Mushoku Tensei [লাইট নোভেল/ওয়েব নোভেল রিভিউ] — তৌফিক সরকার

Mushoku Tensei 2

মুসোকো তেনসাই: ইসসেকাই জনরার এক গল্প

বর্তমানে জাপানির লাইট নভেলে যে ধরনের গল্প রাজ্যত্ব করেছে, সেটা হচ্ছে ইসসেকাই বা অন্য জগতকে নিয়ে গল্প। যেখানে সিরিজের মূল নায়ক তার জগত ছেড়ে অন্য আরেক জগতে চলে গিয়েছে এবং সেখানে খারাপদের বিরুদ্ধের যুদ্ধে নেমেছে।
এর আগে যারা লাইট নভেল সম্পর্কে জানেননা তাদের একটা হালকা ধারণা দিয়ে রাখি। লাইট নভেল হচ্ছে জাপানি ইয়াং অ্যাডাল্ট ফিকশন। মূলত কিশোর-কিশোরীদের কেন্দ্র করে এই নভেল লেখা হয়। নভেলের পরিধি থাকে ৪০,০০০ হাজার থেকে ৫০,০০০ হাজার শব্দের মধ্যে, অবশ্য এরচেয়ে বেশি শব্দের উপন্যাসও হয়ে থাকে।
আর লাইট নভেলগুলো মূলত ফ্যান্টাসি জনরার হয়ে থাকে (জাপানিরা আবার ফ্যান্টাসির চরম ভক্ত)। অবশ্য সামাজিক জীবন, সাই-ফাই জনরার কিছু লাইট নভেলও আছে। সেগুলোর আলোচনা পরে হবে। এখন মুসোকো তেনসাই সিরিজ নিয়ে কথা হয়ে যাক—

