Studio Monogatari: Episode 02

MADHOUSE Inc. (Madhouse)

1. madhouse

 

দর্শকমহলে সবচেয়ে পছন্দের আনিমে স্টুডিও কোনটি জিজ্ঞেস করলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই যেই নামটি শুনা যাবে তা হল ম্যাডহাউজ স্টুডিও! এমনও সম্ভাবনা আছে, আপনি আপনার পছন্দের সেরা আনিমে লিস্টের দিকে তাকালে তার মধ্যে একটি বড় অংশ জুড়ে ম্যাডহাউজের তৈরি সিরিজের রাজত্ব দেখতে পাবেন। স্টুডিওটির এত বেশি জনপ্রিয়তার কারণও আছে অনেক, আর আনিমে তৈরির ক্ষেত্রে innovation ও চমৎকার strategy তাদের সাফল্যের অন্যতম বড় কারণ।

১৯৭২ সালে মুশি-প্রো ছেড়ে চলে আসেন চারজন বিখ্যাত আনিমে ডিরেক্টর মাসাও মারুইয়ামা, ওসামু দেজাকি, ইয়োশিয়াকি কাওয়াজিরি ও শিগেইয়ুকি হায়াশি (রিন্তারো) এবং প্রতিষ্ঠা করেন ম্যাডহাউজ। ম্যাডহাউজের সর্বপ্রথম কাজ Ace wo Nerae! (Aime for the Ace!) [1973].

2. Founders

আনিমে ইন্ডাস্ট্রিতে ম্যাডহাউজের দাপটের সাথে টিকে থাকার জন্যে তাদের নেওয়া কিছু চমৎকার স্ট্র্যাটেজি অনেক কাজে দিয়েছিল-

ম্যাডহাউজ শুরু থেকেই স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে কাজ করতো। প্রথম কাজ একটি টিভি সিরিজ হয়ে থাকলেও তারা এরপর কোন টিভি সিরিজের দিকে না গিয়ে বরং একের পর এক আনিমে মুভি নির্মাণ করতে শুরু করে। ৮০’র দশকে গান্দাম ও ম্যাক্রসের সাফল্যের কারণে অন্যান্য স্টুডিও যেখানে টিভি সিরিজ নির্মাণের দিকে ঝুঁকে পরে সেখানে ম্যাডহাউজ অনেক বেশি পরিমাণ মুভি তৈরি করতে থাকে, এমনকি বছরে ৪-৫টি করে মুভি রিলিজ দিতে থাকে। এখানে খেয়াল রাখতে হবে যে এই সময়টা এমন ছিল যখন আনিমে মুভি ভাল ফান্ডিং পেত না। ম্যাডহাউজের তখনকার এই মুভিপ্রীতির ফলাফলে আনিমে ইন্ডাস্ট্রিতে মুভি নির্মাণের সাফল্যের পথ তৈরি হয়ে যায়।

