড়ালটা আর ঐ শিক্ষক – দুই-ই বাতাসকে ম্যানিপুলেট করতে জানে। এর আগে কোন অলৌকিক কিছু না দেখা নাও ও ক্যামেরা ক্লাবের বাকি সদস্যা কাতাওকা মিকির জন্য এটা একটা চরম রোমাঞ্চকর জিনিস – যা ওদের সামনে একটা নতুন জগৎ খুলে দেয়। মাকিনো সেনসেই – এর কাছ থেকে ওরা বাতাসকে ম্যানিপুলেট করার বিদ্যা শিখতে শুরু করে। নাও, মিকি, ও জুন নামের একটি ছেলে নানা বিচিত্র (কখনও মজাদার, কখনও শিক্ষামূলক) অভিজ্ঞতা লাভ করতে থাকে।
আনিমেটি মূলত এপিসোডিক। প্রতিটা এপিসোডের থিম ভিন্ন ভিন্ন। কিন্তু সবগুলোই একসূত্রে গাঁথা, কারণ বাতাসের সাথে কোন না কোনভাবে সম্পর্ক থাকে। আর নাওয়ের স্কুলের মুহূর্তগুলিও বেশ মজাদার – টিচারেরা সবাই বন্ধুবৎসল।
আনিমেটি ঠিক যেন গতানুগতিক স্লাইস অফ লাইফ আনিমের মত না। এর ক্যারাক্টার ডিজাইন খুবই ইউনিক। ওদের অনেকসময় খড়কুটোর মত দেখতে মনে হয়, বাতাসের এক ঝটকায় উড়ে যাবে যেন। আরেকটি উল্লেখযোগ্য জিনিস হলো আনিমেটিতে অসাধারণ ওএসটির ব্যবহার – মিউজিক দ্বারা এতো সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি করা আমি খুব বেশি আনিমেতে দেখিনি।
ভিন্ন স্বাদের স্লাইস অফ লাইফ আনিমের খোঁজে থাকলে এই আনিমেটি দেখতে পারেন। একটু মনোযোগ দিয়ে দেখলে মজাও পাবেন, আর কিছুটা চিন্তার খোরাকও পাবেন আশা করি।
 

Sakib’s Hidden Gems – Episode #15

আনিমে: Hikaru no Go (Hikaru’s Go)