কাহিনী সংক্ষেপ:
উপন্যাসের কাহিনী শুরু হয় এক জাপানি ওতাকু নীট নিয়ে (ওতাকু মানে গীক, জাপানে যারা অ্যানিমে, লাইট নভেল, মাঙ্গা নিয়ে পড়ে থাকে তাদের ওতাকু বলে। আর নীট [NEET] No Education, Earn & Training সহজ কথায় ঘরে বসে থাকা লোকদের নীট বলে থাকে)। সে তার মৃত বাবা-মা অন্ত্যষ্টোক্রিয়ায় না অংশগ্রহণ করে নিজের রুমে বসে পর্ন দেখছিল। এর ক্ষিপ্ত হয় তার ভাই-বোনেরা। নায়ককে মেরে-ধুরে তাকে ঘর থেকে বের করে দেয়।
রাস্তায় নামার পর নায়ক তার ভুল বুঝতে পারে। রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে আক্ষেপ করতে থাকে তার ভুলগুলো নিয়ে, কিন্তু কিছু করার থাকেনা তার। ঠিক সেইসময় রাস্তার মাঝখানে দাঁড়িয়ে তর্ক করছিল তিন কিশোর-কিশোরী, আর একটা ট্রাক তাদের দিয়ে ধেয়ে আসছে, সেদিকে তাদের ভ্রুক্ষেপ নেই। তিন কিশোর-কিশোরীদের ট্রাক চাপার হাত থেকে বাঁচাতে গিয়ে সে পড়ে যায় ট্রাকের নিচে…
নায়ক মনে করেছিল এখানেই তার কাহিনী শেষ, কিন্তু না— সে চোখ খুলে দেখতে পারে সে একজন মহিলার কোলে। সদ্য ভূমিষ্ঠ হয়েছে সে। বুঝতে পারে শুরু হয়েছে তার নতুন জীবন।
নায়ক যে জগতে জন্ম নিয়েছে সেটা ছিল জাদুর জগত, যেটা কিনা শুধু ফ্যান্টাসি উপন্যাসের পাওয়া যায়। যেখানে সাধারণ মানুষের জাদুর ক্ষমতা আছে, আছে ডেমন জাতি থেকে শুরু করে ডেমি হিউম্যান জাতি। আর সেই জগত মাত্র কয়েকশ বছর আগে বিশাল যুদ্ধ থেকে ফিরে এসেছে, এবং শান্তির সাথে বসবাস করছে।
সেই জগতে নায়কের নাম হয় রুডিয়াস, আর সেখান থেকেই শুরু হয় তার নতুন উপাখ্যান।
ছোট বেলা থেকেই রুডিয়াসের জাদুর প্রতিভা বের হয়, খুশি হয় তার বাবা-মা। জাদুর শিক্ষকের জন্য আবেদন জানায় তারা। এর আগে রুডিয়াসের বাবা-মার সম্পর্কে একটু আলোকপাত করি, দুজনই সম্ভ্রান্ত পরিবার থেকে থেকে এসেছে, রুডিয়াসের বাবা পল গ্রে-র‍্যাটের পরিবার ছিল রাজার কাছের লোক এবং সম্রাজ্যের প্রভাবশালী পরিবার, আর মা জেনিথ ছিলেন অন্যরাজ্যে এক প্রভাবশালী ল্যাটেরিয়া পরিবারে মেয়ে যারা কিনা পোপের (খৃষ্টিয় ধর্মের আদলে হলে সম্পূর্ন আলাদা ব্যাপার এটা।) কাছাকাছির লোক ছিল। তারা পালিয়ে বিয়ে করায় পরিবারের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যায় এবং পলের দুঃসম্পর্কের চাচাতো ভাইয়ের সাহায্যে পল দূরে ছোট এক গ্রামের জমিদারি পায়।
এক জাদুকর আসে, রুডিয়াসকে জাদু শেখানো জন্যে। নাম রক্সি, জাতি ডেমন। ডেমন জাতির হওয়ার কারণের রুডিয়াসের বাবা-মা প্রথম ইতস্তত করলেও রাজী হয় তারা। কারণ রক্সি যে জাতির ডেমন ছিল, তারা ছিল ছোট-খাট আর নিরীহ ধরনের।
