Fullmetal Alchemist Brotherhood (FMAB) ফ্যান ফিকশন #2 — Rahat Rubayet

——– Fullmetal Alchemist Brotherhood (FMAB) ফ্যান ফিকশন ——–
Part 2:
———————–

দুঃস্বপ্নের রেশটুকু ধীরে ধীরে কেটে যেতে থাকলো সকাল হতে না হতেই। সেই সুন্দর মিষ্টি একটা আবহ ঘুরঘুর করছে যেন গোটা বাড়ি জুড়ে। উইনরি নিজের মনমত একটা ব্যখ্যা দাড় করিয়েছে অবশ্যএর পেছনে। এড বা শেলী যে কেউই কাছাকাছি থাকলে কিভাবে কিভাবে যেন বুঝে ফেলে ও। ওদের গায়ের গন্ধই আর ১০ জনের থেকে আলাদা আর আপন আপন লাগে উইনরির কাছে। যতক্ষণ ওরা কাছেপিঠে থাকে, ভালোলাগার অবসন্ন একটা ভাব ভর করে থাকে গোটা অস্তিত্ব জুড়েই। উইনরির কাছে মাঝেমাঝে ঘোরের মতন বোধ হয় গোটা ব্যপারটা। এতো প্রশান্তির এতো সুখের আর সাজানো গোছানো সংসার নিয়ে প্রতিনিয়তই কেন যেন ভীতি কাজ করে ইদানীং ওর।
এতো সুখ সইবে তো? এমন নির্ঝঞ্ঝাট সংসারের স্বপ্ন সবাই দেখে- সব্বাই। কিন্তু বাস্তবে দীর্ঘ সময়কাল ধরে তার প্রতিফলন কেমন যেন অস্বস্তির জন্ম দেয়। উইনরি অস্বস্তির ভাবটুকু কাধ ঝাঁকিয়ে ফেলে দেয়। রান্নার জন্য যে বাড়তি কাপরটা গলায় পেচিয়ে রাখে তা খুলতে খুলতেই মিষ্টি আর বহুল পরিচিত একটা গন্ধ এসে ধাক্কার মতন লাগলো নাকে।
এড পারফিউম ইউজ করছে। এডের সবকিছুই উইনরির ভালো লাগলেও, এই পারফিউমটার প্রতি কেন যেন ভালো লাগা বোধ টা অস্বাভাবিক মাত্রায় কাজ করে। উইনরির মাথা ঝিমঝিম করতে থাকে। স্মিত প্রশান্তির হাসি নিয়ে খাবার ঘরটা পার হয়ে বেডরুমের দরজার গায়ে হেলান দিয়ে দেখছে এড শেলীকে রেডি করিয়ে দিচ্ছে স্কুলের জন্য। শেলীর দিকে তাকিয়েই কেমন যেন বুকের একপাশটা হুহু করে উঠলো ওর। কাল রাতের দুঃস্বপ্ন টা হটাত যেন চোখের সামনে জীবন্ত দেখতে পাচ্ছে। জোর করে হাসিটা ধরে রেখে বাকি সব চিন্তা মাথা থেকে দূর করে দিতে চাইলো ওর।
শেলী ঘুরে তাকালো, সোনালী বড় বড় চুল আর মায়াকাড়া চোখে এড আর উইনরি ছাড়াও এডের মায়ের একটা ছাপ দেখা যায় কেমন যেন। উইনরি নিজের স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। এড আর শেলীকে বিদেয় দিয়েই বরাবরের মতন ঘরদোরের কাজে ব্যস্ত হয়ে পরে ও।
দেখতে দেখতে বেলা গড়িয়ে যায়। এ কাজ ও কাজ করতে করতে মনের আনন্দে প্রজাপতির মতন উড়তে থাকে যেন উইনরি। গুনগুন করতে করতেই ঘড়ির দিকে তাকায়।
আসার সময়ে হয়ে এসেছে ওদের। ভালো লাগার তীব্রতা বাড়তে শুরু করেছে, রোদের ভাবটা কমতে শুরু করায়। সামনের উঠোনের পারের স্মোক ট্রি গুলোর কাছে এসে বাতাস টা উপভোগ করতে থাকে উইনরি। উইনরির চিন্তার ডালপালা ক্রমশ বড় হতে থাকে। জীবনের বিভিন্ন সময়ের ঝড়ঝাপটা, আর শেষে এসে এডের সাথে থিতু হওয়া। সময়গুলোর ভেতরে জীবনের অপ্রাপ্তির কিছু খোজার চেষ্টা করে না উইনরি। একাএকা এই যে ওদের জন্য অপেক্ষা করছে, সে সময়টাও কি অদ্ভুত ভালো লাগা কাজ করতে থাকে ওর ভেতর।
ওদের দেরি দেখে উইনরি ঘরে ঢুকে সোফার ওপর বসে, মখমলের হাতলের ওপর এক কনুই ভাজ করে রেখে কাত হয়, সোনালি চুলগুলো একপাশে টেনে আনে। আচ্ছন্নবোধ টা কাটে দরজায় শব্দ শুনে। উইনরি উঠে গিয়ে দরজা খুলে শান্ত ছোট ছোট পা ফেলে। মুখে একগাল হাসি ধরে রেখেই কপট রাগ ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করতে করতে দরজা খোলে।
এড দরজার বাইরে দারিয়ে আছে,দু হাতে পাজোকালো করে শেলীকে ধরে। শেলীরকানের পাশ দিয়ে রক্তের মোটা ধারা শুকিয়ে এসেছে। রক্তের দাগ স্কুল-ইউনিফর্ম জুড়েই। উইনরি এডের চোখের দিকে একবার তাকায়, আবার পরক্ষনেই শেলীর দিকে তাকায়। উইনরির কাছে গোটা ব্যাপারটাই দুঃস্বপ্নের মতন মনে হতে থাকে।

———————–

Comments

comments