  • ৮০’র দশকের শেষের দিকে গিয়ে দেখা যায় অন্য এক চিত্র। মুভি নির্মাণের পিছনে যা খরচ হয় তা মুভির তৈরির লাভের পরিমাণের তুলনায় বেশি। তবে ব্যাপারটি ম্যাডহাউজকে তেমন সমস্যায় ফেলে নি, কারণ তারা অন্যান্য স্টুডিও থেকে এক ধাপ এগিয়ে ছিল – অন্যান্য স্টুডিও হয় টিভি সিরিজ, কিংবা মুভি বা ওভিএ যেকোন একটা লক্ষ্য করে এগিয়ে যেতে থাকলেও ম্যাডহাউজ শুধু এক নির্দিষ্ট ধরণের জিনিস তৈরির পিছনেই সীমাবদ্ধ ছিল না। এসময়ে তারা মুভি থেকে মুখ সরিয়ে তৈরি করা শুরু করে OVA সিরিজ। বছরে একাধিক OVA তৈরি করতে থাকে তারা, আর মাঝেমধ্যে অল্প কিছু মুভি রিলিজ দিত। আনিমের তৈরির ধরণে পার্থক্য আসলেও তাদের কোয়ালিটিতে একটুও পতন ঘটে নি। OVA নির্মাণ তাদেরকে আর্থিক সমস্যার মুখ থেকেও তুলে আনে।
  • বিভিন্ন সিরিজের সাফল্যের ক্রেডিট তখন যেত প্রধাণত এদের ডিরেক্টরদের বা প্রোডিউসারদের কাছে, কিন্তু ম্যাডহাউজ এসে সিস্টেমটার পরিবর্তন ঘটিয়ে দেয়। বিভিন্ন প্রোজেক্টের জন্যে ম্যাডহাউজ সব ট্যালেন্টেড নির্মাতাদের যোগাড় করতো। ডিরেক্টরদের দিত তাদের এসব প্রোজেক্টের উপর পূর্ণ ক্ষমতা। এমন উদ্ভাবনী চিন্তাভাবনার কারণে তখন থেকে সিরিজের সাফল্যের ক্রেডিট দিতে দেখা যেত আনিমেটির সুডিওকে।
  • ম্যাডহাউজের বিভিন্ন প্রোজেক্টের জন্যে বিভিন্ন নির্মাতাদের পিছনে ছুটে চলার ফলে এমন সময়ে সাতোশি কনের মত অনেক গুণী নির্মাতা উঠে আসেন।
  • ৯০’র দশকের শেষের দিকে তাদের স্ট্র্যাটেজিতে আবার পরিবর্তন আসে, এবার তারা টিভি সিরিজ নির্মাণের দিকে দৃষ্টিপাত করে। অল্প কিছু মুভি তৈরির ব্যাপারটি তখনও চলতে থাকে।
  • ম্যাডহাউজের আনিমে তৈরির ধরণের পিছনে এরপর বড় পরিবর্তনটা আসে ২০০৮ সালের দিকে, যখন জাপানে অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দেয়। সমগ্র আনিমে ইন্ডাস্ট্রিতেই বিশাল পরিবর্তন চলে আসে এবং প্রায় সব স্টুডিওকেই তাদের কৌশল পরিবর্তন করতে হয়। আর এই ২০০৮ সাল থেকেই ম্যাডহাউজের সোনালী যুগের শেষের শুরু হয়। ২০১১ সালে ওসামু দেজাকির মৃত্যুর পর এবং এরই মাঝে অনেক নামকরা স্টাফ ম্যাডহাউজ ছেড়ে চলে যাবার সাথে সাথেই ম্যাডহাউজের সোনালী যুগের সমাপ্তি হয়।
  • নতুন চেহারার ম্যাডহাউজ অবশ্য তাদের পুরানো কৌশল অবলম্বন করতে থাকে, বিভিন্ন গুণী নির্মাতাদের নিয়ে এসে অনেক অনেক টিভি সিরিজ তৈরি করে। সোনালী যুগের সব নামকরা নির্মাতারা ম্যাডহাউজ ছেড়ে চলে যাবার পরেও ম্যাডহাউজ ধীরে ধীরে তাদের নতুন স্টাফদের মধ্য থেকেই অনেক ভাল কিছু ডিরেক্টরদের পেয়ে আসছে এখন।

ম্যাডহাউজ স্টুডিওতে আনিমে ইন্ডাস্ট্রির অনেক জিনিয়াস মস্তিষ্ক কাজ করেছে। তাদেরই অল্প কয়েকজন-

