Eyeshield 21 মাঙ্গা রিভিউ — Rezo D. Skylight

Manga Review: Eyeshield 21

প্রথমেই বলে নেই মাঙ্গাটা মূলত “American football” নিয়ে যা খুবই অপ্রচলিত একটা স্পোর্টস। আমি নিজেও সিরিজটা শুরু করার পূর্বে বহুত দিধা-দন্দে ছিলাম। মনে হয়েছিল যে, জিবনেও ভালভাবে American football খেলা দেখি নাই তাহলে এই সিরিজ পড়ে লাভটা কি?! আমি ভাবতাম American football খেলাতে খালি গুতাগুতি করা ছাড়া কিছুই নাই। এতে আর মজার কি?! কিন্তুু সত্যি বলতে কি “Eyeshield 21” সিরিজটা আমার চিন্তা-ধারনাকে বদলে দিয়েছে। American football যে এত মজার হতে পারে Eyeshield 21 না দেখলে হয়তো বুঝতে পারতাম না। আমি প্রথমে Eyeshield 21 এর এনিমে সিরিজটা দেখেছি তারপর মাঙ্গাটা পড়া শুরু করেছি। সিরিজটা আমার কাছে এতই ভালো লেগেছে যে মাঙ্গাটাও আমি প্রথম থেকে একবার হাল্কা ভ্রমন দিয়ে এসেছি। 😀

মাঙ্গাটা সম্পর্কে প্রথমে কিছু তথ্য দিয়ে নেই-
Volumes: 37
Chapters: 333
Status: Finished
Published: Jul 23, 2002 to Jun 15, 2009
Genres: Action,Comedy,School Life,Shounen,Sports. (Src-mangaupdates)
Authors: Inagaki, Riichiro (Story), Murata, Yusuke (Art)
Serialization: Shounen Jump (Weekly)
MAL Score: 8.62
MAL Ranked: 76
MAL Popularity: 96

কাহিনী কি দিয়ে আর শুরু করবো?! অন্যান্য শউনেন এনিমেতে যা হয়। প্রথমে মেইন ক্যারেক্টার “Wimpy” টাইপের থাকে কিন্তুু পরে সে বেশ শক্তিশালি হয়ে উঠে। Eyeshield 21ও তার বেতিক্রম নয়। গল্পের মূল নায়ক থাকে “কোবায়াকাওয়া সেনা” নামের অতি সাধারন এক ছেলে। সারা জীবনে খালি বুলির স্বীকার হয়েছে এবং বুলি থেকে বাচতে খালি দোউড়িয়ে বেড়িইয়েছে। কিন্তুু হাইস্কুলে উঠার পর সে ঘটনাক্রমে যোগ দেয় American football ক্লাবের Secretary হিসেবে। Secretary হওয়া সত্তেও শেষমেশ তাকে মাঠে খেলতে হয় “Eyeshield 21” নামের ছদ্দবেশে। এখান থেকেই তার জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু হয়। সে সারা জীবনে বুলির হাত থেকে বাচার জন্য যে দোউড়ানোর কৌশল ব্যাবহার করত তা সে খেলার মাঠে কাজে লাগায় এবং পরিনত হয় Eyeshield 21 নামের এক রহস্যময় প্লেয়ারে।