জানরা: শৌনেন, গেইম
এপিসোড সংখ্যা: ৭৫ + ১টি মুভি
 
গল্পের নায়ক শিনদো হিকারু এলিমেন্টারি স্কুলের শেষ বর্ষের ছাত্র। কিছুটা ডানপিটে স্বভাবের হিকারু একদিন পুরনো জিনিসের খোঁজে তার দাদামশাইয়ের স্টোররুমে গিয়ে আবিষ্কার করে একটি বেশ পুরনো “গো” খেলার বোর্ড (“গো” হল দুইজনে মিলে খেলার জন্য একটি বোর্ড গেম। প্রতি দানে একটি করে গুটি বসিয়ে আস্তে আস্তে বর্ডার তৈরি করে বোর্ডের এরিয়া দখল করতে হয়। প্রতিপক্ষের গুটি কাটার ব্যবস্থাও আছে।)। এখন ঘটনা হলো, এই বোর্ডটির সাথে জড়িত আছে জাপানি হেইসেই আমলের বিখ্যাত গো ইন্সট্রাক্টর ফুজিওয়ারা নো সাই এর অতৃপ্ত আত্মা। শুধু হিকারুই সাইকে চোখে দেখতে পায়। গো খেলার আশ মেটাতে সাই সঙ্গ নেয় হিকারুর। সাইকে নিয়ে গো সেন্টারে গিয়ে হিকারু ওরই সমবয়সী আকিরা নামের প্রতিভাবান ছেলের সাথে একদান খেলে। আসলে হিকারুর মাধ্যমে সাই-ই চাল দেয়। এরপর কিছুটা সাই-এর চাপাচাপিতে ও বাকিটা নিজের ইচ্ছাতেই হিকারু গো খেলা শিখতে শুরু করে। গো খেলার সৌন্দর্য আবিষ্কার করে হিকারু সাইকে ওর গো ইন্সট্রাক্টর হতে বলে। সে চায় আবার কোন একদিন আকিরার সাথে খেলতে, আর নিজের শক্তিতে ওকে হারাতে। এর জন্য সে এখনকার একজন প্রফেশনাল গো খেলোয়াড়ের মতই তার ক্যারিয়ার গঠন শুরু করে।
একটি স্পোর্টস আনিমেতে যা যা আশা করা যায়, আনিমেটি তার যথেষ্টই পূরণ করে। গল্পের ফ্লো যথেষ্ট ভাল, হিকারু আর আকিরার উপরই ফোকাস করেছে, আর খুব একটা এদিক-সেদিক ছোটাছুটি করেনি। প্রফেশনাল গো এর জগতটা বেশ ভালোভাবেই বুঝিয়েছে। এক এপিসোড শেষ করে পরেরটা শুরু করার ক্ষুধাটা সবসময়ই ছিল। আনিমের আর্ট, সাউন্ড ইত্যাদিতেও খারাপ লাগার মত কিছুই নেই। গো খেলাটা বেশি একটা না বুঝলেও সমস্যা নাই।
স্পোর্টস আনিমের ভক্তরা এটা ট্রাই করে দেখতে পারেন। আর পুরো গল্পের স্বাদ পেতে চাইলে মুভি পর্যন্ত দেখে মাঙ্গার ১৪৯ নং চ্যাপ্টার থেকে পড়া শুরু করবেন। মাঙ্গায় মোট ১৯৮টা চ্যাপ্টার আছে।
 

Sakib’s Hidden Gems – Episode #14

আনিমে: Hai to Gensou no Grimgar (Grimgar of Ashes and Fantasies)

জানরা: ইসেকাই, একশন, অ্যাডভেঞ্চার, ড্রামা
এপিসোড সংখ্যা: ১২
 
গল্পের নায়ক হারুহিরো হঠাৎ করে নিজেকে এক অজানা অচেনা জগতে আবিষ্কার করে। সে সাথে পায় তারই মত একই ভাগ্য বরণ করা আরও কয়েকজনকে, আর পায় তার এই অবস্থায় আসার আগের জীবন সম্পর্কে ভাসা ভাসা কিছু স্মৃতি। এখন তাদের একমাত্র ধ্যানজ্ঞানের বিষয় হয়ে ওঠে কীভাবে এই নতুন জগতে নিজেকে টিকিয়ে রাখা যায়। ওরা নির্দেশনা পায় যে, আপাতত টিকে থাকার একমাত্র উপায় হল কয়েকজনের দল গঠন করে মন্সটার হান্টিং করা। এটাই ওদের জন্য টাকাপয়সা কামানোর একমাত্র উপায়। তো এটা শুনে হারুহিরো আরও কয়েকজনের সাথে দল গঠন করে শুরুতে গবলিন মারার সিদ্ধান্ত নেয়।
এইটুকু শুনে তেমন আকর্ষণীয় মনে না হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু না। কিন্তু আমার মতে এই আনিমেটি মূলত দুই দিক দিয়ে ট্রাডিশনাল ইসেকাই থেকে আলাদা। একটি হচ্ছে পেইন্টিং এর মতো দেখতে ব্যাকগ্রাউন্ডগুলি। ফ্যান্টাসি ওয়ার্ল্ডের সাথে খুবই সুন্দর খাপ খেয়েছে। ব্যাকগ্রাউন্ডের সাথে ক্যারাক্টার গুলোও খুব সুন্দরভাবে মিশে যায়। মোটকথা আনিমেটি ভিজুয়ালের দিক থেকে অনবদ্য।
আরেকটি দিক হচ্ছে এর পেসিং, ক্যারাক্টার ডেভেলপমেন্ট, আর ওয়ার্ল্ডবিল্ডিং-এর নিপুণতা। আজকাল অনেক সাধারণ ইসেকাইয়ে দেখা যায় যে, দর্শক ইসেকাই জগৎ সম্পর্কে খুব বেশি জানার আগেই নায়ক হুটহাট ফাইট শুরু করে দেয়, আর গল্পও বহুদুর এগিয়ে যায়। এই আনিমেটি কিন্তু ব্যতিক্রম। গল্পের প্রথম আর্কে খুব যত্নের সাথে ও সময় নিয়ে ওয়ার্ল্ডবিল্ডিং করা হয়েছে, আর চরিত্রগুলির বৈশিষ্ট্য ও তাদের নিজেদের মধ্যে মিথষ্ক্রিয়াগুলি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। অচেনা জগতের সাথে খাপ খাওয়াতে প্রথমদিকে হারুহিরোদের স্ট্রাগল বেশ বাস্তবসম্মতভাবেই তুলে ধরা হয়েছে। ১২ পর্বের ইসেকাই আনিমেতে এটা আনেক্সপেক্টেড ছিল, আর আমার খুব ভাল লেগেছে। তার পরের দুই আর্কে কিন্তু যথেষ্ট উত্তেজনাকর একশন আছে।
আনিমেটি কিন্তু শেষমেষ লাইট নভেলটার প্রোমোশনের জন্যেই বানানো। তাই গল্প শেষ করা হয়নি। এতে আপত্তি না থাকলে কিছুটা ভিন্ন স্বাদের এই ইসেকাই আনিমেটি দেখতে পারেন।
 