  • Masao Maruyama: ম্যাডহাউজের প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম, তিনি স্টুডিও হেড হিসাবে একের পর এক নতুনত্ব নিয়ে আসা সব আনিমে প্রোজেক্টের সূচনা করেন। [শিরোবাকো আনিমেটি যদি দেখে থাকেন, তাহলে মারুইয়ামার আনিমে ভার্শনকে দেখতে পাবেন কিন্তু। সিরিজে Musashino Animation-এর প্রেসিডেন্ট হিসাবে দেখানো হয়েছে তাকে। স্টুডিওটি ঠিক কোন সত্যিকারের অ্যানিমেশন স্টুডিওকে তুলে না ধরলেও ধারণা করা হয় ম্যাডহাউজ এবং আরও কয়েকটি আনিমে স্টুডিওর বিভিন্ন জিনিস একত্রিত করে আনিমেটিতে দেখানো এই স্টুডিওকে সাজানো হয়েছে।]
  • Satoshi Kon:  নিজস্ব ধাঁচের সিনেমাটোগ্রাফির জন্যে বিশ্ববিখ্যাত এই ডিরেক্টর ম্যাডহাউজ থেকে রিলিজ দেন Perfect Blue [1997], Millennium Actress [2001], Tokyo Godfathers [2003], Paranoia Agent [2004], Paprika [2006]
  • Takeshi Koike: Afro Samurai pilot [2003] দিয়ে নজর কাড়েন, এরপর নির্মাণ করেন Redline [2009]
  • Hiroshi Hamasaki: ডিরেক্টর হিসাবে প্রথম নির্মাণ করেন Texhnolyze [2003], এবং এরপর নিয়ে আসেন Shigurui [2007]
  • Masayuki Kojima: জনপ্রিয় এই ডিরেক্টর নিয়ে আসেন Magical Shopping Arcade Abenobashi [2002], Monster [2003], Piano no Mori [2007]
  • Mamoru Hosoda: তোয়েই অ্যানিমেশন ছেড়ে এসে ম্যাডহাউজে যোগ দেন ২০০৫ সালে, নির্মাণ করেন The Girl Who Leapt Through Time [2006], Summer Wars [2009]
  • Tetsurou Araki: Death Note [2006], ও Highschool of the Dead [2010] তৈরি করেন এই বিখ্যাত ডিরেক্টর
  • Masaaki Yuasa: Kaiba [2008], Tatami Galaxy [2010] এর মত কিছু জনপ্রিয় অন্য ধাঁচের আনিমে তৈরি করেন
  • Satoshi Nishimura: Trigun [1998], Hajime no Ippo [2000], Trigun: Badlands Rumble [2010] পরিচালনা করেন

3. Genius

এত এত জনপ্রিয় সব মুখ ম্যাডহাউজকে আনিমে ইন্ডাস্ট্রিতে বিশেষভাবে উঠিয়ে নিয়ে আনলেও ম্যাডহাউজ বেশ কঠিন একটা সময় পার করে কয়েক বছর আগে। ২০০৮ থেকে ২০১১ সালের এই সময়টিতে ম্যাডহাউজের সোনালী যুগের সমাপ্তি ঘটে যায়। সবার মুখে মুখে ম্যাডহাউজের যেসব বিখ্যাত কাজ নিয়ে প্রশংসার ফুল ফুটে বেড়ায়, সেই সব কাজ উপহার দেওয়া স্টাফদের অধিকাংশই এই কঠিন সময়টাতে ম্যাডহাউজ ছেড়ে চলে যায়।