এখন ক্যারেক্টারের কথায় আসি। ক্যারেক্টারের কথায় আসতে গেলে প্রথমেই আমার মাথায় আসে “হিরুমা ইয়োচির” নাম। সেইরকম অস্থির একটা ক্যারেক্টার। তার কাজকর্ম, বুদ্ধি, স্ট্রাটেজি সবকিছুই আনপ্রেডিক্টেবল। সে থাকে মূলতো Deimon High স্কুলের American football টিমের ক্যাপটেন ও কোয়ার্টারব্যাক। সে পুরো সিরিজে খুবই গুরুত্তপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এরপর মেইন ক্যারেক্টার সেনার কথায় আসি। তার আচার আচারন আর ৫-১০টা অন্যান্য Wimpy ক্যারেক্টারের মতনই। কিন্তুু মাঝে মধ্যে সে খুবই ভাবসমৃদ্ধ কথা কথা বলে বসে এবং তার সবচেয়ে ভালো বৈশিষ্ট্য হল “সহজেই হার না মানা”। এছাড়া আরও গুরুত্ত্বপূর্ণ ক্যারেক্টার রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোজ্ঞ হল আনেজাকি মামোরি, রেইমন তাউরো, রোয়োকান কুরিতা, তাকেকুরা গেন, হা-হা ব্রাদারস সহ আরও ক্যারেক্টার। Eyeshield 21 এর সবচেয়ে ভালো বৈশিষ্ট্য হল এটির কাহিনী শুধু মেইন ক্যারেক্টারের উপর ফোকাস করে তৈরি হয়নি। প্রতেক ক্যারেক্টারের এর উপর মাঙ্গাকারা গুরুত্ত প্রদান করেছে। মেইন ক্যারেক্টারের পাশাপাশি অন্যান্য ক্যারেক্টারেরও ডেভেলপমেন্ট দেখানো হয়েছে। এমনকি প্রতিপক্ষ টিমের ক্যারেক্টারেরও ডেভেলপমেন্ট দেখানো হয়েছে (ঊদাহরন- শিন, সাকুরাবা, রিকু ইত্যাদি), যা খুব কম স্পোর্টস মাঙ্গাতেই দেখানো হয়। সবমিলিইয়ে ক্যারেক্টারগুলা খুবই মেমোরেবল। তাই Eyeshield 21 এর অন্যতম কী পয়েন্ট হলো এর “ক্যারেক্টার”।

আর্ট নিয়ে কিছু কথা বলা যাক। বেশিরভাগ মানুষই কোনো মাঙ্গা পড়ার আগে তার আর্ট কেমন তা জিজ্ঞাসা করে। তাদের প্রথমেই বলে দিতে চাই Eyeshield 21এর মতো এত সুন্দর ও ডিটেইল আর্টের স্পোর্টস মাঙ্গা খুব কমই আছে। আর্ট নিয়ে যখন কথাই বলতে হল তখন আর্টিস্ট এর কথায় আসি। Eyeshield 21এর আর্টিস্ট হল Murata Yusuke। তার নাম হয়তো অনেকেই জানেন। বিশেষ করে যারা One Punch-Man মাঙ্গা পড়েছেন তাদের তো তাকে আরও বেশি চিনার কথা। তিনি বর্তমানের সেরা আর্টিস্টদের মধ্যে একজন। তাই, সাভাবিক ভাবে Eyeshield 21 মাঙ্গার আর্ট তো ভালো হবেই। আর মাঙ্গার ষ্টোরি রাইটার হল Inagaki Riichiro। বলতে গেলে Eyeshield 21ই তার সবচেয়ে উল্লেখযজ্ঞ কাজ। এছাড়া কিছু ওয়ান-সট ও রচনা করেছেন। তবে সেগুলো তেমন সাড়া পায়নি। কিন্তুু ভবিষ্যতে হয়তোবা সে Eyeshield 21 মতো আরও ভালো ভালো কাজ বের করবে বলে আশা করা যায়।

অনেক কথা লিখে ফেললাম। এখন যদি এঞ্জয়মেন্ট কথা বলতে যাই এক কথায় বলব Eyeshield 21 আমি খুব উপভোগ করেছি। Eyeshield 21এর প্রটিতি ম্যাচেই আছে টানটান উত্তেজনা ও টুইস্ট। যেহেতু এইটা Shounen ও Sports জেনারের মাঙ্গা সেহেতু এতে কিছু রুপকিয় moves/technique থাকতেই পারে; এতে তেমন দোষের কিছুই নেই। বরং এই moves/technique গুলা মাঙ্গাকে আরও উপভজ্ঞ করে তুলেছে। সবমিলিয়ে, Eyeshield 21 আমার পড়া “1 of the best” স্পোর্টস মাঙ্গা। 😀