Sakib’s Hidden Gems – Episode #13

আনিমে: Princess Principal

জানরা: একশন, হিস্টোরিকাল
এপিসোড সংখ্যা: ১২
 
সময়কাল বিংশ শতাব্দীর প্রথমভাগ। মিলিটারি ক্ষমতাবলে ও ক্যাভোরাইট নামক জ্বালানীর উপর একচেটিয়া দখলদারিত্বের ফলে অ্যালবিয়ন সাম্রাজ্য তখন পৃথিবীর চালকের আসনে অধিষ্ঠিত। কিন্তু অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে সাম্রাজ্যটি পূর্বে Kingdom of Albion এবং পশ্চিমে Commonwealth of Albion – এই দুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। আর এই দুই দেশ গুপ্তচর নিয়োগ করে একে অপরের বিরুদ্ধে Information Warfare চালিয়ে যেতে থাকে। গল্পের মূল চরিত্র হল Kingdom of Albion এর চতুর্থ রাজকুমারী শার্লট। ওকে এক রকম অপহরণ করার জন্য Commonwealth এর গুপ্তচর নিয়োগ করা হয় (এই আনিমেতে কেন জানি সাধারণত ছোট মেয়েদেরকে গুপ্তচর বানানো হয়)। কিন্তু শার্লট এই গুপ্তচরদের পরিচয় জেনে ফেলে এবং ওদের সাথে যোগ দেয় এই শর্তে যে ওরা ওকে সিংহাসনে বসানোতে সহায়তা করবে। এরপর শার্লটসহ অন্য গুপ্তচরেরা একের পর এক মিশনে অংশ নিতে থাকে। এর সাথে শার্লটের জীবনরহস্য উন্মোচিত হতে থাকে।
এই আনিমেটিকে ললিফেস্ট মনে করবেন না কিন্তু। আনিমেটি যথেষ্টই সিরিয়াস। মিশনগুলোতে পাবেন বুদ্ধি ও সাহসের খেলা। ভিজুয়াল চমকপ্রদ আর ওএসটি শুনতে ভাল লাগে। কাহিনী এখনও অসমাপ্ত, কিন্তু সামনে সিকুএল মুভি আসছে। তাই গুপ্তচরবিদ্যার উপর কোন আনিমে দেখার ইচ্ছা থাকলে এটি চেখে দেখতেই পারেন।
 
