“Hunter X Hunter 2011″ – Naruto’র সাথে পাল্লা দেওয়ার মত অসাধারণ একটা এনিম — লেখক মো আসিফুল হক


এই এনিমটার নাম কয়েকদিন ধইরাই শুন্তেছিলাম, কিন্তু তেমন বেশী প্রশংসা শুনি নাই, তাই ভাবছিলাম বোধহয় এভারেজ টাইপ কোন এনিম হইব। এক ফ্রেন্ডের পিসিতে দেইখা ভাবলাম, দেখি, কি অবস্থা। প্রথম ২ পর্ব দেখার পরে বাকিটুকু দেখার জন্য অপেক্ষা করতে পারলাম না। এক টানে ৩৭ টা পর্ব ( আপাতত ৪০ পর্ব রিলিজ হইছে) দেইখা ফালাইলাম । দেখার পর চিন্তা করতেছি এই জিনিস আগে দেখি নাই কেন?


Hunter X Hunter 2011 – এইটা আগের Hunter X Hunter এর রিমেক, বানাইছে সেই Madhouse-ই, যারা কিনা Death Note এর জন্য আমার কাছে সবসময়ের জন্য প্রিয়। আমি অবশ্য আগেরটা দেখি নাই, কিন্তু এইটা দেইখাই বুঝতে পারতেছি কেন রিমেক দরকার হইল। :) :)


প্রথমেই কথা হইল, Hunter কি?
এনিমের থেইকাই উত্তরটা দেই –
“Fearsome monsters…Exotic creatures…Vast riches… Hidden treasures…Evil enclaves… Unexplored lands…The word “unknown” holds magic. And some incredible people are drawn to that magic. They are known…as Hunters !”


গন ফ্রিকস তার আন্টির সাথে whale island এ থাকে, বাবা মা নেই। তার বাবা একজন হান্টার, সম্ভবত পৃথিবীর অন্যতম সেরা। তার ছোটবেলা থেকেই লক্ষ্য তার বাবাকে খুজে বের করে তার সাথে দেখা করা। এই জন্য সেও হান্টার হতে চায়। কিন্তু হান্টার হওয়া সহজ কাজ নয়। এই জন্য পরীক্ষার আয়োজন করা হয় যেখানে হাজার হাজার পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। এই পরীক্ষা ভয়াবহ কঠিন, এমনকি মাঝে মাঝে deadly. গন এই পরীক্ষায় অংশ নেয় এবং সেখানেই তার সাথে পরিচয় হয় killua, kurapika, leorio’র সাথে।


killua একটা assasin পরিবারের সন্তান। তার বাবা মার ইচ্ছা ছেলে বিশাল এসাসিন হবে- তার সেই টেলেন্টও আছে। কিন্তু কিলুয়ার ইচ্ছে সে বন্ধু বানাবে,খুনোখুনি তার পছন্দ নয়। সেই জন্য সে ঘর থেকে পালিয়ে যায় এবং হান্টার এক্সামে অংশ নেয়। কুরাপিকা এবং লেওরিও – গনের বন্ধু হলেও কিলুয়াই একমাত্র তার সাথে থেকে যায়।


kurapika’র সমগ্র race কে একটা সন্ত্রাসী সংগঠন হত্যা করে শুধু তাদের চোখ বিক্রি করার জন্য- যেই চোখের আলাদা ক্ষমতা আছে বলে বিশ্বাস করা হয়। কুরাপিকা তার সমগ্র রেইসের পক্ষে প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য হান্টার হতে চায়।


leorio’র এক বন্ধু তার সামনে রোগে মারা যায় অর্থের অভাবে। তাই লেওরিও হান্টার হতে চায় টাকা উপার্জনের জন্য।


এই পর্যন্ত চরিত্রগুলার বর্ণনা শুনে এনিমটা নিয়া কারোরই খুব একটা আগ্রহ জাগে নাই মনে হয়, জাগার কথাও না। প্রথম কয়েক পর্ব এইখানেই সমস্যা, কাহিনীটা গড়ে উঠতে কিছু সময় লাগে।


কিন্তু একবার চরিত্রগুলোর বর্ণনা শেষ হইলে হান্টার এক্সামের মারামারি কিংবা সাস্পেন্স- দুর্দান্ত। আর এক্সাম শেষের পর গন আর কিলুয়ার অভিযান- সেইটা আরও বেশী দুর্দান্ত।
সামনে আশা করি আরও ইন্টারেস্টিং কিছু আসবে- এখন পর্যন্ত পাওয়া আভাস- এবং এনিমটার মাঙ্গা তাই বলে। :) :) :)
এনিমটার সবচেয়ে ভাল দিক এর প্লট। যথেষ্ট গভীর এই এনিমে শুধু মেইন ক্যারেক্টার কেই হাইলাইট করা হয় নাই- বরং প্রত্যেকটা ক্যারেক্টারের বর্ণনা এমনভাবে দেওয়া হয়েছে যে প্রত্যেকটা ক্যারেক্টারকেই আপনি ফিল করতে পারবেন। আর ফাইট সিনগুলা যথেষ্ট ডিসেন্ট।


তাহলে আর দেরি কেন? এখনই দেখা শুরু করে দিন এই অসাধারণ এনিমটি। অনলাইনে দেখার জন্য এখানে ক্লিক করতে পারেন।


হ্যাপি এনিমিং !!! :) :) :)

Comments

comments

Leave a Reply