এতুকিছুর পর নিশ্চয়ই মাঙ্গাটা একটু হলেও পড়তে ইচ্ছা করবে। তাই, দেরি না করে একবার শুরু করেই দেখুন। একবার পড়া শুরু করলে আর থামতে পারবেন না। আপনার মন চলে যাবে “American football” খেলার দুনিয়ায়। ~YAA-HAA~

My Rating – 9/10

*F.A.Q.-
১. American football আর Rugby কি একই জিনিস?
=>মোটেই এক জিনিস না। যদিও Rugby কে American football এর ছোট ভাই বলা হয়। এই লিঙ্কটি দেখে আসুন – [http://visual.ly/what-difference-between-american-football-…] আশা করি ধারণা পরিস্কার হয়ে যাবে।
২. American football খেলার নিয়ম কানুন কি?
=> Eyeshield 21 মাঙ্গা পড়লেই খেলার নিয়ম কানুন জেনে যাবেন। নইলে [http://en.wikipedia.org/wiki/American_football] এখানে ঘুরে আসুন।
৩. Eyeshield 21 এনিমে কি দেখব?
=> এটা আপনার একান্ত নিজের ইচ্ছা। এনিমের BGM ও OST গুলা বেশ ভালো। এনিমের টোটাল এপিসোড সংখ্যা ১৪৫ (More info –http://myanimelist.net/anime/15/Eyeshield_21)। তবে এনিমেতে বেশ কিছু ফিলার আছে। তাই ফিলারের ঝামেলা এড়ানোর জন্য মাঙ্গা দিয়ে শুরু করতে পারেন।

এফ এ সি ২৩

রান্ডম টপিক

 আনিমিম ১- চিকোকু চিকোকু!

 

শউজো আনিমে বা মাঙ্গার খুব কমন সিন, মেইন ফিমেইল ক্যারেক্টার দেরি করে ঘুম থেকে উঠেছে, তারপর প্যানিকড অবস্থায় দৌড়াদৌড়ি করতে গিয়ে আর নাস্তা খাওয়ার সময় পায়নি। তাই এরা যা করে, ঝটপট একটা ব্রেড স্লাইস মুখে নিয়ে দৌড়াতে শুরু করে, আর বলে “চিকোকু চিকোকু![I am going to be late!]” সাধারণত এর পরেই এরা মেইন মেইল ক্যারেক্টার এর সাথে ধাক্কা খায়, বাংলা সিনেমায় সাধারণত যা দেখায় আর কি। এই স্টেরিওটাইপিং এখন প্রচুর আনিমেতে ব্যবহার হচ্ছে, কিছু এগজাম্পল কমেন্টে।

 

 

 

আনিমে সাজেশন

স্কেট ডান্স[Sket Dance]

 

আপনাকে কি কেউ নিয়মিত টিজ করছে? প্রেমঘটিত কোন সমস্যা? পড়াশুনা নিয়ে কোন ঝামেলা? কোন টিচারের ক্লাস ফলো করতে সমস্যা হচ্ছে? ক্লাবের সাথে মানিয়ে চলতে পারছেন না? বিড়াল হারানো গিয়েছে? সমস্যা যতই ট্রিভিয়াল হোক, বা যতই ঝামেলাযুক্ত হোক, চিন্তা নেই, বসসুন, হিমেকো, আর সুইচ স্কেট ডান্স ক্লাব গড়ে তুলেছে শুধুই আপনাকে সহায়তা করার জন্য।

 

 

কেন দেখবেন/দেখবেন না:স্কেট ডান্সকে বলা হয় গরিবের গিনতামা, কিছু ক্ষেত্রে গিন্তামার চিপ ইমিটেশন খুব ভালভাবে স্পষ্ট। চরিত্রের চিত্রায়নে গিন্তামার প্রভাব খুব বেশি। যদিও আনিমেটা পরবর্তীতে গিন্তামার প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছে। যদি আপনি গিন্তামা না দেখে থাকেন, তাহলে স্কেট ডান্স বেশ প্রান খুলে হাসার মত একটা আনিমে। ভাল সাউন্ডট্র্যাক, চমৎকার সব সুক্কমি, সব মিলিয়ে বেশ ভাল কমেডি প্যারোডি আনিমে।