 

Sakib’s Hidden Gems – Episode #12

আনিমে: Michiko to Hatchin (Michiko & Hatchin)

জানরা: একশন, অ্যাডভেঞ্চার
এপিসোড সংখ্যা: ২২
MAL লিঙ্ক: https://myanimelist.net/anime/4087/Michiko_to_Hatchin

গল্পের মূল চরিত্র দুইটি – নয় বছরের মেয়ে হানা মরেনোস ওরফে হাচিন আর যুবতী মহিলা মিচিকো ম্যালান্ড্রো। মা-মরা হাচিনের বাবা হলো কুখ্যাত গ্যাং লীডার হিরোশি মরেনোস, যে পুলিশের থেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। আর ওদিকে হাচিন পড়ে আছে ওকে দত্তক নেওয়া এক পরিবারের কাছে, যারা ওর জীবন দুর্বিষহ করে ফেলেছে। অন্যদিকে স্বাধীনচেতা মিচিকো হল বারবার জেল পালানো আসামী। প্রথম জীবনে সে হিরোশির প্রেমে মজে গিয়েছিল। পরে সে বহু খুঁজেও ওর দেখা পায় নি। কিন্তু জেলে থাকা অবস্থায় সে হিরোশির মেয়ে হাচিনের কথা জানতে পায়, আর ওর সাহায্যে হিরোশিকে খোঁজার আরেকটা চেষ্টা চালায়। এই জন্য সে আবার জেল পালিয়ে হাচিনকে দত্তক নেওয়া পরিবারের ওখানে হামলা করে হাচিনকে নিয়ে আসে। এরপর চলতে থাকে পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে ওদের হিরোশিকে খোঁজার অভিযান।

বেশ সিমপ্লিস্টিক সেটিং হলেও আনিমেটি খুব মজার। ল্যাটিন আমেরিকার সেটিং-ওলা আনিমেটি ক্যারাক্টার ডিজাইন, রং, ও সাউন্ডের ব্যবহারের দিক দিয়ে যথেষ্ট ব্যতিক্রমধর্মী ও স্টাইলিশ। অরিজিনাল আনিমেটির শেষটাও যথেষ্ট ভাল। মিচিকো ও হাচিন দুজনই ভালো লাগার মতো চরিত্র।

হালকা স্বাদের, দ্রুতলয়ের ও মজাদার আনিমের খোঁজে থাকলে এটি চেখে দেখতে পারেন। আর এটি ইংলিশ ডাব-এ দেখাই বোধহয় ভালো।

Sakib’s Hidden Gems – Episode #11

আনিমে: Fune wo Amu (The Great Passage)