  • শুরুটা হয় ২০০৮ সালে জাপানের অর্থনৈতিক মন্দা দিয়ে। এই সময়টাতে পুরা আনিমে ইন্ডাস্ট্রিতেই এক বিশাল পরিবর্তনের ঢেউ খেলে যায়। এর ধাক্কা এসে লাগে ম্যাডহাউজের গায়েও। অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতির মুখে পরে তারা।
  • ২০১০ সালে সাতোশি কনের মৃত্যু শুধু আনিমে ইন্ডাস্ট্রিই নয়, বরং সমগ্র বিশ্বের অ্যানিমেশন ইন্ডাস্ট্রির জন্যে দুঃখের এক সংবাদ নিয়ে আসে। Dream Machine নামের নতুন এক মুভির কাজ অসমাপ্ত রেখেই বিদায় নেন তিনি।
  • মাসাও মারুইয়ামার সাথে ম্যাডহাউজের স্টাফদের মধ্যে বিভিন্ন কারণে সম্পর্ক খারাপ হয়ে আসছিল অনেকদিন ধরে। এরই জেড় ধরে ২০১১ সালে ম্যাডহাউজ ছেড়ে দিয়ে মারুইয়ামা তৈরি করেন তার নিজস্ব স্টুডিও MAPPA, এবং সাতোশি কনের অসমাপ্ত কাজ Dream Machine মুভির সব স্বত্বাধিকার নিয়ে চলে যান তার নতুন স্টুডিওতে।
  • মাসাকি ইউয়াসা এই সময়ের পর থেকে আর ম্যাডহাউজের সাথে কোনরকমের কাজে জড়িত হন নি।
  • তেতসুরৌ আরাকি ২০১১ সালে ম্যাডহাউজ ছেড়ে দিয়ে Production I.G-তে যোগ দেন, হিরোশি হামাসাকি একই বছর যোগ দেন White Fox-এ। মামোরু হোসোদা সে বছর ম্যাডহাউজ থেকে বের হয়ে এসে তৈরি করেন Studio Chizu.
  • মাসায়ুকি কোজিমা ম্যাডহাউজের হয়ে ২০১১ সালেই তার শেষ কাজ The Tibetan Dog সম্পন্ন করে এরপর Kinema Citrus-এ কাজ করেছেন।
  • সাতোশি নিশিমুরা ২০১০ সালে ম্যাডহাউজের সাথে শেষ কাজ হিসাবে Trigun: Badlands Rumble নির্মাণ করেন। এরপর এখন তিনি মারুইয়ামার সাথে MAPPA-এ গিয়ে Ushio to Tora তৈরিতে ব্যস্ত আছেন।
  • তাকেশি কোইকে-কে ২০১০ সালে বহিস্কার করা হয়। কারণ হিসাবে মারুইয়ামা টুইটারে উল্লেখ করেন রেডলাইন সিনেমা নির্মাণে অনেক বেশি সময় নেবার কারণেই তাকে এই সমস্যার মুখে পরতে হয় [৭ বছরেরও বেশি সময় লেগেছিল মুভিটি নির্মাণের জন্যে]।
  • এছাড়াও ম্যাডহাউজ থেকে অনেক গুণী Key Animator, Photographer, Director, Animation Director, Storyboard Artist ম্যাডহাউজ ছেড়ে চলে যায় MAPPA, J.C. Staff, Studio Khara, Tezuka Production, T2 Studio ইত্যাদি অন্য অনেক স্টুডিওতে, অনেকে আবার ম্যাডহাউজ ছেড়ে দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং কাজে ব্যস্ত আছেন।

ম্যাডহাউজকে ম্যাডহাউজ বানানো এসব নির্মাতা, অ্যানিমেটর চলে যাবার পরে এখন ম্যাডহাউজের কী অবস্থা?

  • ২০১১ সাল থেকে এখন যেই ম্যাডহাউজকে আমরা চিনি তা আসলে সেই আগের যুগের ম্যাডহাউজের ছায়ামাত্র বলা যায়। সোনালী দিনের মত সাফল্য পাওয়া একমাত্র সিরিজ Hunter x Hunter (2011).
  • এই সময়ে Marvel-এর কিছু আনিমে অ্যাডাপশন, Mahou Sensou [2014], Hunter x Hunter এর দুটি মুভি সহ আরও কিছু সিরিজ চরমভাবে ব্যর্থ হয় এবং ম্যাডহাউজকে এ কারণে অনেক সমালোচনা শুনতে হয়।
  • BTOOM! [2012], Photo Kano [2013]-এর মত কয়েকটি Hit or Miss সিরিজ ম্যাডহাউজকে ভয়াবহ বিপদ থেকে কিছুটা মুক্তি দেয়।
  • ডিরেক্টর Morio Asaka তৈরি করেন Chihayafuru [2011], Ore Monogatari!![2015], যা বেশ সুনাম অর্জন করে দর্শকমহলে।
  • ডিরেক্টর Atsuko Ishizuka তৈরি করেন Hanayamata [2014], No Game No Life [2014] এবং এই মুহুর্তের অনগোইং সিরিজ Prince of Stride: Alternative [2016]. তার ট্রেডমার্ক ভিজুয়াল স্টাইলের জন্যে অল্প সময়েই ক্ষ্যাতি ছড়িয়ে পরে তার কাজের।
  • The Ambition of Oda Nobuna [2012], Sunday Without God [2013] নিয়ে আসেন Yuuji Kumazawa.
  • ২০১১ সালের পর প্রথম অরিজিনাল আনিমে হিসাবে ম্যাডহাউজ নিয়ে আসে Death Parade [2015], পরিচালনা করেন Yuzuru Tachikawa.
  • সাম্প্রতিক সময়ে ম্যাডহাউজের সবচাইতে বড় হিট সিরিজ One Punch Man-এর সাফল্য আনিমে ইন্ডাস্ট্রির জন্যে অনেক বড় এক অর্জন হলেও ম্যাডহাউজের জন্যে দুঃখজনক ব্যাপার হল, নিজস্ব স্টাফদের অবদান এতে সামান্যই ছিল। এই সিরিজ তৈরির পিছনে Key Animator হিসাবে ছিলেন Yoshimichi Kameda (Bones), Yuki Watanabe (Doga Kobo), Se Jun Kim (Sunrise/Bones), Gosei Oda (Bones/Gainax), Arifumi Imai (Wit Studio/Production I.G), Shuhei Handa (Trigger), Yutaka Nakamura (Bones), এবং ডিরেক্টর হিসাবে ছিলেন Shingo Natsume. ম্যাডহাউজের অবদান বলতে যেন ছিল এদেরকে এক টেবিলে বসিয়ে কাজ করানো।