রুডিয়াস পেয়ে গেলো তার জাদুর শিক্ষক, আসলে শিক্ষিকা। ছোট খাট ডেমন এই রক্সির সাথে রুডিয়াসের সম্পর্ক খুব ভালো হয়ে যায়, এবং ভালো বন্ধুত্বে পরিণত হয়। যখন রুডিয়াসের বছর পাঁচ তখন রক্সির জানা যত জাদু ছিল সে তার শিখে ফেলে। রক্সি তখন বুঝতে পারে তার জাদুর জ্ঞান এখনো অনেক সীমিত, সে বেরিয়ে পড়ে ভ্রমণে। যাওয়ার আগে পরামর্শ দিয়ে যায় যে রক্সির পড়া জাদুর বিশ্ববিদ্যালয়তে রুডিয়াস যেন অবশ্যই ভর্তি হয়।
তারপরে ঘটে যায় আরেক ঘটনা, রুডিয়াসের বাবা পল, জেনিথের সাথে সাথে চাকরানী লিলিয়াকে অন্তসত্ত্বা করে ফেলে, ফলে পরিবারের মধ্যে ভাঙ্গন আসতে শুরু করে। আগের জীবনের ঘটনার কথা মনে পড়ে যায়, কিভাবে তার পরিবারে মধ্যে দূরত্ব চলে আসে এমং সেটা কত কষ্টের, রুডিয়াস নিজেই এই ভাঙ্গন থামায় এবং জানায় যে লিলিথকে মা হিসেবে নিতে সমস্যা নেই তার। জেনিথকেও মেনে নিতে বলে সে। পরিবারে ভাঙন থামে, দুই বোনের ভাই হয় সে।
এরপর পরিচয় এক মেয়ের সাথে, নাম সিলফিট্টে সংক্ষেপে সিলফি। হাফ এল্ভস আর হালফ ডেমিহিউম্যান আর মানুষের সংমিশ্রণ সে। তার সাথে বন্ধুত্ব হয় এবং সেটা বন্ধুত্বের একটু বেশিতে গড়ায়। রুডিয়াস তার বাবার কাছে দাবী করে যে সে আর সিলফি মিলে জাদুর বিশ্ববিদ্যালয়ে যাবে। কিন্তু ছোট জমিদার হিসেবে রুডির বাবার ক্ষমতা ছিল একজনকে পড়ানোর। পল তখন জানায় যে, সে শুধু রুডিয়াস মানে রুডির খরচ দেয়ার সামর্থ্য আছে, সিলফির নেই। যদি চায় তাহলে নিজ থেকে খরচ আনতে হবে। রাজী হয় রুডি। বাবা তাকে পাঠিয়ে দিয়ে সে চাচাতো ভাইয়ের কাছে, সেখানের পরিচয় হয় এরিস গ্রে-র‍্যাট নামের এক এটম বোম মেয়ের সাথে।
প্রথম দিনই এরিসের হাতে ধোলাইখুড়ি হয় রুডির । কিন্তু রুডির চালাকি আর সাহসীকতার কারণে এরিসের সাথে বন্ধুত্ব হয়ে যায়, সেটা আবার বন্ধুত্বের চেয়ের একটু বেশি (মেয়েদের পিছনে ছোক ছোক করার স্বভাব সে তার বাপ পলের কাছে থেকেই পেয়েছে)!
সবকিছুই চলছিল ভালোভাবে, হঠাৎ ঘটে যায় এক দূর্ঘটনা। বিশাল এক টেলিপোর্ট ইন্সিডেন্ট ঘটে যায়। হয়ে যায় সবকিছু এলোমেলো। রুডি নিজেকে আবিষ্কার করে ডেমন কন্টিনেন্টে তার সাথে শুধু এরিস। স্বপ্নে দেখা দেয় হিতোগামি (বাংলা বললে মানব দেবতা) নামের এক রহস্যময় দেবতা। সে পরামর্শ দেয়, রুইজার্ড নামের ডেমনের সাথে থাকতে সেই নাকি তাদের ডেমন কন্টিনেন্ট থেকে মানুষের কন্টিনেন্টে পাঠাতে সাহায্য করবে। কিন্তু রুইজার্ড হচ্ছে সাপ্রাডিয়া জাতির ডেমন, যারা কিনা কুখ্যাত। শুরুতেই রুডিয়াস সন্দেহ করে বসে হিতোগামিকে। তারপরেও রুডি রুইজার্ডের সাহায্য নেয়।
ভুল ভাঙ্গে রুডির, রুইজার্ড আসলে দয়ালু প্রকৃতির, তবে সেটা বাচ্চাদের বেলায়। রুডি, এরিস আর রুইজার্ড মিলে ডেমন কন্টিনেন্ট থেকে যাত্রা শুরু করে মানব কনিনেন্টের উদ্দ্যেশে। মাঝখানে দিয়ে জানতে পারে রুইজার্ডের অতীত আর দূর্ভাগ্য নিয়ে। সমব্যাথিত হয় রুডি, এরিস আর খুব ভালো বন্ধুত্বে পরিণত হয় তারা।
