Yowamushi Pedal [রিভিউ] — Farah Faruque

YowaPeda 1

আনিমে: এক দুর্বল দ্বিচক্রযানচালক (সোজা বাংলায় Yowamushi pedal)
পর্বসংখ্যা: ৩৮ +২৪ (দুটো সিজনে)

(একটি রিভিউ অথবা রিয়েকশন অথবা অন্য কিছু ছাতামাথা)

গল্পের শুরু আপনার আমার মত এক আনিমেখোর কে নিয়ে, নিতান্ত নিরীহ শান্তশিষ্ট বালক সাকামিচি ওনোদা ( যার নামের অর্থই পাহাড়ি পথ) আনিমে বড্ড ভালোবাসে, এতই ভালোবাসে যে ভালোবাসা সব আনিমের পিছে খরচ করায় বেচারা মিডল স্কুলে একটা বন্ধুও যোগাড় করতে পারেনি, তাই হাইস্কুলে এসে সে ঠিক করে এবার সে বন্ধু বানিয়েই ছাড়বে কিন্তু কেস হচ্ছে এখানেও তার আনিমুখোর বন্ধুই চাই! আর সেজন্য সে টার্গেট হিসাবে ঠিক করে আনিমে ক্লাবকে! কিন্তু কপালে না থাকলে কি আর হয়?? বেচারা মনে বড় কষ্ট নিয়ে ফেরত আসে, স্কুলের আনিমে ক্লাব যে লোকের অভাবে বন্ধই হয়ে গেছে! এমনি সময়ে স্কুলের হটশট ইমাইজুমি এসে এই নিতান্ত হাবুটাকেই কিনা চ্যালেঞ্জ করে বসে স্কুলের পিছন গেটের নিচে খাড়া পাহাড়ি ঢালে বাইক রেস লাগানোর! ওনোদার সম্বল বলতে একটা পুরোনো মামাচারি, অর্থাৎ কিনা গ্র‍্যানি বাইক, আর ইমাইজুমি রেসের পর রেস দাপিয়ে বেড়ায় তার রেসার বাইকে! তা হঠাৎ এমন রেসার খোকার এমন নিরীহ শিশুর পিছে লাগার কারণই বা কি? কারণ খোকাবাবু ইমাইজুমি যে বেচারা ওনোদা কে ওই ঢালেই “হিমে হিমে” গাইতে গাইতে বাইক চালিয়ে স্কুলে আসতে দেখে ফেলেছিল! (এবং এরপর এই গান আর সে মাথা থেকে বেরই করতে পারছিল না বুঝুন অবস্থাটা! প্রথমে কিছুতেই রাজি না হওয়া ওনোদা ইমাইজুমির ফাঁদে পা দেয় যখন ইমাইজুমি হেরে গেলে আনিমে ক্লাবে জয়েন করার প্রস্তাব দেয়! এই রেস দিয়েই শুরু হয় সাইক্লিং এর দুনিয়ায় ওনোদার যাত্রা

পুরো আনিমে জুড়ে যে জিনিসটা চোখে পড়েছে তাহল ক্যারেক্টার ডেভেলপমেন্ট, যে চরিত্রটাকে প্রথমেই সাইড ক্যারা বলে বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছিলাম তার গল্প, তার ডেভেলপমেন্ট ও মুগ্ধ করেছে শেষে, আর দশটা আনিমের মত শুধু মেইন ক্যারেক্টার বা তার টিমের উপরেই আলো ধরে রাখেনি, প্রতিপক্ষের ছেলেরাও নজর পেয়েছে ভালোই, আরো মজা হচ্ছে এই ডেভেলপমেন্ট গুলোও হয়েছে কিন্তু চরম উত্তেজনায় ভরা একেকটা রেসের মাঝেই! তাতে রেসগুলি স্লো হয়ে গিয়েছে অনেক, কিন্তু চরিত্রগুলো ফুটে উঠেছে ভালোভাবে, এই ডেভেলপমেন্ট এর জন্য এই স্লো পেসিং কে মাপ করে দেওয়াই যায়। পুরো সিরিজ দেখার সময় মনে হয়েছে “মেইন টিম” হিসেবে সোহোকুর প্রতি একচোখামি করা হয়েছে এখানে অনেক কম, এতই কম যে মাঝপথে এসে প্রতিদ্বন্দ্বী হাকোগাকু টিম কেই মেইন টিম বলে মনে হচ্ছিল এবং নিজের অজান্তেই হাকোগাকুর জন্যেই চিয়ার করে যাচ্ছিলাম!! (যারা দেখবেন তাদেরও এমন হবে বলেই বিশ্বাস) হাকোগাকু টিমের মাঝেই তোদোউ এর মাকি-চান অবসেশন দেখে যেমন মজা পাবেন, তেমনি মানামির (সানগাকু মানামি, খোকার নামটাও সুন্দর, নামের অর্থ ঢেউ পাহাড়ের প্রেম!) মুক্ত স্বাধীন যেন ডানা মেলে উড়ে চলা বাইক চালানোও ভাল্লাগবে অনেক, (তার হাসিটাও কিন্তু সুন্দর!) তবে এদের সবার চেয়ে যার ডেভেলপমেন্ট মুগ্ধ করেছে সে হল টিমের মুখখারাপ সেনপাই আরাকিতা-সান, তার গল্প নাহয় তুলেই রাখি, সবাই বরং দেখুক সেনপাই এর ব্যাডঅ্যাসনেস দ্বিতীয় সিজনে

তবে এতজনের পরেও টিকটিকি আকিরা মিদোসুজির (ওরফে কিমোসুজি) কথা না বললেই নয়! এই এক ব্যাটাই বুঝি আছে পুরো সিরিজে যাকে দেখলেই মনে হত পুঁতে ফেলি নিচে, গা গুলাতো রীতিমতো তার চেহারা টা দেখলেই! যদিও দ্বিতীয় সিজনে তার পেছনের গল্প মন খারাপ করে দেয় কিছুটা

গল্পের উত্তেজনার সাথে মানানসই ওপেনিং-এন্ডিং আনিমে টা ভালো লাগাতে হেল্প করেছে অনেক, প্রথম সিজনে তৃতীয় ওপেনিং আর এন্ডিং শুনতে গিয়ে মজাও পেয়েছি অনেক, ওপেনিং টা যে টিম সোহকু আর এন্ডিং যে টিম হাকোগাকুরই গাওয়া! এখানেও হাকোগাকুর জিত! ওদের গানই ভালো লেগেছে বেশি!!

সব মিলিয়ে সদ্য শেষ হওয়া হাইকিউ এর মজা মিস করতে থাকলে দ্রুত দেখে ফেলুন এর দুটো সিজন, নতুন সিজন যে এই জানুয়ারি তেই চলে আসছে!!! ২০১৭ তে ইওয়ামুশির নতুন সিজনের পাশাপাশি হাইকিউ এরও যদি নতুন সিজন আসে, তাহলে বেস্ট স্পোর্টস ক্যাটেগরি তে ভোট দিতে মাথা চুলকে সারা হওয়াই লাগবে!

রেটিং: ৮.৫ / ১০

YowaPeda 2

Comments

comments