তবে সোনালী প্রজন্মের চলে যাবার পরেও ম্যাডহাউজ এখন আবার মুখ তুলে দাঁড়াচ্ছে ধীরে ধীরে। স্টুডিওটির নিজস্ব কৌশলে পরিবর্তন তেমন আসে নি, গুণী নির্মাতাদের একত্রিত করে এখনও বেশ ভাল সিরিজ উপহার দিয়ে আসছে, অন্যদিকে স্টুডিওর ডিরেক্টররা ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছেন। আনিমে ইন্ডাস্ট্রিতে এখনও অন্তত ৫-১০ বছর রাজত্ব করার মত সব অস্ত্রই তাদের হাতে আছে!

এতক্ষণ তো গেল স্টুডিওটির ছোটখাট ইতিহাস, এর আনিমেগুলির ব্যাপারে এবার আলোচনা করা যাক। এই এক স্টুডিও থেকে এত বেশি নামকরা সব আনিমে এসেছে যে শুধু বিখ্যাত আনিমেগুলির নাম একের পর এক বলে যেতে থাকলেও ধৈর্য্যের বাধ ভেঙ্গে যেতে পারে! জনপ্রিয় সব নামগুলির মধ্যে অল্প কিছু নাম উল্লেখ করছি, দেখুন এবং মিলিয়ে নিন এদের কতগুলি আপনি বিভিন্ন আনিমে রিকমেন্ডেশন পোস্ট/ডক/ফোরামে সাজেশন হিসাবে দেখেছেন-

70’s-80’s: Ace wo Nerae!, Barefoot Gen, Legend of the Galactic Heroes MOVIE (1988)

  • Early 90’s: Bio Hunter, The Cockpit, Cyber City Oedo 808, DNA², Memories, Record of Lodoss War
  • Late 90’s: Cardcaptor Sakura, Master Keaton, Perfect Blue, Petshop of Horrors, Trigun, Vampire Hunter
  • 2000-2003: Afro Samurai Pilot, Beyblade [1st Season], Boogiepop Phantom, Chobits, Galaxy Angel, Gungrave, Gunslinger Girl, Hajime no Ippo, Metropolis, Millennium Actress, Space Pirate Captain Herlock: The Endless Odyssey, Texhnolyze, Tokyo Godfathers, Vampire Hunter D (2000), X the Series
  • 2004-2007: Ani*Kuri15, BECK, Black Lagoon, Claymore, Death Note, Dennou Coil, The Girl Who Leapt Through Time, Ichigo 100%, Kaiji, Kemonozume, Monster, Nana, Paprika, Paradise Kiss, Paranoia Agent, Piano no Mori, Shigurui, Strawberry Panic
  • 2008-2010: Aoi Bungaku Series, Needless, Highschool of the Dead, Kaiba, One Outs, Redline, Summer Wars, The Tatami Galaxy, Trigun: Badlands Rumble
  • 2011-Present: Btooom!, Chihayafuru, Death Billiards, Death Parade, Hanayamata, Hunter x Hunter (2011), Mahouka Koukou no Rettousei, No Game No Life, Oda Nobuna no Yabou, One Punch Man, Ore Monogatari!!, Overlord, Parasyte -the maxim-, Photo Kano, Prince of Stride: Alternative, The Tibetan Dog, The Wolf Children Ame and Yuki