 

ম্যাল রেটিং ৮.৩৯

আমার রেটিং ৮

 

 

 

মাঙ্গা সাজেশন

আইশিলড ২১[Eyeshield 21]

 

কবায়াকাওয়া সেনা ভারী শান্তশিষ্ট এক ছেলে। আর এদের ক্ষেত্রে যা হয়, নিয়মিয় বুলিং এর শিকার। তো একদিন বুলিদের খপ্পর থেকে বাঁচতে গিয়ে সে দেখিয়ে দিল তাঁর দৌড়ের কারিশমা, আর সেই সাথে নজরে পড়ে গেল তাঁর স্কুলের আমেরিকান ফুটবল ক্লাবের ক্যাপ্টেন হিরুমার। সেই থেকে শুরু হল তাদের সংগ্রাম। লক্ষ্য? রাইস বৌল!

 

 

কেন পড়বেনঃদারুন শউনেন স্পোর্টস আনিমে, বেশির ভাগ শউনেন স্পোর্টস এর ক্ষেত্রে যা হয় [হ্যাঁ, আমি কুরোকো নো বাসকে বা প্রিন্স অব টেনিসের কথা বলছি], খুব বেশি অতিরঞ্জিত করে ফেলা হয় পুরো ব্যাপারটাকে। আইশিলডে তা নেই, কিছু ক্ষেত্রে পুরো জিনিসটাকে সিম্বলাইজ করার জন্য রূপক কিছু দৃশ্য ব্যবহার করা হয়েছে, তবে তা ক্ষমা করে দেয়া যায়। মোটের উপর, দারুন উপভোগ্য এক মাঙ্গা। আইশিলডের আনিমেও যথেষ্ট ভাল, তবে তাতে গল্প পুরো শেষ হয়নি।

 

কেন পড়বেন না:তেমন কোন কারণ নেই।

 

ম্যাল রেটিং ৮.৬৪

আমার রেটিং ৯

 

 

 

Eyeshield 21 – একটি আদর্শ স্পোর্টস এনিম— লেখক মো আসিফুল হক


এনিমটা দেখা শুরুর আগে চিন্তা করতেছিলাম, আমেরিকান ফুটবল নিয়া এনিম, এই জিনিসের নিয়ম কানুন তো কিছুই জানি না।/:)/:)/:) ( আমেরিকান ফুটবল নরমাল ফুটবলের মত না, এইখানে আপ্নে হাত দিয়া, পা দিয়া জেম্নে পারেন বল নিয়া একটা জায়গায় পৌছাইতে পারলে গোল টাইপ, ৬ পয়েন্ট) যাই হোক, প্রথম পর্ব দেখলাম, দেখি বেশী ডিপে যায় নাই, আর মাঝখানে কি করছে রুলস ব্যাখ্যা করছে।
এবং এইটাই এনিমটার সবচেয়ে জোস পয়েন্ট, প্রত্যেক পর্বে একটু একটু কইরা খেলাটার রুলস, এক্সসেপসন্স, স্পেশাল মুভ, জাপান এবং আমেরিকায় লিগ, লিগের ফরম্যাট- কিচ্ছু বাদ দেয় নাই, সব ব্যাখ্যা করছে। ১৪৫ পর্ব হওয়ায় ব্যাখ্যা করার সময়ও পাইছে অনেক। পুরা এনিম দেখার পর আমি এখন খেলাটার প্রায় সব রুলস এবং স্ট্রেটেজি গুলা জানছি। :):):):)