জানরা: স্লাইস অফ লাইফ, জোসেই, ড্রামা
এপিসোড সংখ্যা: ১১
 
আজ আলোচনা করব একটি বাহুল্যবর্জিত ও ধীরলয়ের রিল্যাক্সিং আনিমে নিয়ে। গল্পের প্রধান চরিত্র মাজিমে – যে কিনা প্রথমে কাজ করত গেনবু পাবলিশিং কোম্পানির সেলসম্যান হিসাবে। কিন্তু কিছুটা অন্তর্মুখী প্রকৃতির হওয়ার কারণে সে এই কাজে সুবিধা করছিল না। মানুষের সাথে ভাবের আদান-প্রদানে দক্ষতা আনবার চেষ্টায় সে বেশি বেশি বই পড়ে, নতুন শব্দ শেখে, আর তার অর্থ জেনে রাখে। এখন ভাগ্যের ফেরে সে গেনবু কোম্পানির ডিকশনারি পাবলিশিং ডিপার্টমেন্টের একজনের চোখে পড়ে য়ায় এবং ওনার সুপারিশে ওখানে বদলি হয়। শেষমেষ এই ডিপার্টমেন্টে সে একদম তার মনের মতো কাজ পায়। এরপর এই ডিপার্টমেন্টের লোকজনদের নিয়ে নতুন একটি ডিকশনারি একদম শুরু থেকে বানানো নিয়েই কাহিনী এগোতে থাকে।
এই আনিমেটি বেশ সংক্ষিপ্ত পরিসরের হওয়ায় কোনরকম তাড়াহুড়ো নেই। আনিমেটি সবসময় টপিকের মধ্যেই থেকেছে। তার পরেও সংক্ষিপ্ত পরিসরে খুব সুন্দর একটি রোমান্স আছে, বেশ কিছু লাইফ লেসন আছে। মাজিমে ছাড়াও অন্যান্য চরিত্রগুলিকে একান্ত আপন বোধ হয়। ভিজুয়াল আর সাউন্ডট্র্যাক খুব ভালো, ওপেনিং আর এন্ডিং গানদুটোও ভালো।
এই আনিমের মতো এমন শান্ত-স্নিগ্ধ পরিবেশের মধ্যেও মোটামুটি সিরিয়াস ও ম্যাচিওর থীম আমি পাইনি খুব একটা। তাই আমার অত্যন্ত প্রিয় এটি।
ধীরলয়ের রিল্যাক্সিং আনিমে দেখতে আপত্তি না থাকলে অবশ্যই এটি দেখবেন।
 

Sakib’s Hidden Gems – Episode #10

আনিমে: Gallery Fake

জানরা: সেইনেন
এপিসোড সংখ্যা: ৩৭
 
গল্পের কাহিনী আবর্তিত হয় নিউ ইয়র্ক মেট্রোপলিটান আর্ট মিউজিয়ামের সাবেক কিউরেটর ফুজিতাকে কেন্দ্র করে। পেইন্টিং সম্পর্কে এত ওয়াকিবহাল লোক আর খুঁজে পাওয়া ভার। এখন সে জাপানে “গ্যালারি ফেইক” নামে একটি আর্ট গ্যালারির মালিক। এই গ্যালারিতে সে বিখ্যাত সব চিত্রকর্মের নকল বিক্রি করে কম দামে, কিন্তু তার আড়ালে সে নাকি আসল চিত্রকর্মও উঁচুদরে বিক্রি করে থাকে। এপিসোডিক আনিমেটিতে সে তার আর্ট সম্পর্কে অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে আর্ট নিয়ে চোরাকারবারিদের হাটে হাঁড়ি ভেঙে দেয় আর জেনুইন চিত্রকর্মটি খুঁজে বের করে।
এই আনিমের স্ট্রেংথ তার অনন্য গল্প ও সেটিংএ। আর্ট নিয়ে এত তথ্যবহুল আনিমে আর দ্বিতীয়টি নেই। এখনকার সময়ে আর্ট নিয়ে যে একটি বিশাল ও জটিল বাণিজ্য গড়ে উঠেছে, তার স্বরূপ আপনি এই আনিমেতে জানতে পারবেন। ভিজুয়াল, এনিমেশন, আর সাউন্ড মোটামুটি।
কিছুটা পুরনো ধাঁচের এপিসোডিক আনিমেটি অন্য কিছুর ফাঁকে ধীরেসুস্থে দেখলে ভালো লাগবে আশা করি।
 

Sakib’s Hidden Gems – Episode #09

আনিমে: Whistle!