এর মাঝে হিতোগামি নামের সেই রহস্যময় দেবতা রুডির কাছে বেশ কয়েকবার আসে, তাকে বিভিন্নভাবে সাহায্য করে। কিন্তু দেবতার সন্দেহময় আচরণের কারণে রুডি তাকে বিশ্বাস করতে পারেনা। একসময় তারা এসে পরে মানব কন্টিনেন্টে, দেখা পায় তার বাবা আর নিজ মায়ের পক্ষের ছোট বোন নর্নের, জানতে পারে সেই বিশাল টেলিপোর্টেশোনের কারণে রুডিয়াসের পরিবার আলাদা হয়ে গিয়েছে, মা— জেনিথ, সৎ মা ও বোন— লিলিয়া ও আশিয়া।
হিতোগামির সাহায্য সে তার সৎ মা ও বোনকে খুঁজে পায়। আর এরপরেই চলে যায় এরিস, কারণে সে মনে করে রুডিয়াসের যোগ্য সঙ্গী হবার যোগ্যতা নেই তার। এছাড়া টেলিপোর্টেশন ঘটনার কারণে তারা বাবা-মাও মারা গিয়েছে, এরিস তার তলোয়ার চালানোর শিক্ষিকাকে নিয়ে বের হয়ে পরে অভিযানে যাতে সে রুডিয়াসের যোগ্য সঙ্গী হতে পারে। রুডিয়াসকে না জানিয়েই চলে যায়।
হতাশ হয়ে যায় রুডি। তার বাবা সৎ মা আর বোনকে নিয়ে চলে যায় জেনিথের খোঁজে। আর রুডি একা একা অ্যাডেভাঞ্চারার হিসেবে ঘুরতে থাকে। আবার আসে হিতোগামি, সে পরামর্শ দেয় জাদুর ইউনিভার্সিটিতে যেতে। রুডি তা মেনেই যায়, এতদিনে সে হিতোগামিকে হালকা বিশ্বাস করা শুরু করেছে। সেখানে যায়, অনেক কাহিনীর পর সিলফির সাথে দেখা হয়, তার সাথে বিয়ে হয় রুডির। সুখের সংসার শুরু হয়েছে, বাবা হবে সে তখনই জানতে পারে, তার বাব পল খুঁজে পেয়েছে জেনিথকে। রুডি ছুটে চলে যায়, হিতোগামির সাবধানতা ও হুমকি না গ্রাহ্য করেই।
মাকে উদ্ধার করে, কিন্তু বাবাকে হারায় সে, আর দেখা হয় তার জাদুর শিক্ষিকা রক্সির সাথে। মা জীবিত আছে কিন্তু আশেপাশে জগত সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই, বাবাও চলে গেছে না ফেরা দেশে, হতাশ হয়ে পড়ে সে, রক্সি সঙ্গ দেয়। সিলফির অনুমতিতেই রক্সিকে বিয়ে করে রুডি। আবার সুখের জীবনে চলে যায়।
কিন্তু এক ভয়ংকর সত্য জানতে পারে রুডি, হিতোগামি তার বন্ধু সেজে থাকলেও সে আসলে শত্রু। সে চায় রুডির পরিবারকে ধ্বংস করে দিতে। রুডি যখন মরিয়া হয়, তখন হিতোগামি জানায় সে যদি ড্রাগন গড ওরস্ট্রেড কে পরাজিত করতে পারে তাহলে হিতোগামি রুডিয়াসের পরিবারকে ছেড়ে দিবে। কিন্তু ড্রাগন গড ওরস্ট্রেড হচ্ছে পুরো মানব আর ডেমন কন্টিনেন্টে শক্তিশালী। তার সাথে লড়াই করে এই পর্যন্ত কেউ জিততে পারেনি।
এখন রুডিয়াস কি পারবে পুরো ডেমন গড ওরস্ট্রেডকে হারাতে? পারবে হিতোগামির জাল থেকে বের হতে? পারবে তার পরিবারকে বাঁচাতে?
এটা নিয়েই আগায় মুসোকো তেনসাইয়ের কাহিনী।