কোবায়াকাওয়া সেনা – এনিমের মুল চরিত্র। বাকি ৮-১০ টা সাধারণ এনিম হিরোর মতই সেনাও বোকা সোকা ধরণের। স্কুল থেইকাই তারে ছোটখাটো পাইয়া লোকজন সব কাজকাম করাইয়া নিত, ফাই ফরমাশ খাটত আর কি !!!! :):):):)লোকজনের কাজ কইরা দিতে দিতে আর পালাইয়া থাকার চেষ্টা করতে করতে তার দৌড়ের স্পিড সেইরকম। আমেরিকান ফুটবলে আবার এই জিনিস খুব কাজের। সেনা যখন হাই স্কুলে আসে, তখন তার উপর চোখ পরে হিরুমা ইওইচির, যে কিনা স্কুল ফুটবল টিমের ক্যাপ্টেন , যে কিনা ডেভিল( আকুমা) নামে পরিচিত।

এই স্কুলের ফুটবল টীম “ডেইমন ডেভিল ব্যাটস” এর অবস্থা শোচনীয়। খেলোয়াড় নাই বললেই চলে, হিরুমা আর কুরিতা – এই দুইজন রেগুলার মেম্বার। অন্য স্কুলের সাথে খেলা থাকলে হিরুমা বিভিন্ন ক্লাব থেইকা লোকজন ধইরা আইনা খেলায় নামায়। সেনার স্পিড দেইখা হিরুমা সেনাকে দলে নেয় এবং এনিমের মুল ঘটনা শুরু হয়। ধীরে ধীরে সেনা একজন টপক্লাস ফুটবল প্লেয়ার হওয়া শুরু করে।


এনিমের জোস দিক গুলার একটা হইল প্রত্যেকটা দলের এবং অনেক খেলোয়াড়ের স্পেশাল এবিলিটিস গুলা। সেনার ডেভিল ব্যাটস ঘোস্ট, ডেভিল ব্যাট হারিকেন, মোন্তার ডেভিল বেকফায়ার, শিনের স্পিয়ার ট্যাকল, ট্রাইডেন্ট ট্যাকল, রিকুর রোডেও ড্রাইভ, সাকুরবার এভারেস্ট পাস- এইরকম বহু স্পেশাল মুভে এনিম ভর্তি। আর এর সাথে প্রত্যেক টিমের নানা রকম স্ট্রেটেজির মিশেলে একটা জমজমাট এনিম।


এনিমের চরিত্রগুলাও বেশ ভাল। বিশেষ কইরা হিরুমা, সেনা, শিন, সাকুরাবা, রিকু – এই চরিত্রগুলা তো বেশী অস্থির। আর বাকি চরিত্রগুলাও অসাধারণ। :):):):)


এনিমের কোন একটা দিক যদি খারাপ লাগে তবে শেষের দিকে ম্যাচগুলার লেংথ খারাপ লাগতে পারে। যেমন কোন কোন ম্যাচ ৩ পর্ব ধরে দেখাচ্ছে, ওইখানে মনে হইতে পারে ২ পর্বে শেষ করা যাইত। আমার মতে ১৪৫ পর্বকে ১০০-১১০ পর্বে শেষ করে ফেললে পারফেক্ট হইত। তবে এইটা খুব বড় একটা ফ্যাক্টর না। অল্প দুএকটা ম্যাচে এইরকম মনে হইতে পারে।


এনিমের কমেডি সাইডটা বেশ ভাল, সাধারণত স্পোর্টস এনিমে কমেডি খুব কম থাকে। কিন্তু এইখানে প্রায় পুরা এনিম জুড়েই একটা কমেডির আভাস আছে, যেইটা খুব ইন্টারেস্টিং।


হাজিমে নো ইপ্পো এবং ইনিশিয়াল ডি এর পর এইটা আমার মোস্ট ফেভারিট স্পোর্টস এনিম। সেনার ডেভিল ব্যাট ঘোস্টের সময় দেওয়া সাউন্ড ট্র্যাকটা এনিম সাউন্ড ট্র্যাকের মধ্যে আমার অন্যতম ফেভারিট।:D:D:D:D


তাহলে আর দেরি কেন? এখনই দেখা শুরু করে দিন এই দুর্দান্ত এনিমটি। :):):)