জানরা: স্পোর্টস, শৌনেন
এপিসোড সংখ্যা: ৩৯
 
ফুটবল নিয়ে যে কয়েকটি আনিমে দেখেছি, তাদের মধ্যে এইটা আমার কাছে সবচেয়ে রিয়ালিস্টিক ও সবার সেরা মনে হয়েছে। গল্পের নায়ক কাজামাতসুরি। জন্ম থেকেই ওর ফুটবলের প্রতি আগ্রহ। মিডল স্কুলে থাকতে সে বেশ শক্তিশালী ফুটবল টিমওয়ালা এক স্কুলে ভর্তি হয়। কিন্তু মূলত উচ্চতা কম হওয়ার কারণে ও কখনও দলে জায়গা পায়নি, আর রেগুলার প্র্যাকটিসেরও সুযোগ পায়নি। তাই বাধ্য হয়ে সে স্কুল পরিবর্তন করে। তারপর এই দুর্বল টিম নিয়েই সে এগিয়ে চলে।
 
 
কাজামাতসুরিকে আপনার ভালো লাগবেই। ও অত্যন্ত পসিটিভ মাইন্ডেড ও হাসিখুশি চরিত্র। ও নিজের সীমাবদ্ধতা সম্বন্ধে ওয়াকিবহাল এবং তা কাটিয়ে উঠতে বদ্ধপরিকর। তাছাড়া আনিমেটার ক্যারাকটার ডেভেলপমেন্ট খুব ভালো, পার্শ্ব চরিত্রদেরও বেশ আপন মনে হয়। ম্যাচগুলি রিয়ালিস্টিক হলেও বেশ জমাটি। ভিজুয়াল খারাপ না। বেশ কিছু মন ভালো করা মিউজিক আছে। আর এপিসোডের শেষে ফুটবল নিয়ে ছোটখাট টিপস থাকে, ঐটাও খুব ভালো লাগে।
রিয়ালিস্টিক স্পোর্টস আনিমে ফ্যানদের অবশ্যই আনিমেটি দেখতে বলব।

Sakib’s Hidden Gems – Episode #08

আনিমে: Nejimaki Seirei Senki: Tenkyou no Alderamin (Alderamin on the Sky)

জানরা: একশন, অ্যাডভেঞ্চার, ফ্যান্টাসি, মিলিটারি
এপিসোড সংখ্যা: ১৩
 
এই আনিমেটি ম্যাডহাউজ স্টুডিওর আরেকটি দারুণ সৃষ্টি। গল্পের নায়ক ইক্তা, যে খুবই অলস কিন্তু মাথায় বুদ্ধি রাখে আর কিছুটা প্লেবয় টাইপের। সে, তার ছোটবেলার বান্ধবী ইয়াতোরি আর পথে জুটে যাওয়া আরও কিছু বন্ধুবান্ধব কিছুটা ভাগ্যের ফেরে আর কিছুটা নিজেদের ইচ্ছাতেই যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। যুদ্ধ চলতে থাকে ইক্তাদের দেশ কাজভারনা সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র কিওকার।
 
 
গল্পটি মিলিটারি আনিমে হিসেবে বেশ উপভোগ্য। গল্পে পাবেন মিলিটারি স্ট্রাটেজিস্ট হিসেবে ইক্তার বুদ্ধির ঝিলিক। গল্পে ফ্যান্টাসি আর মিলিটারির সংমিশ্রণ আছে – সৈন্যরা যুদ্ধক্ষেত্রে স্পিরিট বা একরকম যাদুকরী জীবের সাহায্য নেয়। এক দুইটা খন্ডযুদ্ধ আর একটি বড় যুদ্ধ পাবেন আনিমেটিতে। ভিজুয়াল খুবই চমকপ্রদ, ক্যারাকটার ডিজাইন মনকাড়া, মিউজিক ভালই, ওপেনিং গানটা স্কিপ করা কঠিন – এইসব দিক দিয়ে ম্যাডহাউজ কার্পণ্য করেনি।
আনিমেটি মূলত ম্যাডহাউজ স্টুডিওর আরেকটি অ্যাডাপটেসন – যেইটা মাঝপথে শেষ হয়ে গেছে আর পরের সিজনের কোন খবর নেই। আমি নেট ঘেঁটে যা পেলাম তাতে এইটার পরের সিজনের কোন আশা নেই বললেই চলে। তাই এটা আগে থেকেই জেনে রাখুন আর আনিমেটা এঞ্জয় করুন।