Mushoku Tensei 1

অনেক বড় হয়ে গিয়েছে তাই না?
আসলেই, কারণে এটা প্রথম ষোল ভলিউমের কাহিনী সংক্ষেপ। আমি যতটুকু পেরেছি স্পয়লার এড়িয়েই লিখেছি, অল্প কিছু যা দিয়েছি সেটা কাহিনীর গুরুত্বপূর্ণতা উল্লেখ করতেই। এবার আসি আলোচনায়।
এই সিরিজ প্রথম প্রকাশ হয় ওয়েবে। সোয়েতসু নামে একটা ওয়েব সাইটে প্রকাশ হয় সিরিজটি (ওই সাইট থেকে অনেক হিট লাইট নভেলও বের হয়েছে এবং সেগুলোর অ্যানিমেও বের হয়েছে)। এরপর সেখান থেকে লাইট নভেল আকারে বের হয়। আই অবশ্য ওয়েব নভেলের প্রেক্ষিতেই আলোচনা করছি।
প্রথমেই আসি কাহিনী সম্পর্কে, প্রথম দিকে একটু কাঁচাভাব থেকেইগিয়েছিল সিরিজের বেলায়, হয়তো লেখকের প্রথমে লেখা বলেই, কিন্তু আস্তে আস্তে লেখকের লেখনীর মাঝে দক্ষতা এসেছে এবং সেটা পাঠক টেনে রাখার মত করেই। আর কাহিনীর প্ল্যানিং দেখলেই আপনি অবাক হবেন, শেষের দিকে এসে মনে হবে— আরে আমি কী আরেকটা কাহিনীর ভূমিকা পড়ছি নাকি? নায়ক কি আরেক নায়কের জন্য সবকিছু তৈরী করে রাখছে নাকি? আর শেষের টুইস্টটা ছিল অসাধারণ।
আর যে জিনিষটা ভালো লেগেছে সেটা হচ্ছে নায়কে চরিত্রের ধীরে ধীরে উন্নতিটা। একদিনের কেউ লিজেন্ড হয় না, অনেক পরিশ্রম আর ত্যাগ তিতিক্ষার পর লিজেন্ড হয় সেটা লেখক নায়কের মাধ্যমেই বুঝিয়েছেন। লেখক নায়ক রুডিকে ধীরে সুস্থেই শক্তিশালী করেছেন, হুট করেই না।
জাপানিজ লাইট নভেলে যেটা দেখা যায়, একটা বইয়ের মধ্যে সব ঝামেলা মিটিয়ে আরেক বইয়ে আরেকটা ঝামেলা নিয়ে আসে। আর লেখক মুসোকো তেনসাইয়ে সেই ঝামেল কীভাবে আসলো, কীভাবে সমাধান হবে সেটা খুব সুন্দর সাবলীল ভাবে দেখিয়েছে এবং সেখানে তাড়াহুড়ো আনেনি যেটা অন্যলাইট নভেল লেখকরে করে থাকেন।
কিছু ব্যাপার খারাপ লেগেছিল, অবশ্য সেতা উল্লেখ করতে নভেলের স্পয়লা হয়ে যায়। তবে যেটা উল্লেখ করলেই নয়, সেটা হচ্ছে নায়কের বিয়ে— আসলে তিন নায়িকাই ছিল বেস্ট, তবে রক্সি আর এরিসে ব্যাপারে একটু মনোযোগ দিলে ভালো হত, কারণে হুট অনেকদিন পর দেখা হল তারপর হল বিয়ে, এটা মানা যায়নি। সিলফি কিন্তু আবার অনেক সুযোগ পেয়েছে।
এবার আসি চরিত্রের বেলায়, লেখক এখানেও নিজের দক্ষতার সাথে চরিত্রগুলো সাজিয়েছেন, এবং প্রতিটা চরিত্র যাতে পাঠকের মনে ছাপ ফালাতে পারে সেই দিকেও ভালো নজর দিয়েছেন। তবে একটা ব্যাপার খারাপ লেগেছিল সেটা হচ্ছে নায়ক এক নায়িকার সাথে থাকাকালীন বাকী দুই নায়িকার কথা ভুলে গিয়েছিলেন, মাঝে মধ্যে হয়তো মনে করেছেন কিন্তু পরে আবার ভুলে গিয়েছিলেন।
তবে নায়কের চরিত্রের বেলায় যে লেখক অনেক মনোযোগী ছিলেন সেটা পরিষ্কার বুঝা গিয়েছিল। তিনি সাধারণ লাইট নভেল নায়কদের মত হালকা বোকা-সোকা বা সম্পূর্ণ পার্ভাট না বানিয়ে। চালাক চতুর এর সাথে অনেক পার্ভাট বানিয়েছেন। যদিও সে একদিক দিয়ে সৎ ছিল, তিন বউ ছাড়া সে আর কোনো মেয়ের দিকে এগোয়নি, একটু উল্টা-পাল্টা চোখে তাকালেও সে তাদের কাছাকাছি যায়নি, এমনকি এক মেয়ে সিডিউস করার পরেও। এই কারণে তাকে বাহবা দিতে হয়, তাছাড়া বাবা হিসেবে নায়কের তুলনা ছিলনা, নিজের ছেলে মেয়ের জন্যে নিজের প্রাণ বিকিয়ে দেয়ার জন্যে প্রস্তুত ছিল সে।
নায়িকা হিসেবে সিলফির তুলনা হয়না (আমার ফেভারিট সে!)। মহৎ না হলে নিজের স্বামীকে আরো দুইটা বিয়ে করতে দেয় এবং তাদেরকে নিজের বন্ধুর করে মত নেয় (ভাগ্যিস ইন্ডিয়ান সিরিয়াল ছিল না এটা, তাহলে চুলোচুলি লাগিয়ে দিত ডিরেক্টর)। তাছাড়া নায়কের পরিবার মানে,অসুস্থ মা, দুই বোন আর সৎ মায়ের সাথেও মানিয়ে নিয়েছে। যতটুকু পেরেছে রুডিয়াসকে সাহায্য করেছে। এমন মেয়ের কী আর কারো সাথে তুলনা দেয়া যায়!
রক্সি ছিল সব চেয়ে আন্ডার লাইটে। পুরো সিরিজেই সে আন্ডার লাইটে রাখা হয়েছে যেটা তেমন ভালো লাগেনি।
এরিস, প্রথমে তার উপর অনেকেই রাগ করতে পারে। হুট করে চলে যাওয়াতে আরো ক্ষেপে যেতে পারেন অনেকেই। কিন্তু সেই মনে হয় বাকী দুইজনের চেয়ে সে রুডিকে বেশি ভালোবাসতো, মুখে প্রকাশ না করতে পারলেও সে হাতে প্রকাশ করেছিল! আর তার ডেডিকেশন দেখে নায়ক নিজেও অনেক হতবাক হয়েছিল।
এছাড়া আরো অনেক ইন্টারেস্টিং চরিত্র আছে, তাদের নিয়ে কথা-বার্তা বলতে গেলে লেখা আরো বড় হয়ে যাবে। তাই সিরিজটা পড়ে নিয়ে তাদের সম্পর্কে জানালে ভালো হয়।

