রিভিউ কন্টেস্ট এন্ট্রি [২০১৫] #১৬: Shigatsu wa Kimi no Uso [Your Lie in April] — Arnab Basu

[NOTE: রিভিউতে বেশ বড় কিছু স্পয়লার আছে, তাই আনিমেটি দেখে না থাকলে রিভিউ পড়বার সময়ে সতর্ক থাকুন। – Animekhor Admin Panel]

———————————————————————————————–

এনিম/মাঙ্গা : শিগাতসু ওয়া কিমি নো উসো (Your Lie in April)
মাঙ্গাকা : নাওশি আরাকাওয়া
জনরা : মিউজিক, ড্রামা, রোম্যান্স, ট্রাজেডি
পর্ব : ২২
ম্যাল রেটিং :.৯৩

শিগাতসু ওয়া কিমি নো উসো দেখে আপনি হাসবেন, কাঁদবেন আর অসাধারণ সুরের মূর্ছনায় নিজেকে হারিয়ে ফেলবেন। মিউজিক ভিত্তিক এনিম হিসাবে এর মূল আকর্ষণ হল ক্লাসিকাল ইন্সট্রুমেন্টাল মিউজিকের অসাধারণ প্রদর্শন। এর সাথে আছে হৃদয়স্পর্শী কাহিনী।

 

কাহিনীসংক্ষেপ ও রিভিউ :

ছোটদের পিয়ানোর জগতে ধূমকেতুর মত প্রবেশ আরিমা কৌসেইর। একের পর এক প্রতিযোগিতা জয় করে নিজের প্রতিভার পরিচয় দেয় সে। কিন্তু সবকিছু বদলে যায় যখন তার মা মারা যায়। ছোটবেলা থেকে তাকে পিয়ানো শেখানো মায়ের মৃত্যুতে মানসিকভাবে বিদ্ধস্ত হয় আরিমা, তার শ্রবণশক্তিতে কোন সমস্যা না থাকার পরেও সে তার নিজের পিয়ানোর শব্দ শোনার সামর্থ্য হারিয়ে ফেলে। এই ঘটনার দুই বছর পরেও আরিমার অবস্থার কোন পরিবর্তন হয় না। পিয়ানো থেকে দূরে সরে যাওয়া আরিমার জীবন ওলট-পালট হয়ে যায় মিয়াজোনো কাওরির আবির্ভাবে। কাওরি বেহালা বাজায়। সারা জীবন নিখুঁতভাবে নোট অনুসরণ করে পিয়ানো বাজানো আরিমা কাওরির উচ্ছল এবং স্বাধীনচেতা বেহালার সুরে মুগ্ধ হয়। অনেকটা জোর করেই আরিমাকে আবার সঙ্গীতের জগতে ফিরিয়ে আনে কাওরি। তার বিশ্বাস, আরিমা তার সুরের মাধ্যমে নিজের অনুভূতিগুলো সবার মধ্যে ছড়িয়ে দেবে। শুরু হয় সঙ্গীতের জগতে তাদের নতুন করে পথচলা।

শিগাতসু ওয়া কিমি নো উসো কে বাংলা করলে দাঁড়ায় “এপ্রিলে তোমার মিথ্যা”। কখনো কখনো কিছু মিথ্যার দাম সত্যের চেয়ে বেশি, বিশেষ করে সত্যটা যখন খুব কষ্টদায়ক। সুন্দরী আর প্রাণোবন্ত কাওরিকে প্রথম দেখাতে তার প্রতি আকৃষ্ট হয় আরিমা। কিন্তু কাওরি আরিমাকে যখন “Friend A” হিসাবে আখ্যায়িত করে, তখন আরিমাও তার ভাগ্য মেনে নেয়, কাওরি হয় তার “বন্ধুর প্রেমিকা”। অথচ কাওরিরও পছন্দ আরিমাকে। এভাবে দুজনই তাদের সত্যিকার অনুভূতিগুলোকে লুকিয়ে এক মিথ্যা খেলায় অবতীর্ণ হয়। কারণ সত্যটা মেনে নেওয়া দুজনের কাছেই অনেক বেশি কঠিন। নিজেদের সত্যিকারের অনুভূতিগুলোর প্রকাশ তারা দেখিয়েছে তাদের সুরের মাধ্যমে। এনিমের কাহিনী ট্র্যাজিক, কিন্তু তাই বলে এটা শুধুমাত্র একটা ট্র্যাজেডির গল্প না। প্রিয়জন হারানোর শোক একটা মানুষের জীবনকে কিভাবে থমকে দিতে পারে  কিংবা জীবনের আশা হারিয়ে ফেলা একজন মানুষের মানসিকতাগুলো এই গল্পের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অংশ। চরিত্রগুলোর নিজেদের অনুভূতি নিয়ে সংশয়, সামর্থ্যের সীমাবদ্ধতা, নিজেদের প্রমাণ করার লড়াই ও পরিশ্রম, কঠিন সত্যগুলোকে মেনে নিয়ে সামনে এগিয়ে চলার মত বিষয়গুলোও গল্পে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। কাহিনীর কিছু ত্রুটির মধ্যে ড্রামার আধিক্য অন্যতম। তবে এনিমের কাহিনী একটু সিরিয়াস ধরণের হওয়ায় এই ত্রুটি মেনে নেওয়া যায়। তবে মাঝখানের পর্বগুলো বেশ ধীরগতির আর একই ফ্ল্যাশব্যাক বার বার দেখাটা মাঝে মাঝে বিরক্তিকর লাগতে পারে।

 

চরিত্র :

এই এনিমটি শুধুই আরিমা আর কাওরিকে নিয়ে। আরিমার বন্ধু হিসাবে ওয়াতারি কিংবা প্রতিদ্বন্দ্বী হিসাবে এমি আর তাকেশিকে দেখানো হয়েছে ঠিকই, কিন্তু তারা কেউই তেমন গুরুত্ব পায়নি। সুবাকি আরিমার ছোটকালের বন্ধু, আরিমাকে সবসময় নিজের ছোটভাই এর মত দেখে এলেও একসময় তার প্রতি সুবাকির অনুভূতিগুলো পালটে যায়। এ কারণে সুবাকি যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু কাওরির ঔজ্জ্বলের সামনে সুবাকি অনেকটা ম্লান। এনিমের বাকী চরিত্রগুলো শুধুমাত্র  প্রয়োজনের তাগিদ মিটিয়েছে।

 

মিউজিক ও এনিমেশন:

এনিমের মূল থিম মিউজিক, যেটা তার সবচাইতে শক্তিশালী দিক। আসলে মিউজিকই এই এনিমের সব। কাওরি আর আরিমার বেহালা আর পিয়ানো বাজানোর মিউজিকগুলো তো আছেই; OST, ওপেনিং আর এন্ডিং এর গানগুলোও অসাধারণ। আর তার সাথে যোগ হয়েছে চমৎকার আর্টওয়ার্ক আর বর্ণিল এনিমেশন, যা একই সাথে চক্ষু ও কর্ণের জন্য আনন্দদায়ক।

 

শিগাতসু ওয়া কিমি নো উসো তার কাহিনী দিয়ে হয়তো সবার মন জয় করতে পারবে না, তবে এই এনিমটা প্রমাণ করেছে যে অসাধারণ গল্পই সবসময় শেষ কথা না। মিয়াজোনো কাওরি আর চমৎকার মিউজিকে মন্ত্রমুগ্ধ হওয়ার জন্যই সবার উচিৎ অন্তত একবার হলেও এই এনিমটা দেখা।

16 Shigatsu wa Kimi no Uso

Comments