Madhouse Anime

ভাল ভাল সিরিজগুলির মধ্যে অল্প কয়েকটি নাম বলাতেই এই অবস্থা! তবে ম্যাডহাউজ যে শুধু আনিমেতেই ব্যস্ত ছিল না নয়, অন্যান্য স্টুডিওর আনিমে নির্মাণেও সাহায্য করেছে বেশ, এমনকি অনেক ওয়েস্টার্ন অ্যানিমেশন, কার্টুন ও বিভিন্ন গেমের সিরিজ নিয়ে আসাতেও সাহায্য করেছে-

 

  • The Animatrix: অধিকাংশ অ্যানিমেশনই ম্যাডহাউজ করেছিল, সাথে ছিল Studio 4°C
  • Batman: Gotham Knight: “In Darkness Dwells” আর “Deadshot”, সাথে ছিল  Production I.G, Studio 4°C ও Bee Train
  • Peanuts: ২০১২ সালে তারা ঘোষণা দেয় এই জনপ্রিয় কমিক স্ট্রিপের অ্যানিমেশন সিরিজ নিয়ে আসবে
  • Wakfu: Wakfu নামের MMORPG গেমের ফ্রেঞ্চ কার্টুন ভার্শন তৈরিতেও ম্যাডহাউজ সহযোগিতা করে
  • Marvel Anime: মার্ভেলের বিভিন্ন সিরিজের আনিমে ভার্শন এনেছে ম্যাডহাউজ, যেমন- Avengers Confidential: Black Widow to Punisher, Blade, Iron Man, Wolverine, X-Men
  • Supernatural The Animation: জনপ্রিয় টিভি সিরিজ Supernatural-এর উপর ভিত্তি করে এই আনিমে নিয়ে আসে ম্যাডহাউজ
  • Collaboration with Studio Ghibli: স্টুডিও জিবলীর কিছু জনপ্রিয় মুভিতে অ্যানিমেশনে সাহায্য করে। এসব মুভি হল- My Neighbor Totoro (1988), Spirited Away (2001), Howl’s Moving Castle (2004), Ocean Waves (1993), Tales from Earthsea (2006).
  • Collaboration with Disney: ডিজনির সহযোগিতায় Stitch! এর আনিমে নিয়ে আনে ম্যাডহাউজ।
  • Game-based Anime: Square Enix-এর Last Order: Final Fantasy VII (OVA), Capcom-এর Devil May Cry এর আনিমে তৈরিতে সাহায্য করে ম্যাডহাউজ।

 

পরিশেষে বলা যায়, সবচেয়ে ভাল সময়টা পিছনে ফেলে এলেও ম্যাডহাউজ এখনও একদম পথে বসে যায় নি, বরং তাদের স্বকীয়তা বজায় রেখে একের পর এক চমক এখনও দিয়ে যাচ্ছে। আর ম্যাডহাউজের সাফল্য তো আসলে আনিমে দর্শকদের জন্যেই খুশির খবর! যদিও ২য় সিজন আনে না বলে একটা অপবাদ গায়ে লেগে গিয়েছে [অল্প কয়েকটা সিরিজ বাদে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কথাটা সত্য], তাও আনিমেভক্তরা আশায় বসে থাকে তাদের পছন্দের সিরিজের আরেকটি সিজন হয়তো এই চলে এল বলে!

Comments

comments