Sakib’s Hidden Gems – Episode #07

আনিমে: Lupin III (Lupin the Third)

জানরা: একশন, কমেডি, সেইনেন, অ্যাডভেঞ্চার
এপিসোড সংখ্যা: অনেক (হেঁহেঁ)
MAL লিঙ্ক: https://myanimelist.net/anime/1412/Lupin_III [শুধু অরিজিনালটা দিলাম, আরও আছে]
 
আজ আলোচনা করছি একটি ক্লাসিক আনিমে সম্পর্কে, যেটি সত্যিকার অর্থেই আজও পুরনো হয়নি। আনিমের কেন্দ্রীয় চরিত্র বিশিষ্ট চোর আরসেনে লুপান। সে রীতিমত আগে থেকে ঘোষণা দিয়ে চুরি করায় এক্সপার্ট। অসাধারণ বুদ্ধি ও ছদ্মবেশ ধরার কৌশলে সে প্রতিবার পুলিস ও গোয়েন্দাদের কলা দেখিয়ে কাজ হাসিল করে নেয়। তার আছে এক অসামান্য গুণ, সে অন্য মানুষদের আকৃষ্ট করে ওর Charisma দিয়ে। তাই ওর সঙ্গ নেয় কুইক ড্রতে পারদর্শী জিগেন, সামুরাই গোএমন, ও অনিন্দ্যসুন্দরী সিডাকট্রেস মিনে ফুজিকো। কখনও একলা, আবার কখনও বা এদের সাহায্যে লুপান তার কাজ হাসিল করে। আনিমেটি মূলত এপিসোডিক।
 
 
 
এই আনিমেতে যেই পুরনো দিনের ছোঁয়া পাওয়া যায়, তা বেশিরভাগ আনিমেতেই পাওয়া যায়না। হায়াও মিয়াজাকির মত বিখ্যাত লোক এই আনিমের কয়েকটি এপিসোড ডাইরেক্ট করেছেন। অসাধারণ Jazz মিউজিকের ব্যবহার হয়েছে এইখানে। হাল্কা কামোত্তেজনার স্বাদও আছে, অ্যাডভেঞ্চার এর থ্রিলও আছে। আনিমেটাতে আইডিয়া একদম ঠাসা। যেমনঃ একটি এপিসোডে লুপান একটি টাকশালে ঢুকে টাকা ছাপিয়ে আনে (জি ভাই, মানি হাইস্ট সিরিজের আগের কথা এইটা)। আনিমেটা কিন্তু আস্তে আস্তে দেখার জিনিস। যেহেতু এপিসোডিক আনিমে, তাই যখন মুড আসবে তখন দেখবেন।
লুপান ফ্র্যানচাইজটা বিশাল। একেকটা সিরিজের আরটস্টাইল ভিন্ন ভিন্ন। যারা শুরু করতে চায়, তাদের অনেকেই বুঝে উঠতে পারে না কোত্থেকে শুরু করা। তাদের আমি বলব “The Castle of Cagliostro” মুভিটা আগে দেখতে। এইটা মিয়াজাকির করা, জিবুরির বানানো ফিল্মগুলির মত ভাইব পাবেন। এইটা ভালো লাগলে “The Woman Called Fujiko Mine” দেখতে পারেন [নুডিটি আছে কিন্তু]। তারপর দেখুন তিনটি সিকুয়েল মুভি। প্রথমটির নাম Jigen Daisuke no Bohyou। এইগুলো দেখে যদি ভালো লাগে, কেবল তবেই অন্যান্যগুলি দেখা যেতে পারে। তবে আমি পরামর্শ দিব https://www.animenewsnetwork.com/feature/2016-01-22/lupin-the-third-where-to-start-and-what-worth-watching/.97834 এবং https://www.animenewsnetwork.com/feature/2016-01-27/lupin-the-third-the-complete-guide-to-films-tv-specials-and-ovas/.98031 গাইডগুলি ফলো করতে।