এবার আসি কেন পড়বেন?
আমার প্রশ্ন হল কেন পড়বেন না? এমন সিরিজ সত্যি কথা বলতে হাতে গোণা কয়েকটা পাবেন। যেটা টিপিকাল পথে চলেও আলাদা একটা ভূমিকা রেখেছে।
লাইট নভেলে এমন কোন নায়ককে পাবেন, যে নিজের ভালোবাসার কথা সরাসরি প্রকাশ কয়েছে, নিজের পরিবার নিয়ে ব্যস্ত থেকেছে। হাজার রকমে বিপদে ঝাঁপিয়ে পড়েছে শুধু নিজের পরিবারকে রক্ষা করার জন্যে।
রিডার্স ব্লকে আছেন? তাহলে একবার পড়ে দেখেন রিডার্স ব্লকটা কাটে কিনা।
নতুন কিছুর খোঁজে আছেন? তাহলে একবার ধরে দেখেন এটা আপনার তেষ্টা মেটাতে পারে কিনা।
আমি নিশ্চিত হয়ে বলতে পারি এই সিরিজ আপনার চাহিদা মেটাতে পারবে। পড়ার পর মনে হবে যাক অনেকদিন পর একটা ভালো কিছু পড়লাম।
আর লেখা বাড়াবো না কারণ অনেক বড় হয়ে গিয়েছে। আশা করি আপনারা এই সিরিজ পড়ে অনেক আমোদিত হবেন আপনারা।
ছবিতে:
লাইট নভেলের ভলিউম একের কভার। কভারে পল, জেনিথ, রুডিয়াস, লিলিয়া , রক্সি আর সিলফিট্টে।
ভলিউম তের কভার। কভারে, রুডিয়াস, সিলফিট্টে— কোলে তাদের বাচ্চা, রক্সি, জেনিথ, লিলিয়া, আর দুই ছোট বোন নর্ন আর আশিয়া।

Mushoku Tensei 3

ছবিতে, রুডিয়াস, সাদা চুলের মেয়ে সিলফিট্টে, নীল চুলের মেয়ে রক্সি আর লাল চুলের এরিস।

Comments

comments